পবায় মদ পানে দুইজনের মৃত্যু, একজন অন্ধ আইনি জটিলতা এড়াতে মৃত্যু গোপন

আপডেট: এপ্রিল ১০, ২০১৭, ১২:০৮ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


রাজশাহী পবায় মদ পানে লুৎফর রহমান ও নুরুন্নবী নামের দুইজনের মৃত্যু হয়েছে। অসুস্থ হয়ে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন রাজা মিয়া নামের আরও একজন। চিকিৎসা শেষে গতকাল রোববার বাড়ি ফিরেছেন তিনি। তবে প্রাণে বেঁচে গেলেও তিনি অন্ধ হয়ে গেছেন বলে জানিয়েছেন তার পরিবারের সদস্যরা।
নিহতদের মধ্যে লুৎফর রহমান (৬০) উপজেলার বড়গাছি ইউনিয়নের সবসার গ্রামের মৃত মানিক সরকারের ছেলে। আর নুরুন্নবী (৫০) নওহাটা পৌরসভার পিল্লাপাড়ার মৃত ফজিলুজ্জামানের ছেলে। অসুস্থ রাজা মিয়ার বাড়ি উপজেলার মথুরা গ্রামের।
মঙ্গলবার ভোরের দিকে লুৎফর ও নুরুন্নবীর মৃত্যু হলেও আইনি জটিলতার কারণে পরিবারের পক্ষ থেকে বিষয়টি গোপন রাখা হয়েছিল। কিন্তু রোববার রাজা মিয়া বাড়ি ফেরার পর বিষয়টি জানাজানি হয় বলে জানিয়েছে স্থানীয়রা।
সবসার গ্রামের বাসিন্দারা জানান, মঙ্গলবার বিকেলে লুৎফর রহমান ও নুরুন্নবীকে পারিবারিক গোরস্থানে দাফন করা হয়। তাদের আকস্মিক মৃত্যুতে এলাকাবাসীর মধ্যে রহস্যের সৃষ্টি হয়। এরপর মথুরা গ্রামের রাজা মিয়া চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফেরার পর বিষয়টি জানাজানি হয়। এলাকাবাসী নিশ্চিত হন তারা মদ পানে মারা গেছেন।
রাজা মিয়ার স্ত্রী জাহানারা জানান, লুৎফর, নুরুন্নবী ও তার স্বামী রাজা মিয়া গত সোমবার সন্ধ্যায় রেক্টিফাইড স্পিরিট পান করেন। এরপর তারা অসুস্থ হয়ে পড়লে রাতেই তাদের রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। মঙ্গলবার ভোররাতে লুৎফর ও নুরুন্নবী মারা যান। তার রাজা মিয়া চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফিরলেও তিনি অন্ধ হয়ে গেছে বলে জানান তিনি।
পবা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) পরিমল কুমার চক্রবর্তী বলেন, পবা থানায় এলাকায় অ্যালকোহল পানে কারও মৃত্যুর ঘটনা জানা নেই। এ ব্যাপারে থানায় কেউ অভিযোগও দেই নি। তবে বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে বলে জানান তিনি।