পাকশীতে নির্বাচনের আগেই চেয়ারম্যান-মেম্বারের হাতাহাতি

আপডেট: নভেম্বর ২৩, ২০২১, ৯:১৫ অপরাহ্ণ

 

ঈশ্বরদী (পাবনা) প্রতিনিধি:


পাবনার ঈশ্বরদীর পাকশী ইউনিয়নে আসন্ন নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত চেয়ারম্যান সাইফুজ্জামান পিন্টুর সঙ্গে স্থানীয় ইউপি মেম্বার রিয়াজুল ইসলাম জুয়েলের হাতাহাতি ও মারামারির ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে দ্বিতীয় দফায় দুই মেম্বার প্রার্থীর মধ্যেও মারামারি হয়েছে। সোমবার পাকশীর রূপপুর বিবিসি বাজারে এ ঘটনা ঘটে। এ নিয়ে বিবিসি বাজারে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ মিছিল, ৪নং ওয়ার্ডের বর্তমান মেম্বার রিয়াজুল ইসলাম জুয়েলের সঙ্গে একই ওয়ার্ডের মেম্বার প্রার্থী মাহাবুল সরদারের মারামারির ঘটনা ঘটে।

পরে খবর পেয়ে স্থানীয় এমপি নুরুজ্জামান বিশ্বাস ও পুলিশের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি শান্ত হয়। স্থানীয়রা জানান, মেম্বার প্রার্থী মাহাবুল সরদার পাকশীর নবনির্বাচিত ইউপি চেয়ারম্যান সাইফুজ্জামান পিন্টুর ঘনিষ্টজন এবং বর্তমান মেম্বার রিয়াজুল ইসলাম জুয়েল পাকশীর বিদায়ী চেয়ারম্যান এনামুল হক বিশ্বাসের আস্থাভাজন। মুলত: এনাম-পিন্টু বিরোধের জের ধরে সোমবার দুপুর ১টার দিকে পাকশীর রূপপুর বিবিসি বাজারে এ ঘটনা ঘটে। এর প্রতিবাদে বিবিসি বাজার এলাকায় বিক্ষোভ মিছিল বের করে স্থানীয়রা। খবর পেয়ে পুলিশ এলাকায় গেলে পরিবেশ শান্ত হয়। স্থানীয়রা জানান, নির্বাচনী মাঠে চেয়ারম্যান-মেম্বারের হাতাহাতি ও দ্বিতীয় দফায় দুই মেম্বার প্রার্থীর মারামারি হয়, তার রেশ ধরে বিবিসি বাজারে জুয়েলকে পেয়ে তাকে কিল-ঘুষি মেরে আহত করেন মাহাবুল। এর আগে মেম্বার জুয়েলের সঙ্গে চেয়ারম্যান সাইফুজ্জামান পিন্টুর হাতাহাতির ঘটনা ঘটে।

মেম্বার জুয়েল অভিযোগ করে বলেন, আমি বিদায়ী চেয়ারম্যান এনাম বিশ্বাসের লোক বলে আমাকে নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান সাইফুজ্জামান পিন্টু নানাভাবে হুমকি দেয় এবং তার অনুসারী আমার প্রতিদ্বন্দ্বি মেম্বার প্রার্থী মাহাবুল সরদার আমাকে বিবিসি বাজারে মারপিট করে।

চেয়ারম্যান সাইফুজ্জামান পিন্টু বলেন, আমাদের মধ্যে ভুল বোঝাবুঝি হয়েছিল, এমপি মহোদয়ের হস্তক্ষেপে তা নিরসন হয়েছে। ঈশ্বরদী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আসাদুজ্জামান আসাদ জানান, এ ঘটনায় এখনো কোন পক্ষ লিখিত অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ