নাটোর পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের নির্বাচন এক সপ্তার স্থগিতাদেশ আদালতের

আপডেট: আগস্ট ১২, ২০২২, ১২:৪০ পূর্বাহ্ণ

নাটোর প্রতিনিধি :


নাটোর জেলা পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের ত্রি-বার্ষিক নির্বাচনের ওপর ৭দিনের জন্য স্থগিতাদেশ দিয়েছেন আদালত। এই সময়ের মধ্যে উপযুক্ত কারণ দর্শানোর জন্য পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের প্রধান নির্বাচন কমিশনার সৈয়দ মোর্তজা আলী বাবলুসহ তিনজন কমিশনারকে কারণ দর্শাতে বলেছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার (১১আগস্ট) সকালে নাটোর পরিবহন শ্রমিক ইউনয়নের সদস্য ও শহরের বলারীপাড়ার বাসিন্দা মৃত্য সাহাবুদ্দিনের ছেরে মিঠুন আলীর আবেদনের প্রেক্ষিতে সহকারী সিনিয়র জজ দেলোয়ার হোসেনের আদালত এই নির্দেশ দেয়া হয়।

শ্রমিক ইউনিয়নের নির্বাচন কমিশনার অন্য দুই সদস্যরা হলেন, শহরের বড় হরিশপুর এলাকার জয়নাল হাজী এবং মল্লিকহাটি এলাকার বুলবুল হোসেন।

আদালত ও মামলার এজাহার সূত্র জানায়, গত বুধবার ছিল নাটোরে জেলা পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নে মনোনয়ন কেনার নির্ধারিত দিন। ওই দিন সভাপতি পদে মনোনয়ন ফর্ম উত্তোলন করতে আসে শহরের বলারীপাড়ার বাসিন্দা মিঠুন আলী। শ্রমিক ইউনিয়নের ২হাজার ৭শ ৮৪ নং সদস্য হিসাবে সভাপতি পদে মনোনয়ন ফর্ম উত্তোলন করতে চাইলে নির্বাচন কমিশন তাদের মনোনয়ন কিনতে দেননি।

অপরদিকে এই ঘটনার প্রতিবাদ করায় তিনি সহ তার সমর্থকদের ওপর হামলা ও মারপিটের ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে নাটোর সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আফরোজা খাতুন এবং নাটোর সদর সার্কেল মহসিন আলী ঘটনা স্থলে পৌছেন। এসময় আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি অবনতির আশঙ্কায় সাময়িক সময়ের জন্য নির্বাচনী মনোনয়নপত্র বিক্রির স্থগিত ঘোষনা করেন তিনি।

অপরদিকে ওই পথ দিয়ে যাওয়ার সময় নাটোর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সদর উপজেলা চেয়ারম্যান শরিফুল ইসলাম রমজান বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি দেখে ঘটনা স্থলে গেলে তখন ভোটাররা নির্বাচন স্থগিত না করতে তার কাছে দাবী করে বিক্ষোভ ও স্লোগান দিতে থাকেন।এঅবস্থায় তিনি নির্বাচন সুষ্ঠু ও সফল করতে দলের পক্ষ থেকে সব রকম সহোযোগিতার আশ্বাস দেন এবং সংগঠনের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী সকল পদে নির্বচন পরিচালনা করতে নির্বচাচন কমিশনেনর প্রতি আহবান জানালে পরিস্থিতি শান্ত হয়।

এদিকে মামলার বাদী মিঠুন আলী জানান, নির্বাচনের সুষ্ঠু পরিবেশ নেই এবং তাকে সভাপতি পদে মনোনয়ন ফর্ম উত্তোলন করতে না দেয়ায় তিনি মামলা দায়ের করছেন। আদালত বিষয়টি শুনানী শেষে আদালত ৭দিনের জন্য নির্বাচনের সকল কার্যক্রম স্থগিত সহ প্রধান নির্বান কমিশনার ষৈয়দ মোর্তজা আলী বাবলুসহ তিনজন নির্বাচন কমিশনারকে কারণ দর্শনোর নির্দেশ দেন। নাটোর জজ কোর্টের জিপি আসাদুজ্জামান ষিয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এব্যাপারে নাটোর জেলা পরিবহণ শ্রমিক ইউনিয়নের প্রধান নির্বাচন কমিশনার সৈয়দ মোর্তুজা আলী বাবলু জানান, মনোনয়নপত্র বিক্রির সময় তিনি পরিবহণ শ্রমিক ইউনিয়ন কার্য্যলয়ের ভিতরে ছিলেন। বাহিরে অপ্রীতিকর ঘটনায় কিছু সময়ের জন্য মনোনয়নপত্র বিক্রি স্থগিত রাখা হয়। তারপর থেকে পরিস্থিতি সব শান্ত রয়েছে। নির্বাচনের শান্ত পরিবেশকে বিনষ্ট করতে একটি মহল তৎপর রয়েছে। যারা দখলদারিত্ব সাথে থেকে দীর্ঘ্য দিন নির্বাচন না দিয়ে এবং শ্রমিকদের পাওনা ১৮লক্ষ টাকা না দিয়ে ২০০৯ সাল থেকে শুরু করে আজ দীর্ঘ ১৩ বছর ধরে লুট-পাট করেছে। এইসব দখলবাজরা ছারা জেলার সমস্ত শ্রমিকরা নির্বাচনের পক্ষে রয়েছে।

নির্বাচন স্থগিতের ব্যাপারে তিনি বলছেন, তার হাতে আদালতের এধরনের কোন নোটিশ তিনি পাননি। তবে তিনি মামলার বিষটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দেখেছেন। অন্য নির্বাচন কমিশনারদের নিয়ে আলাপ-আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেয়ার কথা বলেন।

তফসিল অনুযায়ী নির্বাচন কার্যক্রম চলবে।
উল্লেখ্য নাটোর জেলা পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নে ত্রি-বার্ষিক নির্বাচনে সভাপতি- সাধারন সম্পাদকসহ মোট ১৩টি পদের জন্য ৪৭জন প্রতিদ্বন্দিতা করার জন্য তারা স্ব-স্ব পদের মনোনয়ন ফর্ম উত্তোলন শেষে বৃহস্প্রতিবার দুপুরে জমা দিয়েছেন। আগামী ১৯ আগষ্ট চুড়ান্ত পার্থী তালিকা প্রকাশ এবং প্রতিক বরাদ্দর মধ্যে দিয়ে আগামি ৩ সেপ্টেম্বর নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে।