পত্নীতলায় মোবাইল ফোন ব্যবসায়ী আমিনুল হত্যার মামলায় দুই আসামির জবানবন্দি

আপডেট: এপ্রিল ২, ২০১৭, ১২:৩৬ পূর্বাহ্ণ

পত্নীতলা প্রতিনিধি


নওগাঁর পতœীতলায় মোবাইল ফোন ব্যবসায়ী আমিনুল ইসলাম (৩২) হত্যার রহস্য উদ্ঘাটন হয়েছে। এ হত্যাকা-ের সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে দুজন আসামিকে গ্রেফতার করে আদালতে প্রেরণ করেছেন পুলিশ। এ হত্যাকা-ের সাথে সংশ্লিষ্ট আছে বলে স্বীকারোক্তি মূলকজবানবন্দী দিয়েছেন আদালতে ওই দুই জন আসামি। তবে প্রধান আসামিরা এখনো পলাতক রয়েছেন।
থানা সূত্রে জানা গেছে, পতœীতলা সার্কেল এএসপি সামিউল আলমের নির্দেশক্রমে ও বিশেষ অভিযানে নজিপুর এলাকা থেকে থানা এসআই রবিউল ইসলাম ও এসআই শহিদুল ইসলামের নেতৃত্বে সঙ্গীয় ফোর্সসহ এ হত্যা সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে দুই আসামিকে আটক করা হয়। আটককৃতরা হলেন পতœীতলা উপজেলা সদর নজিপুর পৌর এলাকার ঈদগাঁ পাড়ার আতাউর রহমানের ছেলে ফারুক হোসেন (২৩) ও জেলার ধামইরহাট উপজেলার রসপুর গ্রামের ও বর্তমান পতœীতলা উপজেলা সদর নজিপুর পৌর এলাকার দক্ষিণ হরিরামপুরের (ভাড়া বাসা) নাসির উদ্দিনের ছেলে সেলিমুজ্জামান ওরফে শাওন (২৬)।
গত ২৩ ফেব্রুয়ারি রাত সাড়ে ১১টার দিকে জেলার পতœীতলা উপজেলা সদর নজিপুর বাসস্ট্যান্ড থেকে ভাড়া বাড়ি হরিরামপুর দক্ষিণ পাড়ায় ফেরার পথিমধ্যে মোবাইল ফোন ব্যবসায়ী আমিনুল ইসলাম খুন হয়েছিলেন। এ ব্যাপারে নিহতের পিতা বাদি হয়ে অজ্ঞাতনামা একটি হত্যা মামলা করেন।
পতœীতলা থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মাজহার ইসলাম জানান, গ্রেফতারকৃত ফারুক হোসেন ও সেলিমুজ্জামান শাওন নামের দুই আসামী এ হত্যাকা-ের সাথে জড়িত আছেন এবং টাকার জন্য এ হত্যাকা- ঘটিয়েছেন বলে আদালতে ২৯ ফেব্রুয়ারি স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দী দিয়েছেন। তবে এ হত্যার প্রধান আসামিরা এখনো পলাতক রয়েছেন ও তাদের গ্রেফতারে পুলিশ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। তিনি আরো জানান, নেশা খোর ও বিকাশ মাধ্যমে টাকা প্রতারণা করেন এমন একটি গ্যাং (দল) এ হত্যাকা-ে জড়িত আছেন। যারা আমিনুল এর আগেও দুই বার এ প্রতারণার ফাঁদে পড়েন ও তৃতীয় পর্যায়ে খুন হন।