পাকিস্তানকে গুঁড়িয়ে উইন্ডিজের অসাধারণ জয়

আপডেট: মে ৬, ২০১৭, ১২:৫০ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক



ভাঙা উইকেটে অসমান বাউন্সের সামনে দাঁড়াতেই পারল না পাকিস্তান। দ্বিতীয় ইনিংসে অতিথিদের গুঁড়িয়ে দিয়ে বার্বাডোজ টেস্টে শতরানের জয় পেয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ।
শ্যানন গ্যাব্রিয়েলের ক্যারিয়ার সেরা বোলিংয়ে পাকিস্তানকে ৮১ রানে অলআউট করে ১০৬ রানে দ্বিতীয় টেস্ট জিতেছে জেসন হোল্ডারের দল। এই জয়ে তিন ম্যাচের সিরিজে ১-১ সমতা এনেছে স্বাগতিকরা।
প্রথম ইনিংসে তিন উইকেট নেওয়া লেগ স্পিনার দেবেন্দ্র বিশু বল হাতে নেওয়ার সুযোগই পান নি। ওয়েস্ট ইন্ডিজের দ্বিতীয় ইনিংসে লেগ স্পিনার ইয়াসির শাহ ৯৪ রানে ৭ উইকেট নেওয়ার পর বিশুকেই ভাবা হচ্ছিল মূল হুমকি হিসেবে। কিন্তু তিনি আক্রমণে আসার আগেই ৩৪.৪ ওভারে অলআউট হয়ে গেল পাকিস্তান।
সবচেয়ে ভয়ঙ্কর ছিলেন ক্যারিয়ারে দ্বিতীয়বারের মতো পাঁচ উইকেট নেওয়া গ্যাব্রিয়েল। আগেরবার পেয়েছিলেন ৯৬ রানে, এবার মোটে ১১ রানে। এর আগে ম্যাচে কখনও ৬ উইকেটের বেশি না পাওয়া এই পেসার এবার ৯২ রানে নিয়েছেন ৯ উইকেট। চমৎকার এই পারফরম্যান্সে ম্যাচ সেরার পুরস্কার জেতেন তিনিই। তাকে যোগ্য সহায়তা দিয়ে গেছেন অধিনায়ক হোল্ডার ও আলজারি জোসেফ।
পেসার ত্রয়ীর আক্রমণে দিশেহারা পাকিস্তান ৩৬ রানে ৭ উইকেট হারিয়ে ম্যাচ থেকে ছিটকে যায়। জয়ের জন্য তখনও দরকার ছিল ১৫২ রান, ম্যাচ বাঁচাতে খেলতে হতো প্রায় দুই সেশন। তার কোনোটিরই ধারে কাছে যেতে পারেনি অতিথিরা।
প্রথম আঘাত হানেন গ্যাব্রিয়েল। ফিরিয়ে দেন প্রথম ইনিংসে শতক করা আজহার আলিকে। প্রথম ইনিংসের মতো এবারও শূন্য রানে ফিরেন বাবর আজম।
দলের প্রয়োজনের সময় নিজেদের মেলে ধরতে পারেননি শেষ আন্তর্জাতিক সিরিজে খেলা ইউনুস খান ও মিসবাহ-উল-হক। প্রথম ইনিংসে ১ রানের জন্য শতক না পাওয়া পাকিস্তানের অধিনায়ক এবার রানের খাতাই খুলতে পারেন নি। তার আউটটাও অদ্ভূত। এলবিডব্লিউর জন্য রিভিউ নিয়ে গালির ক্যাচে তার উইকেট পেয়েছে স্বাগতিকরা। আরেক ব্যাটিং নির্ভরতা আসাদ শফিকও ফিরেন শূন্য রানে।
৪২ রানের জুটিতে খানিক প্রতিরোধ গড়েন সরফরাজ আহমেদ ও মোহাম্মদ আমির। চারটি চারে ২০ রান করে বাজে এক শটে আমিরের বিদায়ে ভাঙে অষ্টম উইকেট জুটি।
ইয়াসিরকে আউট করে নিজের পঞ্চম উইকেট নেন গ্যাব্রিয়েল। সরফরাজ বাধা উপড়ে দলকে দারুণ জয় এনে দেন অধিনায়ক হোল্ডার। এর আগে ব্রিজটাউনের কেনসিংটন ওভালে ৯ উইকেটে ২৬৪ রান নিয়ে খেলা শুরু করে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। চার রান যোগ করেই নিজেদের শেষ উইকেট হারায় দলটি। বিশুকে আজহারের ক্যাচে পরিণত করে ইনিংসে নিজের সপ্তম উইকেট নেন ইয়াসির। অনেক বড় স্কোরের সম্ভাবনা জাগিয়েও শেষ পর্যন্ত ১৮৮ রানের লক্ষ্য দেয় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। স্বাগতিকদের তিন পেসার শেষটায় সেই রানকেই যথেষ্ট বলে প্রমাণ করলেন। আগামী বুধবার শুরু হবে তৃতীয় ও শেষ টেস্ট। সেই ম্যাচ দিয়েই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায় জানাবেন মিসবাহ-ইউনুস।
সংক্ষিপ্ত স্কোর
ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১ম ইনিংস: ৩১২
পাকিস্তান ১ম ইনিংস: ৩৯৩
ওয়েস্ট ইন্ডিজ: ১০২.৫ ওভারে ২৬৮ (ব্র্যাথওয়েট ৪৩, পাওয়েল ৬, হেটমায়ার ২২, হোপ ৯০, চেইস ২৩, ভিশাল ৩২, ডাওরিচ ২, হোল্ডার ১, বিশু ২০*, জোসেফ ৭, গ্যাব্রিয়েল ০*; আমির ১/৪৪, আব্বাস ২/৫৭, ইয়াসির ৭/৯৪, শাদাব ০/৫৫)
পাকিস্তান ২য় ইনিংস: ৩৪.৪ ওভারে ৮১ (আজহার ১০, শেহজাদ ১৪, বাবর ০, ইউনুস ৫, মিসবাহ ০, শফিক ০, সরফরাজ ২৩, শাদাব ১, আমির ২০, ইয়াসির ০, আব্বাস ০*; গ্যাব্রিয়েল ৫/১১, জোসেফ ২/৪২, হোল্ডার ৩/২৩)।