পরিণাম ভুগতে হবে, সুইডেন, ফিনল্যান্ডের নেটো জোটে যোগদানের উদ্যোগে ক্রুদ্ধ রাশিয়া

আপডেট: মে ১৬, ২০২২, ৮:০২ অপরাহ্ণ

ফিনল্যান্ড পার্লামেন্টে প্রধানমন্ত্রী মারিনের বক্তৃতা। ছবি: রয়টার্স।

সোনার দেশ ডেস্ক:


ইউক্রেনের পরে এ বার ফিনল্যান্ডে হামলা চালাতে পারে রুশ সেনা। সোমবার ফিনল্যান্ড সীমান্তে অদূরে রুশ সুখোই যুদ্ধবিমানের মহড়া শুরুর পরে এমনই আশঙ্কা তৈরি হয়েছে।

এরই মধ্যে রুশ উপ বিদেশমন্ত্রী সের্গেই রয়বকভ বলেছেন, ‘‘নেটো জোটে যোগদানের সিদ্ধান্ত নিয়ে মারাত্মক ভুল করেছে রাশিয়া।’’ এরই মধ্যে সোমবার ফিনল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী সান্না মারিন সে দেশের পার্লামেন্টে বক্তৃতায় নেটো জোটে যোগদানের জন্য আবেদনের কথা জানিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার মারিন জানিয়েছিলেন, অবিলম্বে নেটোয় যোগ দিতে আবেদন জানাবেন তাঁরা। জানিয়েছিলেন, সোমবার আনুষ্ঠানিক ভাবে এ বিষয়ে আবেদন জানানো হতে পারে। দিন কয়েক আগে সুইডেনের তরফেও একই ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছিল।

বিশেষত, ফিনল্যান্ডের এই উদ্যোগ রাশিয়ার নিরাপত্তার পক্ষে বড় আশঙ্কা বলে মনে করছে ভ্লাদিমির পুতিনের সরকার। ফিনল্যান্ডের সঙ্গে প্রায় ১২৮৮ কিলোমিটার সীমান্ত রয়েছে রাশিয়ার। অতীতে দু’দেশের একাধিক বার যুদ্ধও হয়েছে।

সম্প্রতি নেটোর যোগদানের ফিনল্যান্ড। নেটোয় যোগ দেওয়া প্রসঙ্গে ফিনল্যান্ডের প্রেসিডেন্ট সাওলি নীনিস্তো ও প্রধানমন্ত্রী সান্না মারিনের যে যৌথ বিবৃতি প্রকাশ করা হয় তার বয়ান অনুযায়ী, ‘‘নেটোর সদস্যপদ ফিনল্যান্ডের নিরাপত্তা আরও জোরদার করবে। পরিবর্তে নেটোর সদস্য হিসেবে গোটা প্রতিরক্ষা অক্ষটির শক্তি বাড়াবে ফিনল্যান্ডও।

প্রসঙ্গত, চলতি বছরের গোড়ায় নেটোতে যোগদানের ইঙ্গিত দিয়েছিলেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি। এর পরেই কিভের বিরুদ্ধে সামরিক তৎপরতা শুরু করে মস্কো।

ভ্লাদিমির পুতিন সরকারের অভিযোগ, আমেরিকা এবং নেটো গোষ্ঠীভুক্ত দেশগুলি রাশিয়াকে ভৌগোলিক ভাবে ঘিরে ফেলার ছক কষছে।

সে কারণেই ইউক্রেন, ফিনল্যান্ড-সহ পড়শি দেশগুলিকে নেটোয় অন্তর্ভুক্তির প্রক্রিয়া শুরু করা হয়েছে।
তথ্যসূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ