নেতাকর্মীদের সম্পর্ক দৃঢ় রাখতে হবে : লিটন

আপডেট: নভেম্বর ১৯, ২০১৬, ১২:০১ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক



রাজশাহী মহানগর আ’লীগের সভাপতি এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটিতে সদস্য নির্বাচিত হওয়ায় জেলা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে ক্রেস্ট ও উত্তরীয় পরিয়ে সংবর্ধনা দেয়া হয়েছে।
সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে দেশ উন্নত রাষ্ট্রের কাতারে পৌঁছে গেছে। প্রধানমন্ত্রী দেশের উন্নয়নের জন্য সর্ববিষয়ে প্রখরতা ও তীক্ষ্ম বুদ্ধি দিয়ে নেতৃত্ব দিচ্ছেন। তিনি কাউন্সিলের মাধ্যমে দলকে আধুনিক ও যুগোপোযোগি করেছেন। প্রধানমন্ত্রী দেশকে উন্নত করার জন্য বিভিন্ন তথ্য প্রতিনিয়ত নোট বুকে লিপিবদ্ধ করে রাখেন। যাতে দেশের উন্নয়ন কোনভাবে ব্যাহত না হয়। রাজশাহীতে জেলা ও মহানগর আ’লীগের নেতাকর্মীদের সম্পর্ক দৃঢ় রাখতে হবে। গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় জেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে রাজশাহী শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
লিটন বলেন, প্রধানমন্ত্রী আ’লীগের ২০তম কাউন্সিল শান্তি ও শৃঙ্খলভাবে সম্পূর্ণ করেছেন। তিনি যাদেরকে যেভাবে প্রয়োজন সেভাবে দায়িত্ব দিয়েছেন। বিএনপি ক্ষমতায় থেকে শুধু লুটপাট করেছে। তাদের দিয়ে এদেশের উন্নয়ন সম্ভব না। বিএনপি নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করে যে ভুল করেছে তা বুঝতে পারছে। রাজনীতি করার পাশাপাশি প্রযুক্তি বর্হিঃবিশ্ব সম্পর্কে পড়াশুনা করতে হবে। দেশের নারী ভোটের সংখ্যা দিনদিন বাড়ছে। দেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি বেড়েছে। দেশের না খেয়ে থাকছে না। খাদ্য উৎপাদন তুলনামূলক বৃদ্ধির ফলে রপ্তানি করা হচ্ছে। যার ফলে বাংলাদেশ উন্নত রাষ্ট্রের কাতারে যেতে চলেছে বোঝায় যাচ্ছে।
এছাড়া আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য নির্বাচিত হওয়ায় নুরুল ইসলাম ঠান্ডু, উপদেষ্টা প্রফেসর ড. আবদুল খালেক ও প্রফেসর ড. সাইদুর রহমান খানকে জেলা আ’লীগসহ বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ক্রেস্ট ও উত্তরীয় পরিয়ে সংবর্ধনা প্রদান করা হয়।
জেলা আ’লীগের সহসভাপতি সাংসদ আখতার জাহানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, সাবেক প্রতিমন্ত্রী জিনাতুন নেসা তালুকদার, জেলা আ’লীগের সাবেক সভাপতি তাজুল ইসলাম ফারুক, মুক্তিযোদ্ধা  বদিউজ্জামান টুনু বীরপ্রতীক, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ, যুগ্মসম্পাদক প্রভাষক আসাদুজ্জামান আসাদ, সাংসদ এনামুল হক, অ্যাডভোকেট মকবুল হোসেন, মহানগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি মীর ইকবাল, নওশের আলী, শফিকুর রহমান বাদশা, সাংসদ আয়েন উদ্দিন, সাবেক সাংসদ মেরাজ উদ্দিন মোল্লা ও জেলা আ’লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, মহিলা আ’লীগসহ সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ এবং বিভিন্ন উপজেলা চেয়ারম্যানরা অংশগ্রহণ করেন।
একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি : সংগঠনের পক্ষ থেকে নেতৃবৃন্দদের সংবর্ধনা জানান, একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির কেন্দ্রীয় সহসাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান, নগর সম্পাদক মনিরুজ্জামান উজ্জল, জেলা যুগ্মসম্পাদক শাহ আলম বাদশাসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ