‘নারী-পুরুষে আল্লা ফারাক করেননি, তালিবান করবে কেন?’, ভাইরাল আফগান কিশোরীর প্রতিবাদী

আপডেট: সেপ্টেম্বর ২৪, ২০২১, ৭:০৫ অপরাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


আফগানিস্তান নতুন করে তালিবানের দখলে যাওয়ার পর থেকেই সবচেয়ে বেশি যেটা নিয়ে সংশয় ছিল তা হল নারী স্বাধীনতা। যদিও প্রথম প্রথম তালিবান বলেছিল, তারা এখন বদলে গিয়েছে। শরিয়ত আইন মেনে মেয়েদের অধিকার রক্ষা করা হবে এই আশ্বাস দেওয়া সত্তে¡ও অচিরেই বোঝা যায় তালিবান আছে তালিবানেই।
আফগানিস্তানে বহু মেয়েদের স্কুল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। কার্যত বাড়ি থেকেই বেরনো বন্ধ হয়ে গিয়েছে মহিলাদের। কিন্তু পুরনো সময়ের মতো মেয়েরা এখন যে আর অত সহজে তালিবানি ফতোয়া মেনে নিতে রাজি নয়, তা ক্রমশই স্পষ্ট হয়ে উঠেছে। স¤প্রতি ভাইরাল হওয়া এক ভিডিওয় মিলল তারই হদিশ।
আফগান সাংবাদিক বিলাল সরওয়ারি তাঁর টুইটারে শেয়ার করেছেন ভিডিওটি। সেখানে এক কিশোরীর দৃপ্ত ভাষণ মুগ্ধ করেছে নেটিজেনদের। ভিডিওয় কালো পোশাক পরা, মাথায় সাদ ওড়না দেওয়া ওই কিশোরীকে বলতে শোনা গিয়েছে, ”আল্লার চোখে নারী ও পুরুষ সমান। তালিবানের কোনও অধিকার নেই এতে বৈষম্য করার। আমি নতুন প্রজন্মের প্রতিনিধি। আমি কেবল খাওয়া, ঘুম ও বাড়িতে বসে থাকার জন্য আসিনি। আমি স্কুলে যেতে চাই। আমি আমার দেশের উন্নতির জন্য কিছু করতে চাই।”
মেয়েটির পরিচয় কিংবা কোথায় ভিডিওটি তোলা হয়েছে তা অবশ্য জানা যায়নি। সে কেবল একজন নয়, গোটা আফগান মুলুকের অবদমিত নারীজাতির মুখ হয়ে উঠেছে। ওই কিশোরীর পাশে দেখা গিয়েছে আরও কিছু আফগান পড়ুয়াকে। তাদের হাতে লেখা প্ল্যাকার্ডে স্পষ্ট দাবি। স্বাধীনতা চাই। তালিবানের আধিপত্য মানতে রাজি নয় তারা।
কিশোরীর মর্মস্পর্শী ভাষণ নাড়া দিয়েছো গোটা বিশ্বকে। শেয়ার করার কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই তা ভাইরাল হয়ে যায়। তালিবানের রক্তচক্ষুর সামনে দাঁড়িয়ে এক কিশোরীর অকুতোভয় ও স্পষ্ট বক্তব্যের প্রশংসায় পঞ্চমুখ সকলে।
তথ্যসূত্র: সংবাদ প্রতিদিন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ