পতœীতলায় আমনের ভালো দামে চাষিদের মুখে হাসি

আপডেট: ডিসেম্বর ৪, ২০১৬, ১২:০৪ পূর্বাহ্ণ

পতœীতলা প্রতিনিধি



নওগাঁর বরেন্দ্র অঞ্চলের শস্যভা-ার হিসেবে খ্যাত পতœীতলা উপজেলায় এবার আমন ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। দাম ভালো পাওয়ায় চাষিদের মুখে হাসি দেখা দিয়েছে।
উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, চলতি বছর ২৫ হাজার ৭৫ হেক্টর জমিতে আমন ধান চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হলেও অর্জিত হয়েছে ২৭ হাজার ৭৯০ হেক্টর। এতে অর্জিত লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে গেছে। এখন পর্যন্ত ৯৬ শতাংশ ধান কাটা হয়েছে। উপজেলায় প্রায় ৪৪ হাজার কৃষক পরিবার রয়েছে। আর এ মৌসুমের ধানের জাত গুলো হচ্ছে  সুমন স্বর্ণা, গুটি স্বর্ণা, স্বর্ণা ৫, ব্রি  ধান ৩৪, ৫১, ৬৩ জিংক সমৃদ্ধ, ঊনপঞ্চাশ অন্যতম। এর মধ্যে  উফশি  ২৫ হাজার ৭৫ হেক্টর ও স্থানীয় ১২হাজার ৫০ হেক্টর জমিতে ধান চাষ হয়েছে।
উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন ঘুরে চাষিদের কাছ থেকে জানা গেছে, এলাকায় প্রতিবিঘা (৩৩ শতাংশ) জমিতে ১৮ থেকে ২৭ মণ পর্যন্ত ধানের ফলন হয়েছে। উপজেলা সদর নজিপুর পৌর এলাকার নতুনহাট, গগনপুর বাজার, মধইলহাট, শিবপুরহাট, বামইল মোড়, পদ্মপুকুর মোড়, আমবাটি মোড়, মেসের বাজার, শিহাড়া মোড় বাজার ঘুরে আড়ৎদার ও বিক্রেতাদের জানান, বর্তমানে ধানের মূল্য চড়া থাকায় ধান চাষীরা খুশি। বাজারে স্বর্ণা জাতের প্রতিমণ ধান প্রকারভেদে ৭৫৫ থেকে ৮৭০ টাকা পর্যন্ত বিক্রি হচ্ছে। উপজেলার মাটিন্দর ইউনিয়নের শাশইল গ্রামের চাষি বকুল কবির, রমজান আলী, বামইল গ্রামের চাষী এনামুল হক, নজিপুর ইউনিয়নের রঘুনাথপুর গ্রামের আবু সাঈদ, পদ্মপুকুর গ্রামের মজিবুর রহমান, আমাইড় ইউনিয়নের আমাইর গ্রামের আলমগীর কবির, ঘোষনগর ইউনিয়নের নোধূনী গ্রামের রইচ উদ্দিন, মেজবাউল হক, ইমদাদুল হক, রিফিউজি পাড়ার মানিক, মিলন, শাহিন, উজ্জল, নজিপুর পৌর এলাকার রমজান আলী, মমতাজসহ অনেকেই জানান, ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। বর্তমান ধানের বাজারও ভালো আছে।
এ বিষয়ে পতœীতলা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা ও কৃষিবিদ প্রকাশ চন্দ্র সরকার জানান, উপজেলা জুড়ে এ বছর আমন ধানের বাম্পার ফলন হওয়ায় এবং দাম ভালো পাওয়ায় চাষিদের মুখে হাসি দেখা গেছে। আমাদের আমন ধান চাষের লক্ষ্যমাত্রা যা নির্ধারণ করা হয়েছিল এর চেয়ে ২হাজার ৭শ ২৫ হেক্টর বেশি জমিতে ধান চাষ হয়েছে। এতে এ মৌসুমে আমনের অর্জিত লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে গেছে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ