নিজেই শিকারে পরিণত হলেন পাকা শিকারি

আপডেট: এপ্রিল ২৫, ২০১৭, ১২:০৫ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক



স্কট ভ্যান জেইল নামের দক্ষিণ আফ্রিকার এক শিকারি সম্প্রতি জিম্বাবুয়ে গিয়েছিলেন। তবে এক সপ্তাহ কেটে গেলেও খোঁজ না মেলায় চিন্তিত হয়ে পড়েছিলেন তার স্বজনেরা। শিকারের উদ্দেশ্যে গিয়ে নিজেই শিকারে পরিণত হলেন কিনা সেই সন্দেহে খোঁজও চলছিল। সম্প্রতি জিম্বাবুয়ের বন কর্তৃপক্ষ নিশ্চিত করেছে, সেই শিকারী স্থানীয় কুমিরের খাদ্যে পরিণত হয়েছেন।
জিম্বাবুয়ে’তে কুকুর এবং এক পথপ্রদর্শককে নিয়ে গত সপ্তাহে শিকারে বের হন স্কট। শিকারের সুবিধার্থে স্থানীয় পথপ্রদর্শককে সঙ্গে নিয়ে বনের গভীরে প্রবেশ করেন তিনি। মাঝ পথে তাই ফেলে যান গাড়িটিও।
তবে দিন কেটে গেলেও দক্ষ শিকারি হিসেবে পরিচিত স্কট ভ্যান ফিরে না আসায় সবার মধ্যে দুশ্চিন্তা দেখা দেয়। সেই আশঙ্কা আরও বাড়িয়ে দেয় শিকারির সঙ্গে থাকা কুকুরটি সেদিন একাই ফিরে আসে। ফলে বিদেশি শিকারির সন্ধানে নামে জিম্বাবুয়ে বন কর্তৃপক্ষ। পথে নিখোঁজ শিকারির গাড়িও তারা দেখতে পান। কিন্তু গাড়িটিতে শিকারির ব্যবহৃত সরঞ্জাম থাকলেও সেখানে কেউ ছিলেন না।
তল্লাশিতে থাকা ব্যক্তিরা তাই ধারণা করেন, শিকারের মোহে হয়তো তারা বনের গভীরে প্রবেশ করেছিলেন। কিংবা কাছের লিম্পপো নদীর কাছে গিয়েছিলেন। সেখানেই সম্ভবত তারা কুমিরের খাদ্যে পরিণত হয়েছেন।
শিকারির সন্ধানে তাই বড় ধরনের অভিযান চালায় বন কর্তৃপক্ষ। সার্চ পার্টিতে অংশ নেয় হেলিকপ্টারও। একসময় তারা নদীর পারে শিকারি আর পথপ্রদর্শকের পায়ের ছাপ দেখতে পায়। এসময় কাছেই পাওয়া যায় শিকারির সঙ্গে থাকা ব্যাগটিও।
তল্লাশি দলে থাকা সাকি লওরেন্স সংবাদমাধ্যমকে জানান, তারা যেসব আলামত পেয়েছেন তাতে আশঙ্কাই সত্যি প্রমাণিত হয়। একই ধারণা পুলিশের। তাদের বিশ্বাস, কুমিরের শিকারে পরিণত হয়েছেন দক্ষিণ আফ্রিকার সেই শিকারি। একই পরিণতি হয়েছে সঙ্গে থাকা ব্যক্তিটিরও। জিম্বাবুয়ের দক্ষিণাঞ্চলে প্রায়ই স্থানীয় মানুষকে কুমিরের খাদ্যে পরিণত হওয়ার খবর পাওয়া যায়। সূত্র: ইন্ডিপেনডেন্ট ইউকে

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ