পদত্যাগপত্র জমা দিলেন মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী

আপডেট: জুন ৩০, ২০২২, ১:৪৭ অপরাহ্ণ

রাজ্যপালের কাছে পদত্যাগ পত্র হস্তান্তর করছেন মহরাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে

সোনার দেশ ডেস্ক :


ভারতের মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে তার পদত্যাগ পত্র রাজ্যপালের কাছে হস্তান্তর করেছেন। বৃহস্পতিবার (৩০ জুন) সকালে ভগৎ সিং কোশিয়ারির কাছে তিনি পদত্যাগ পত্র জমা দেন। এদিকে মুখ্যমন্ত্রী পদত্যাগ করলেও নতুন কোনো ব্যবস্থা না হওয়া পর্যন্ত উদ্ধব ঠাকরেকে দায়িত্ব চালিয়ে নেওয়ার আহŸান জানিয়েছে রাজ্যপাল।

ভারতের বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যম একথা জানিয়েছে।
এর আগে দেশটির সুপ্রিম কোর্ট সংখ্যাগরিষ্ঠতা যাচাইয়ের প্রমাণ দিতে মহারাষ্ট্র বিধানসভায় ভোটাভুটি আয়োজনের নির্দেশ দেন উদ্ধব ঠাকরেকে। সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশের পরপরই বুধবার (২৯ জুন) পদত্যাগের ঘোষণা দেন তিনি।

টাইমস অব ইন্ডিয়া জানায়, রাজ্যপালের কাছে পদত্যাগ পত্র জমা দিয়ে একটি মন্দিরে যান উদ্ধব ঠাকরে। সেখানে তিনি তার দুই ছেলে আদিত্য এবং তেজসের সঙ্গে প্রার্থনায় অংশ নেন। ক্ষমতাসীন শিব সেনার জোট সঙ্গী কংগ্রেস বিধায়করা বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করতে শীঘ্রই মহারাষ্ট্রের বিধানসভা ভবনে বৈঠক বসছেন।

এদিকে মুখ্যমন্ত্রীর পদত্যাগের ঘোষণার পরপরই মহারাষ্ট্রের নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। উদ্ধব ঠাকরের দল সিব সেনার বিধায়কদের বাড়ি এবং অফিসের সামনে প্রচুর সংখ্যক পুলিশ মোতায়েন অবস্থায় দেখা গেছে। এছাড়া শিবসেনার বিদ্রোহী বিধায়ক একান্ত সিন্ধে অন্য বিধায়কদের নিয়ে আজ (বৃহস্পতিবার) মুম্বাইয়ে পৌঁছাবেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।
একান্ত সিদ্ধে শিব সেনার অন্য বিদ্রোহী প্রার্থীদের নিয়ে গোয়ার পানাজির কাছে ডোনা পলা এলাকার একটি পাঁচতারা হোটেলে অবস্থান করছেন।
শিবসেনার বিদ্রোহী বিধায়ক ও একান্ত সিদ্ধের দাবি শিবসেনার স্বাভাবিক জোট সঙ্গী ছিল বিজেপি। দু’টি দলের রাজনৈতিক চিন্তাভাবনাও হিন্দুত্বকে কেন্দ্র করে। এছাড়া তারা সর্বশেষ নির্বাচনেও লড়েছিল জোট বেঁধে। কিন্তু ক্ষমতা ভাগাভাগি নিয়ে একমত না হওয়ায় মতাদর্শগতভাবে সম্পূর্ণ বিরোধী মেরুতে থাকা কংগ্রেস আর জাতীয়তাবাদী কংগ্রেস পার্টির সঙ্গে জোট বাঁধেন উদ্ধব ঠাকরে। দলকে বিজেপির সঙ্গে ফের জোট বাধার দাবি করছিলেন একান্ত সিদ্ধে।

বিজেপির তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগের প্রধান অমিত মালব্য বলেন, উদ্ধব ঠাকরে হলেন মহারাষ্ট্রের সবচেয়ে ক্ষমতাধর বালসাহেব ঠাকরের ছেলে। বালসাহেব ঠাকরে ক্ষমতায় না থেকেও রাজ্য সরকারকে নিয়ন্ত্রণ করার ক্ষমতা রাখতেন। কিন্তু তার সন্তান উদ্ধব ঠাকরে ক্ষমতায় থাকা সত্বেও নিজের দল নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থ হচ্ছেন।
তথ্যসূত্র: রাইজিংবিডি

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ