পর্দা উঠলো প্রথম রাজশাহী আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের

আপডেট: মার্চ ১৮, ২০১৭, ১২:১০ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক



দেশ-বিদেশের ৭৩টি চলচ্চিত্র নিয়ে রাজশাহীতে শুরু হয়েছে পাঁচ দিনব্যাপি প্রথম রাজশাহী আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব। গতকাল শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৫টায় নগরীর পদ্মাপাড়ের লালন মঞ্চে উৎসবের উদ্বোধন করেন নাট্যব্যক্তিত্ব ও চলচ্চিত্র নির্মাতা নাসির উদ্দীন ইউসুফ। রাজশাহী চলচ্চিত্র সংসদের সভাপতি আহসান কবীর লিটনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন, রাজশাহীস্থ ভারতীয় সহকারী হাইকমিশনার অভিজিৎ চট্টোপাধ্যায়, ভারতের ফেডারেশন অব ফিল্ম সোসাইটির আন্তর্জাতিক সম্পাদক বিপ্লব কুমার ঘোষ, ভারতীয় চলচ্চিত্র নির্মাতা শেখর দাশ, ভারতের বহরমপুর ফিল্ম সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক সমীরণ বিশ্বাস, ঢাকার রেইনবো ফিল্ম সোসাইটির চিফ কোঅর্ডিনেটর মিজানুর রহমান, রাজশাহী চলচ্চিত্র সংসদের সাধারণ সম্পাদক জাবীদ অপু, চলচ্চিত্র উৎসব পরিচালক সুলতানুল ইসলাম প্রমুখ।
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, বাংলাদেশের চলচ্চিত্র গুণ ও মানের দিক থেকে ভারতের দিকে থেকে পিছিয়ে নেই। রাজশাহীতে সুস্থ ধারার চলচ্চিত্র নির্মানের যে জোয়ার এসেছে তা অবশ্যই একটি ভালো দিক। তারা বলেন, ভালো ছবি দেখুন, ভালো ছবিকে ভালোবাসুন। যে ছবির সঙ্গে মাঠির সম্পর্ক আছে সেই ছবি বেশি বেশি করে দেখুন। মুক্ত পরিবেশে চলচ্চিত্র প্রদর্শনের সুযোগ রাখতে, মুক্ত পরিবেশের চলচ্চিত্র প্রদর্শন নিরাপদ করা আর বাংলাদেশের মধ্যে চলচ্চিত্র প্রদর্শনের জন্য প্রেক্ষাগৃহ গড়ে তোলার জন্য সরকারের কাছে দাবি জানান অনুষ্ঠানের বক্তারা।
অতিথিরা বেলুন ফেস্টুন এবং ফানুস উড়িয়ে উৎবের উদ্বোধন করেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের পর আহসান কবীর লিটনের ‘নীরবতার স্বপ্ন’, শাহরিয়ার হাসানের ‘বিবেক’ এবং ডা. শিপ্রা চৌধুরীর ‘পুনর্জন্ম’ স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র তিনটি প্রদর্শন করা হয়।
শনিবার রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ভেন্যুতে উৎসবের উদ্বোধন করবেন, আওয়ামী লীগের সভাপতি ও কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য ও রাজশাহী মহানগর সভাপতি এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। ২১ মার্চ বিকেল ৪টায় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ভেন্যুতে উৎসবের সমাপনী অনুষ্ঠিত হবে। এতে প্রধান অতিথি থাকবেন কথাসাহিত্যিক হাসান আজিজুল হক।
রাজশাহী চলচ্চিত্র সংসদ আয়োজিত এই উৎসব চলবে আগামী ২১ মার্চ পর্যন্ত। নগরীর লালন ও বড়কুঠি মুক্তমঞ্চে প্রতিদিন সন্ধ্যা সাড়ে ৬টা থেকে রাত ৮টা এবং রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শহিদ সুখরঞ্জন সমাদ্দার ছাত্র-শিক্ষক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র মিলনায়তনে প্রতিদিন বিকেল ৪টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত উৎসব চলবে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ