‘নিজেকে শেষ করে দিতে চেয়েছিলাম’, বিস্ফোরক স্বীকারোক্তি মিঠুন চক্রবর্তীর

আপডেট: জুলাই ২৪, ২০২২, ৮:৫১ অপরাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক:


তিনি বরাবরই লড়াকু। পুণের ফিল্ম ইনস্টিটিউট থেকে দারুণ কৃতিত্বের সঙ্গে পাশ করা, মৃণাল সেনের ‘মৃগয়া’র জন্য জাতীয় পুরস্কার জেতার পরও সহজে তাঁকে জায়গা দেয়নি নিষ্ঠুর টিনসেল টাউন। অনেক লড়াই, পরিশ্রম ও অনমনীয় জেদের মধ্যে দিয়ে নিজেকে প্রতিষ্ঠা করেছিলেন ‘ডিস্কো ডান্সার’ মিঠুন চক্রবর্তী। কিন্তু এহেন সংগ্রামী অভিনেতাও নাকি ভেবেছিলেন নিজের জীবন শেষ করে দেওয়ার কথা! সম্প্রতি এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলার সময় এমনটাই জানিয়েছেন তিনি।

কবে এবং কেন এমন চিন্তা ভর করেছিল অভিনেতাকে? এপ্রসঙ্গে কথা বলতে গিয়ে অস্বস্তিতে পড়েছিলেন মিঠুন। তবে সোজাসাপটা ভাষাতেই তিনি জানিয়েছিলেন, ”সকলকেই লড়াই করতে হয়। কিন্তু আমাকে একটু বেশিই করতে হয়েছিল। মাঝে মাঝে মনে হচ্ছিল, আমি বোধহয় আমার লক্ষ্যে পৌঁছতে পারব না। নানা কারণে কলকাতাতেও ফিরতে পারছিলাম না। পরিস্থিতি এমন দাঁড়িয়েছিল, আমি এমনকী আত্মহত্যার কথাও ভেবেছিলাম। কিন্তু আমার সকলের প্রতি উপদেশ, কখনও লড়াই বন্ধ করে জীবন শেষ করে দেওয়ার কথা ভাববেন না। আমি জন্মগত ভাবে একজন লড়াকু মানুষ। আমি হারতে শিখিনি। দেখুন, আজ আমি কোথায় পৌঁছেছি।”

সাম্প্রতিক ওই সাক্ষাৎকারে জীবনের কালো অধ্যায় নিয়ে কথা বলার পাশাপাশি মিঠুন উল্লেখ করেন, যত সময় যাচ্ছে ততই যেন মানবিক মূল্যবোধ হারিয়ে যাচ্ছে। তাঁর কথায়, ”আগে আমরা একসঙ্গে বসে খাওয়া দাওয়া করতাম। এখন সবাই যার যার ভ্যানিটি ভ্যানে ঢুকে পড়ে নিজের ফোনেই ব্যস্ত থাকে।”

উল্লেখ্য, মিঠুন চক্রবর্তীকে শেষবার দেখা গিয়েছিল ‘দ্য কাশ্মীর ফাইলস’ ছবিতে। এরপর বাংলা ছবি ‘প্রজাপতি’তে দেখা যাবে অভিনেতাকে। পাশাপাশি একটি রিয়েলিটি শোয়ে বিচারকের ভূমিকাতেও দেখা যাচ্ছে ৭২ বছরের অভিনেতাকে।
তথ্যসূত্র: সংবাদ প্রতিদিন