নাটোর ও মান্দায় দুই বাড়িতে ডাকাতি || ছয় লাখ টাকা ও ১২ ভরি স্বর্ণালঙ্কারসহ মালামাল লুট

আপডেট: সেপ্টেম্বর ১৮, ২০১৭, ১:০৫ পূর্বাহ্ণ

নাটোর অফিস ও মান্দা প্রতিনিধি


নাটোর ও নওগাঁর মান্দায় দুই বাড়িতে ডাকাতি সংঘটিত হয়েছে। গত শনিবার দিবাগত রাতে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে এ দুই ডাকাতির ঘটনা ঘটে। দুই বাড়ি থেকে ১২ ভরি স্বর্ণলঙ্কার, ছয় লাখ টাকা ও মোবাইলসহ মূল্যবান মালামাল লুট করে নিয়ে গেছে ডাকাতদল।
নাটোরে শহরের মিরপাড়া মহল্লার আইনজীবী শিহাব উল আরেফিন টুটুলের বাসায় এ ডাকাতির ঘটনা ঘটে। আইনজীবী শিহাব-উল-আরেফিন টুটুল জানান, শনিবার রাত ২টার দিকে মুখোশধারী পাঁচজনের একটি ডাকাতদল গ্রিল কেটে বাড়িতে প্রবেশ করে। এসময় ডাকাত দলের সদস্যরা অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে পরিবারের সদস্যদের। এরপর ডাকাতদল ঘরের আসবাবপত্র তছনছ করে এবং বিভিন্ন লকার ভেঙে নগদ টাকাসহ মালামাল লুট করে নিয়ে যায়। খবর পেয়ে সকালে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। এ বিষয়ে সদর সার্কেলের সহকারী অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবুল হাসনাত ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, থানায় এখনও এজাহার দায়ের হয় নি। তবে লুট হওয়া মালামাল উদ্ধারে পুলিশ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।
অপরদিকে মান্দায় দক্ষিণ মৈনম গ্রামের রমজান আলী খাঁকে দাকাতদল অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে ডাকাতি করে। গৃহকর্তা রমজান আলী খাঁ জানান, শনিবার দিবাগত রাত ১টার দিকে মুখোশ পরিহিত অবস্থায় তিনজন লোক তার কক্ষে প্রবেশ করে। এসময় ডাকাতরা তাকে ঘুম থেকে তুলে মাথায় পিস্তুল ঠেকিয়ে বড়ছেলে আফাজ উদ্দিনের খোঁজ করে। পরে পিস্তুল ও ছুরির মুখে জিম্মি করে কোল বালিশে থাকা জমি বিক্রির দুই লাখ ১১ হাজার টাকা নিয়ে নেয়। ডাকাতদল একই সময় তার ছেলে আফাজ উদ্দিন ও দোতালায় থাকা স্ত্রী বিলকিস বিবির ঘরে হানা দেয়। তারা পুত্রবধূ রওশন আরাকে জিম্মি করে ৫০ হাজার টাকাসহ দুই ভরি স্বর্ণালঙ্কার লুট করে। তিনি দাবি করেন, ছেলে দুলাল হোসেন হতদরিদ্রদের জন্য বরাদ্দকৃত রেশন কার্ডের একজন ডিলার। ওই কার্ডের চাল উত্তোলনের জন্য তার মা বিলকিস বিবির নিকট গচ্ছিত থাকা এক লাখ ৫০ হাজার টাকাও লুট করে নিয়ে গেছে ডাকাতরা। গৃহকর্তা আরো জানান, প্রচণ্ড গরমের কারণে রাতে দরজা খোলা রেখেই তারা ঘুমিয়ে পড়েন। গভীর রাতে ১০-১২ জনের ডাকাতদল বাড়ির পূর্ব দিকে প্রাচীরের দরজা ভেঙে ভেতরে প্রবেশ করে। পরে বারান্দার গ্রিলের তালা কেটে তাদের শয়নঘরগুলোতে হানা দেয়। ঘটনার রাতে তার দুইছেলে আফাজ উদ্দিন ও দুলাল হোসেন বাড়িতে ছিলেন না।
এ বিষয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আনিসুর রহমান জানান, পূর্ব শত্রুতার জের ধরে এ ঘটনা ঘটে থাকতে পারে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে তিনি জানান।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ