নাশকতার প্রস্তুতিকালে ছাত্রলীগ নেতা আটক! মুখোশ, মশাল ও মোটরসাইকেল জব্দ

আপডেট: নভেম্বর ১৫, ২০২৩, ৯:৫২ অপরাহ্ণ


নাটোর প্রতিনিধি:


নাটোরে নাশকতার প্রস্তুতি নেয়ার অভিযোগে তাশরিক জামান রিফাত(২৪) নামে সাবেক এক ছাত্রলীগ সভাপতিকে আটক করেছে পুলিশ।
মঙ্গলবার (১৪ নভেম্বর) দিবাগত রাতে তাকে আটক করা হয়। রিফাত নাটোর পৌর ছাত্রলীগের ৭ নং ওয়ার্ডের সাবেক সভাপতি। সে পৌরসভার হাফরাস্তা এলাকার শিক্ষক মোস্তফা জামানের ছেলে।

পুলিশের দাবি রিফাতসহ অন্যরা নাশকতার সৃষ্টির জন্য কেরোসিন ভেজানো বাঁশের তৈরি মশাল ও মুখোশ নিয়ে সংগঠিত হচ্ছিলো। অপরদিকে জেলা ছাত্রলীগ বলছেন, আটক তাশরিক জামান নাটোর পৌর ছাত্রলীগের ৭ নম্বর ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সভাপতি ছিলেন। পরে ওই কমিটি স্থগিত করা হয়েছে।

নাটোর থানা পুলিশ ও স্থানীয় লোকজন জানান, গতকাল সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নাসিম আহম্মেদের নেতৃত্বে পুলিশ শহরের হাফরাস্তা এলাকায় একটি বাড়ির সামনে থেকে তাশরিককে আটক করে। পরে তাকে সঙ্গে নিয়ে ওই বাড়ির একটি পরিত্যক্ত ঘর থেকে ছয়টি মশাল, তিনটি মুখোশ ও একটি মোটরসাইকেল উদ্ধার করে। এ সময় নাটোর-২ আসনের সংসদ সদস্য শফিকুল ইসলাম দলবল নিয়ে সেখানে হাজির হন। তিনি উপস্থিত লোকজনকে বলেন, তাশরিক বিএনপির লোক। তিনি শহরে বুধবারের অবরোধ কর্মসূচি উপলক্ষে নাশকতা সৃষ্টির প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। খবর পেয়ে স্থানীয় সংসদ সদস্য প্রশাসনকে জানিয়ে ঘটনাস্থলে এসেছেন বলে জানান।

পুলিশ তখন হাতকড়া পরিয়ে তাশরিককে গাড়িতে ওঠায়। তখন তিনি ফেসবুক লাইভে বলেন, ‘আমি ৭ নম্বর ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি। আমি একটা বাড়ির সামনে দাঁড়িয়ে ছিলাম। এটা তো অপরাধ হতে পারে না। এ ঘটনার ছবিসংবলিত একটি ভিডিও, ২০২২ সালের ২৩ এপ্রিল গঠিত নাটোর পৌর ছাত্রলীগের ৭ নম্বর ওয়ার্ড ছাত্রলীগের কমিটি ও জেলা ছাত্রলীগের নেতাদের সঙ্গে তোলা তাশরিকের কিছু ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রচার হতে শুরু করে। রাতে আটক তরুণের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, পরিবারের সদস্যরা সবাই থানায় অবস্থান করছেন। আশপাশের লোকজনও এ ব্যাপারে কথা বলতে রাজি হননি।

তাশরিকের বাবা মোস্তফা জামান বলেন, তার ছেলে ৭ নম্বর ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি। সে কেন নাশকতার প্রস্তুতি নিতে যাবে? এসব ষড়যন্ত্র। দলের একটি পক্ষ তাকে ফাঁসানোর চেষ্টা করছে।

জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ফরহাদ-বিন আজিজ বলেন, ছাত্রলীগের কোনো পৌর কমিটি নেই। ওয়ার্ড কমিটি থাকার প্রশ্নই ওঠে না। তার দাবি রিফাত ছাত্রলীগের কেউ না।
নাটোর থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি নাসিম আহম্মেদ বলেন, ঘটনাস্থলে তিন তরুণ নাশকতার প্রস্তুতি নিচ্ছেন এমন খবর পেয়ে তারা ঘটনাস্থলে যান। ঘটনাস্থলে তাশরিক দাঁড়িয়ে ছিলেন। সন্দেহ হওয়ায় তাকে নিয়ে পাশের একটি বাড়ি তল্লাশি করা হয়। সেখান থেকে মুখোশ, মশাল ও মোটরসাইকেল জব্দ করা হয়। পরে খোঁজ খবর নিতে গিয়ে জানা যায়, তাশরিক ছাত্রলীগের সাবেক নেতা। সবকিছু যাচাই-বাছাই করে এখন প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।