পশ্চিমে ভ্রমণ আর পূর্বে গমন

আপডেট: মার্চ ১২, ২০১৭, ১২:০৭ পূর্বাহ্ণ

১৯৯৪ সালে ম্যাকগিল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক পাশ করার পর আমাকে যে বিশেষ সিদ্ধান্তের দোলাচলে পড়তে হলো তা হ”েছ, আমি তখন কোন পথ ধরে সামনে এগুবো। আমার বয়স তখন মাত্র বাইশ আর কেবল মাত্র ইংরেজি সাহিত্যে স্নাতক পাশ করেছি। আমার বিশ্ববিদ্যালয়ের বছরগুলোতেও আমি এমন কিছু সমস্যার সম্মুখিন হয়েছিলাম। যখন আমি ব্রেবফ এ পড়তাম, তখনো এই ধরনের সমস্যাগুলো আমাকে প্রায়ই ভাবাতো। কিš’ সেই সময় আমি যে ধরনের নম্বর পেয়েছিলাম তাতে যে কোনো বিষয় নিয়ে পড়ার সুযোগ আমার ছিলো।
আমি সে সময় সাহিত্যে পড়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম শুধুমাত্র পড়ার প্রতি আমার গভীর ভালোবাসা থেকেই নয়, বরং এর ফলে আমি আমার উ”চশিক্ষা চালিয়ে যাবার পথ উন্মুক্ত করে রাখতে পারবো বলে। যদিও তখন আমি প্রথমে কী ডিগ্রি নিবো সেটা ঠিক করে ফেলেছিলাম। কিš’ তখনো আমি ভাবিনি শেষ পর্যন্ত কী নিয়ে পড়াশুনা করবো। সত্যি বলতে কী, সেই সময়ে আমি মূলত যে চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হলাম তা হ”েছ, কোন পথ ধরে আমার সত্যিকারভাবে সামনে এগুনো উচিৎ।
সম্ভবত এই চ্যালেঞ্জের কথা মাথায় রেখেই আমি আর আমার সেই ব্রেবফ এর বেশ কিছু পুরনো বন্ধু সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম স্নাতক পাশের পর পরই আমরা এক দীর্ঘ ভ্রমণে বের হবো। ওই সময় পর্যন্ত আমি প”থিবীর প্রায় পঞ্চাশটির মতো দেশ ভ্রমণ করে ফেলেছি। এই ভ্রমণের অধিকাংশই ছিলো বাবার সাথে কিš’ এবার সময় আসলো একেবারে নিজের মতো করে ভ্রমণে বের হবার। আমি খুবই সামান্য কিছু জিনিস আমার ব্যাগে ভরে নিলাম। ব্যাপারটা কিš’ সত্যিই খুবই ভাববার ছিলো যে কত অল্প পরিমাণ জিনিসপত্র ব্যাগে নেয়া যায় কারণ দীর্ঘ পথেতো সেগুলো আমাকেই বহন করতে হবে। সেই সাথে এটাও মাথায় রাখতে হয়েছিলো যে ওই ভ্রমণটা চলবে চার ঋতু ধরে আটলান্টিক পেরিয়ে তিনটি মহাদেশে।
গ্রীষ্মটা আমি কাটিয়েছিলাম ফ”ান্সে, একেবারে আমার নিজের মত করে। প্রভেন্স থেকে নরম্যান্ডি ভ্রমণ করে আমি প্যারিসে থিতু হয়েছিলাম। সেখানে আমি আমার অধিকাংশ দিন কাটিয়েছিলাম মিউজিয়াম আর লাইব্রেরিতে। সবার কাছ থেকে বা সবকিছু থেকে নিজেকে সরিয়ে নিয়ে আমি আমার এক নিজস্ব জগত তৈরি করে নিয়েছিলাম। এর ফলে আমি খুব সহজেই নতুন কারো সাথে বন্ধুত্ব করার যে সম্ভাবনা থাকে সেটা থেকে ধীরে ধীরে দূরে সরে যা”িছলাম। তবে এর ফলে আমি নিজেকে দেবার মত যথেষ্ট সময় পেয়েছিলাম যার ফলে আমি আমার নিজের সম্পর্কে আর নিজের ভবিষ্যৎ সম্পর্কে ভাবার প্রচুর সময়ও পেয়েছিলাম।
আমি প্রায়ই ভাবতাম, আমার বাবা আমার বয়সে কী করেছিলেন। ব্রেবফ এ পরীক্ষায় অসম্ভব সুন্দর ফলাফল, মন্ট্রিয়ল বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন স্কুলে শীর্ষ¯’ান, তারপর হার্ভার্ডে মাস্টার্স। তারপরও আরো পড়াশুনা চালিয়ে যাওয়া, আর লন্ডন স্কুল অব ইকোনমিক্স এবং সরবন এ পড়াশুনা করেও ডিগ্রি না নেওয়া। তারপর বেশকিছু বছর তিনি ব্যাপক ভ্রমণ করে বেড়িয়েছেন…বলা যেতে পারে গোটা প”থিবী চষে বেড়িয়েছেন। আবার কখনো কখনো নানা ধরনের কাজ করেছেন। এই নানামুখি কাজে কখনো তিনি আইনজীবীর কাজ করেছেন, কখনো বা কুইবেকের শান্ত বিপ্লব (কুইবেক্স কোওয়াইট রেভ্যুলেশন) এর পক্ষে বুদ্ধিব”ত্তিক পত্রিকা বের করেছেন। এর মধ্যে তিনি দুই একটা বইও লিখে ফেলেছেন আবার বিশ্ববিদ্যালয়ে সাংবিধানিক আইনও পড়িয়েছেন। এগুলো সবই তিনি করেছিলেন তাঁর মধ্য চল্লিশে প্রত্যক্ষভাবে রাজনৈতিক কর্মকা-ে ব্যস্ত হবার পূর্বেই। আমি ইতোমধ্যে বাবার সেই পথ থেকে অনেকটা সরে এসেছি এবং আমি নিজের সম্বন্ধে এটাও বুঝে গেছি যে, বাবার মত সেই বুদ্ধিব”ত্তিক সর্পিল পথ আমার নয়।
আমার মা সিমোন ফ”াসার নামে ভ্যাংকুভারে গড়ে উঠা একটা নতুন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সমাজবিজ্ঞানে ডিগ্রি নিয়েছিলেন। তারপর বিয়ের জন্য পূর্ব দিকে এসে আমার বাবার সাথে সংসার শুরু করেছিলেন। আমি তখনই ভেবে রেখেছিলাম যে আমি সংসার করবো। তবে আমি এটাও মাথায় রেখেছিলাম, আমি কোনোভাবেই বাবার মত অনেক বেশি বয়সে বা মা’য়ের মত এতো অল্প বয়সে কখনো সংসার শুরু করবো না।
ওই গ্রীষ্মেই এক নীরব শান্ত পাহাড়ি এলাকায় আমি গভীর উপলব্ধিতে অনুভব করেছিলাম আমার জীবনের পরবর্তী ধাপটা কী হবে। আমার সত্যিই মনে হয়েছিলো, আমার একজন স্কুল শিক্ষক হওয়া উচিৎ। আর এটা হলে এই প”থিবীতে আমার চলাটা সত্যিই খুবই ইতিবাচক হবে। আমার এটাও মনে হয়েছিলো, এই চাকরিটা আমার নতুন কিছু শেখার প্রতি যে দুর্নিবার আকাঙ্ক্ষা, অন্যের সাথে মত এবং জ্ঞানের আদান প্রদান করা আর আমার চারপাশের মানুষদের ভালোভাবে বুঝতে পারার যে প্রচেষ্টা তাতে আমাকে সাহায্য করবে। এবং ওই সময়ে আমার জন্য যা গুরুত্বপূর্ণ ছিলো তা হ”েছ, এই পথটা আমার পরিবার ও আমার অতীত থেকে আমার নিজের চলার পথকে আমার মত করে তুলবে।
এই যে হঠাৎই আমার নিজের মত করে আমার পথ খুঁজে পাওয়ার যে উম্মাদনা তা থেকে সেই মুহূর্তে আমার আনন্দ সংবরণ করতে না পেরে উত্তেজিত হয়েই বাড়িতে ফোন করলাম। মা আমার এই পরিকল্পনার কথা শুনেই ফোনের অপর দিক থেকে বলে উঠলেন, “জাস্টিন, তুমি আমাকে এক চমৎকার কথা শুনালে, আমি সত্যিই তোমার এই সিদ্ধান্তে অভিভূত।” তিনি একটু থেমে আবার বলেছিলেন, “তুমি কী জানো, তোমার অ¯ি’-মজ্জায় রয়েছে সেই সুদূর স্কটল্যান্ডের এক স্কুল শিক্ষকের চেতনা প্রবাহ।” আমি বুঝলাম, মা আমাকে তাঁর দাদা স্কটল্যান্ডের ব্যানফ শহরের স্কুল শিক্ষক জেমস জর্জ সিনকেয়ারের কথা স্মরণ করিয়ে দিলেনÑ যিনি ১৯১১ সালে ¯’ানীয় ভূ-স্বামীর সামন্ততান্ত্রিক নীতির প্রতিবাদে নিজ পরিবার নিয়ে ব্রিটিশ কলম্বিয়ায় ¯’ায়ীভাবে পাড়ি জমিয়েছিলেন।
মায়ের সমর্থনে আমার বিষয়টা ভালোই লাগলো, আমার মনে হলো আমার পরিবারের নিকট অতীতের একটি বিষয় আবার ঝালিয়ে নেয়া যাবে। এই পরিকল্পনা মাথায় গেঁথে নিয়ে ঠিক করলাম পরবর্তী শীতে ম্যাকগিলের শিক্ষা অনুষদে কাস শুরু করবো। যাহোক, আমার সামনে বছরব্যাপী যে ভ্রমণের বিষয়টা আছে তাতে আবারো গভীরভাবে মন দেয়ার জন্য তৈরি হলাম।
সেপ্টেম্বরে আমার প্রিয় তিন বন্ধুর সাথে লন্ডনে মিলিত হলাম। তারপর সেই তিন বন্ধু অর্থাৎ ম্যাথিউ ওয়াকার, এলেন স্টিভারম্যান, মার্ক মিলার এবং আমি একসাথে অসম্ভব সুন্দর এক অভিযানে নিজেদের জড়িয়ে ফেললাম। আমরা এক বিচিত্র দলের সাথে যোগ দিলাম। আমাদের এই নতুন দলে ছিলো বেশ কয়েকজন ব্রিটিশ, কিছু অস্ট্রেলীয় ও একজন ফিনল্যান্ডীয়। আমরা শুরু করলাম ¯’লপথে আফি”কা ভ্রমণের। কয়েকদিনের মধ্যেই আমরা খুবই দ্রুত গতিতে ফ”ান্স ও স্পেন পার হয়ে গেলাম। মহাসড়কের রেস্ট হাউসের পেছনেই আমরা আমাদের ক্যাম্প করতাম। আমরা অধৈর্য্য হয়ে পড়েছিলাম, কত তাড়াতাড়ি ইউরোপের মাটি থেকে আমরা বিদায় নিতে পারি। আমরা আমাদের বাড়ির সাথে ফোনে শেষ কথা বলি জিব্রাল্টার থেকে, তারপর ফেরিতে চড়ে মরক্কোর দিকে যাত্রা শুরু করেছিলাম।
মরক্কোর ফেজ ও মারাকেচ হয়ে এটলাস পর্বতমালা ধরে আমরা এগুতে শুরু করেছিলাম। আর পশ্চিম সাহারার যে জায়গায় মরুভূমি আটলান্টিকের সাথে মিশেছে সেই জায়গার পাথর থেকে ঝিনুক তুলে রাখতাম আমাদের সকালের নাস্তার জন্য। তারপর সাহারার এক বিরাণ জায়গা পার হয়ে আমরা মৌরীতানিয়ায় পৌঁছেছিলাম। সেই জায়গার যে স্ম”তি আমার স্ম”তিপটে জ্বলজ্বল করে তা হ”েছ সেই জায়গার সেই বালুর সব ¯’প আর সেই পথ ঠেলে ঠেলে পার হওয়া। সেই সময় আমি বাসি টুনা সালাদ খেয়ে কঠিনভাবে অসু¯’ হয়ে পড়েছিলাম। তারপর খুব মনে পড়ে, একটা ছোট গ্রামে এক জেলের বাড়িতে কত আনন্দে ই”েছমত কোরিয়ার সুস্বাদু খাবারের ব্যব¯’া করেছিলাম এবং কীভাবে কাস্টমস এজেন্টদের কাছে আমাদের বিয়ার এর শেষ সম্বলটুকু লুকিয়ে রাখতে ব্যর্থ হয়েছিলাম।
উত্তর আফি”কা থেকে পশ্চিমে যাওয়াটা বেশ সুমধুর ছিলো। মালি জায়গাটা ছিলো খুব বৈচিত্রময় আর বন্ধুত্বপূর্ণ। তবে আমরা বিভিন্ন ধরনের ঘটনার মুখোমুখি হয়েছিলাম। ম্যাট ছিনতাইকারীদের কবলে পড়েছিলো। বামাকো’তে তার চোখে মরিচের গুড়া ছিটিয়ে তার কাছ থেকে সামান্য কিছু ডলার হাতিয়ে নিয়েছিলো ছিনতাইকারীর দল। অল্পের ওপর দিয়েই সবকিছু গিয়েছিলো। প্রাচীন সভ্যতার পুরাতাত্ত্বিক এক পথ দিয়ে যাবার সময় একটা গ্রামের সবচেয়ে শক্তিশালী মাস্তানের সাথে পাঞ্জা লড়াইয়ের বাজিতে মার্ক তাকে হারিয়ে দিয়েছিলো। তারপর আমরা একটা একেবারে বিরাণ গ্রামের জায়গাই গিয়েছিলাম। সেখানে আমাদের একটা গাছ দেখানো হয়েছিলো এবং আমাদের জানানো হয়েছিলো, কিছুদিন পূর্বেও ওই গাছের নিচে ধর্মীয় রীতি অনুযায়ী ছেলেমেয়েদের বলী দেওয়া হতো।
(চলবে)