নিয়ামতপুরে হাত ধুয়ে থানায় প্রবেশ || করোনা প্রতিরোধে হাট বাজার হোটেল, রেস্তোয়া বন্ধে প্রশাসনের মাইকিং

আপডেট: মার্চ ২৪, ২০২০, ১২:৫২ পূর্বাহ্ণ

নিয়ামতপুর প্রতিনিধি


নওগাঁর নিয়ামতপুরে করোনা ভাইরাস কোভিড-১৯ ঝুঁকি এড়াতে ও করোনাভাইরাস নিয়ে আতঙ্কিত না হয়ে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা, ভাইরাসের লক্ষন দেখা দিলে অতিদ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শের পাশাপাশি ভাইরাস বিস্তার রোধ ও প্রতিরোধের উপায় সম্পর্কে সর্বসাধারণকে সচেতন করতে, জনসমাগম ঠেকাতে হাট, বাজার, স্টল, হোটেল রেস্তোরাসহ (নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য, ওষুধ ছাড়া) সকল প্রতিষ্ঠান বন্ধের জন্য উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নির্দেশে বন্ধের জন্য মাইকিং করা হয়েছে।
এ ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অফিসার ডা. মো. তোফাজ্জল হোসেন বলেন, আজ পর্যন্ত সোমবার নিয়ামতপুর উপজেলায় ৪৮ জন হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছে। এর মধ্যে ৬জনকে ছাড়পত্র প্রদান করা হয়েছে। উপজেলায় এখন পর্যন্ত কোন করোনাভাইরাস সনাক্ত হয় নি। আমরা এখন পর্যন্ত ভালো রয়েছি। উপজেলা নির্বাহী অফিসার স্যারসহ প্রশাসনের সকলে মিলে একযোগে কাজ করে যাচ্ছি। আমাদের আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। জননিরাপত্তার স্বার্থে আগামী দুই সপ্তাহ অত্যান্ত সতর্কতার সাথে থাকতে হবে।
অপরদিকে করোনাভাইরাস নিয়ে সচেতনতায় উদ্যোগ নিয়েছে নিয়ামতপুর থানা পুলিশ। থানায় প্রবেশের মুখে বসানো হয়েছে হাত ধোয়ার ব্যবস্থা। সেখানে দায়িত্বে রয়েছে পুলিশের একজন কন্সেটেবল। থানায় আসা ব্যক্তিদের হাত ধোয়ার পর ভেতরে ঢোকার অনুমতি দিচ্ছেন। গত শুক্রবার থেকে এই কার্যক্রম শুরু হয়েছে। গতকাল সোমবার বেলা ১২টায় থানা চত্ত্বরে গিয়ে দেখা যায় এমন দৃশ্য। স্থানীয় ডেকোরেটর থেকে সংগ্রহ করে বসানো হয়েছে অস্থায়ী বেসিন। যারা থানায় পুলিশের কাছে সেবা নিতে আসছেন, তাঁদের সাবান দিয়ে হাত ধোয়ার পর ভেতরে ঢোকার অনুমতি দেওয়া হচ্ছে।
নিয়ামতপুর থানার অফিসার ইনচার্জ হুমায়ন কবির বলেন, প্রতিদিনই পুলিশের কাছে বিভিন্ন ধরণের অভিযোগ নিয়ে স্থানীয় ব্যক্তিরা থানায় আসেন। করোনাভাইরাস নিয়ে সচেতনতায় তারা পুলিশের উর্ব্ধতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশ মতো এমন কার্যক্রম শুরু করেছেন।