পাকিস্তানে হিজড়ার জন্য প্রথম পাসপোর্ট

আপডেট: জুন ৩০, ২০১৭, ১২:৩০ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


এক হিজড়া কর্মীর জন্য পাসপোর্ট ইস্যু করে প্রথম তৃতীয় লিঙ্গের সম্প্রদায়ের মানুষের জন্য এমন পদক্ষেপ নিল পাকিস্তান সরকার।
বিবিসি জানায়, পাকিস্তানের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় পেশাওয়ার নগরীর হিজড়া কর্মী ফারজানা রিয়াজ সরকারের এ পদক্ষেপকে রক্ষণশীল পাকিস্তান সমাজে কোণঠাসা হয়ে থাকা হিজড়াদের জন্য একধাপ অগ্রগামী পদক্ষেপ বলে বর্ণনা করেছেন।
তার পাসপোর্ট পাওয়ার এ সাফল্য বিশ্বে তার সম্প্রদায়ের মানুষদের পক্ষ থেকে প্রচার চালানোর জন্য সহায়ক হবে বলেই মনে করছেন তিনি।
তার পাসপোর্টটি কোনও নারী বা পুরুষ হিসাবে উল্লেখ করে নয় বরং ‘এক্স’ লিঙ্গ উল্লেখ করেই ইস্যু করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন রিয়াজ।
হিজড়া অধিকার সংগঠন ট্রান্সঅ্যাকশনের সহপ্রতিষ্ঠাতা এবং প্রেসিডেন্ট ফারজানা রিয়াজ (৩০) বলেন, “এর আগে আমকে পুরুষ হিসাবে উল্লেখ করে পাসপোর্ট ইস্যু করা হয়েছিল। কিন্তু এবার আমি কর্তৃপক্ষকে বলেছি যে, আমাকে তৃতীয় লিঙ্গ হিসাবে উল্লেখ না করা হলে আমি পাসপোর্ট নেব না।”
“এখন আমার জন্য বিদেশে ভ্রমণ করা অনেক সহজ হবে। কারণ, এর আগে আমার চেহারা আর পাসপোর্টে উল্লেখ করা লিঙ্গপরিচয়ের কারণে আমাকে বিদেশের বিমানবন্দরগুলোতে ঝামেলা পোহাতে হয়েছিল।”
পাকিস্তানে হিজড়ার সংখ্যা কত সে ব্যাপারে কোনও তথ্য নেই। তবে ট্রান্সঅ্যাকশনের হিসাবমতে, এ সংখ্যা অন্তত ৫ লাখ।
অন্য অনেক দেশের চাইতে পাকিস্তানে তুলনামূলকভাবে হিজড়াদের অধিকার রক্ষার পরিবেশ থাকলেও বাস্তবে তার সেখানে কোণঠাসা হয়ে আছে এবং স্বাস্থ্য, শিক্ষা ও চাকরির ক্ষেত্রে বৈষম্যের শিকার হচ্ছে এমনকি সহিংসতারও শিকার হচ্ছে।
পাকিস্তানের সুপ্রিম কোর্ট সম্প্রতি কয়েকবছরে হিজড়াদের মৌলিক অধিকারকে স্বীকৃতি দেয়ার পদক্ষেপ নিয়েছে। ২০০৯ সালে আদালত হিজড়াদেরকে তৃতীয় লিঙ্গ হিসাবে স্বীকৃতি দিয়েছে।
তথ্যসূত্র: বিডিনিউজ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ