নিজের ব্যাপারে কথা বলতে পছন্দ করি না : মেসি

আপডেট: অক্টোবর ১৯, ২০১৯, ১:৩৮ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


প্রথম খেলোয়াড় হিসেবে টানা তৃতীয় বার গোল্ডেন শু জিতেছেন লিওনেল মেসি। ইউরোপের শীর্ষ পাঁচ লিগে সবচেয়ে বেশি গোল করার স্বীকৃতি হিসেবে দেয়া এই পুরস্কার বুধবার জমকালো এক আয়োজনে তুলে দেয়া হয় বার্সেলোনা অধিনায়কের হাতে। ক্যারিয়ারে রেকর্ড ষষ্ঠবারের মতো এই পুরস্কার জেতার পর স্প্যানিশ ফুটবল বিষয়ক পত্রিকা মার্কার মুখোমুখি হয়েছিলেন আর্জেন্টাইন এই তারকা ফরোয়ার্ড। কথা বলেছেন নিজের ক্যারিয়ার, ক্লাব এবং সতীর্থদের নিয়ে।
প্রশ্ন : ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো এবং জ্লাতান ইব্রাহিমোভিচ নিজেদের শ্রেষ্ঠত্বের কথা বলেন। আপনি কখনো সেটা করেন না। একজন খেলোয়াড় হিসেবে নিজের ব্যাপারে আপনার মূল্যায়ন কি?
মেসি: আমি বরং মানুষকেই আমার ব্যাপারে কথা বলতে দিতে চাই। আমি জানি আমি কে, আমি কি করেছি এবং আমি কি করতে পারি। তবে আমি এগুলো নিজের মধ্যেই রাখি। মানুষ নিজেদের কথা বলতেই পারে। তবে আমি নিজের ব্যাপারে কথা বলতে পছন্দ করি না। আমি দলের কথা বলতেই পছন্দ করি।
প্রশ্ন : সময়ের সাথে সাথে কি নিজেকে একজন মিডফিল্ডার হিসেবে বিবর্তিত হতে দেখছেন?
মেসি : আমি জানি না, এটা আসলে নির্ভর করে। এখন আমি সাধারণত বল রিসিভ করতে এবং মিডফিল্ডের সাথে যুক্ত থাকার জন্য একটু নিচের দিকে থাকি। ভবিষ্যতে কি হবে, সেটা জানি না।
প্রশ্ন : আরও কতদিন আপনি খেলা চালিয়ে যাবেন সে ব্যাপারে কি আপনার কোনো ধারণা আছে? নাকি এই ব্যাপারটা আপনি পর্যবেক্ষণ করছেন?
মেসি: আপনি কতদিন খেলা চালিয়ে যেতে পারবেন, সেটা আপনি নিজেই বুঝতে পারবেন। আমি হয়তো সময়ের সাথে সাথে ব্যাপারটা বুঝবো। সেরকম হলে, আমিই সবার প্রথমে বলবো, ‘আমি এতদূর এসেছি এবং আমি আর এটি চালিয়ে যেতে পারবো না।’ অথবা বলবো যে, ‘আমি চালিয়ে যাবার মতো অবস্থায় আছি।’ সামনের বছরগুলোতে আমি হয়তো সেটা বুঝতে পারবো।
প্রশ্ন : জার্মানি দলের প্রধান গোলকিপারের দায়িত্ব কার পাওয়া উচিত, এটা নিয়ে সেখানে একটা উন্মুক্ত বিতর্ক আছে। মার্ক-আন্দ্রে টের স্টেগান এবং মানুয়েল নয়ারের মধ্যে কে সেরা গোলকিপার বলে আপনার মনে হয়? এবং তাদের প্রধান দক্ষতার জায়গা কি?
মেসি: তারা দুজনই অসাধারণ গোলকিপার। তাদের দুজনের ধরনেও সাদৃশ্য রয়েছে। তারা খেলাটাকে খুব ভালো পড়তে পারে। তারা মিডফিল্ডারের মতো নিজেদের পায়ের দক্ষতা দেখাতে পারে এবং গোলপোস্টের নিচে তারা খুবই ক্ষিপ্র। আমি মার্ককে খুব ভালোভাবে চিনি এবং তার ব্যাপারে বলতে পারি। তবে আমি নয়ারের অনুশীলন দেখিনি এবং সাধারণত তার খেলাও দেখা হয় না। তবে আমি মনে করি, তারা দুজন একই রকম গোলকিপার।
প্রশ্ন : এই বছর আপনি চোটের কারণে বেশ কিছু ম্যাচ খেলতে পারেননি। আপনার শরীর এখনও আগের চেয়ে বেশি বিশ্রাম চাইছে, এই ব্যাপারটায় আপনার কেমন অনুভব হচ্ছে?
মেসি: এটা বেশ কঠিন, কারণ মানসিকভাবে আপনি পুরোপুরি ঠিকঠাক বোধ করবেন। আপনার মনে হবে যে, আপনার বয়স ২৫ বছর এবং আপনি আগের মতোই সবকিছু চালিয়ে যেতে পারবেন। তবে শরীর আপনাকে নিয়ন্ত্রণ করে এবং মাঝেমাঝে এমন সময় আসে যখন আগের চেয়ে অনেক বেশি সতর্ক থাকতে হয়। এটার সাথে খাপ খাওয়ানোর জন্য একটা প্রক্রিয়ার ভেতর দিয়ে যেতে হয় এবং অনুশীলন ও ম্যাচের জন্য আলাদাভাবে প্রস্তুতি নিতে হয়।
প্রশ্ন : পেপ গুয়ার্দিওলার বার্সেলোনা এবং বর্তমান বার্সেলোনার মধ্যে পার্থক্য কি?
মেসি: সত্যিটা হচ্ছে, অনেকটা সময় কেটে গেছে। অনেক নতুন খেলোয়াড় এসেছে। আমার মনে হয়, গুয়র্দিওলার ওই সময়ের আমরা কেবল তিন বা চারজন ফুটবলার আছি। দল পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে যাচ্ছিল এবং প্রতি বছর আমরা যে খেলোয়াড়দের পাচ্ছিলাম তাদের সাথে খাপ খাইয়ে নিচ্ছিল।
প্রশ্ন : ফ্রাঙ্কি ডি ইয়ংয়ের সেরা গুণ কি এবং মাঠে তার সাথে আপনার বোঝাপড়াটা কেমন?
মেসি: তার জন্য দলে মানিয়ে নেয়াটা সহজ ছিল। কারণ, সে প্রায় একই রকম দর্শনের একটা ক্লাব, আয়াক্স থেকে এসেছে। সে একই রকম চিন্তাধারা এবং একই রকম খেলার ধরনের সাথে বেড়ে উঠেছে। যদিও সেখানে তাকে মিডফিল্ডের চেয়ে কিছুটা এগিয়ে থেকে খুব বেশি খেলতে হয়নি। হোল্ডিং মিডফিল্ডার হিসেবেই সে বেশি স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করে। তবে সে দারুণভাবে মানিয়ে নিয়েছে। সে বলের দখল চায়, ছোট ছোট পাস দেয়, দুই প্রান্তে পাস দেয়, এবং সে খুব দ্রুততার সাথে লম্বা করে পা ফেলে এগুতে পারে। সে একজন পরিপূর্ণ ফুটবলার।
প্রশ্ন : ভার্জিল ফন ডাইকের মতো একজন খেলোয়াড়কে পরাস্ত করা এত কঠিন কেন?
মেসি: সে এমন একজন ডিফেন্ডার যে নিজের টাইমিংকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারে এবং চ্যালেঞ্জ করার সঠিক মুহূর্তটার জন্য অপেক্ষা করে। সে খুবই ক্ষিপ্র এবং একইসাথে বেশ লম্বা। উচ্চতার কারণেই সে অনেক বেশি সাবলীল। অনেক লম্বা করে পা ফেলতে পারার কারণেই সে খুব ক্ষিপ্র। রক্ষণ এবং আক্রমণ দুই ক্ষেত্রেই সে চমৎকার, কারণ সে অনেকগুলো গোল করেছে।
প্রশ্ন : ক্রিস্তিয়ানো সবসময়ই আপনাকে বার্সেলোনার স্বস্ত্বির জায়গা থেকে বের হয়ে অন্য লিগে নতুন চ্যালেঞ্জ খোঁজার জন্য পরামর্শ দেয়, যেটা উনি নিজে চারবার করেছে। আপনি কি সেটা শুনবেন?
মেসি : সবাই নিজের লক্ষ্য পূরণ এবং অভিজ্ঞতা অর্জনের আশা করে। আমার কখনোই বিশ্বের সেরা ক্লাব বার্সেলোনা ছেড়ে যাওয়ার প্রয়োজন পড়েনি, যেখানে আমি অনুশীলন, ম্যাচ এবং এই শহর – সবকিছুই উপভোগ করি…অন্য কোথাও খোঁজার চেয়ে আমি বরং এই ক্লাবের লক্ষ্য সম্পর্কে আমি সবসময়ই নিশ্চিত ছিলাম।
প্রশ্ন : অন্য সবকিছু জেতার পরও পুসকাস ট্রফি আপনার অধরা রয়ে গেছে। এই অনুভূতিটা কেমন?
মেসি : আমি সবসময়ই বলি, ব্যক্তিগত কোন পদক আমার লক্ষ্য নয়। দ্য বেস্ট, দ্য ব্যালন ডি’অর অথবা গোল্ডেন বুট আমার লক্ষ্য নয়, বছরের সেরা গোল তো নয়ই। যদি আমি পাই, তো ভালো। না পেলেও সবকিছু ঠিক থাকবে।