পাকিস্তান দূতাবাসে গিয়ে হেনস্থা ইমরান তাহিরের

আপডেট: সেপ্টেম্বর ৭, ২০১৭, ১২:৫৫ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


দক্ষিণ আফ্রিকার লেগ স্পিনার ইমরান তাহিরকে সোমবার বার্মিংহামের পাকিস্তান দূতাবাসে ঘন্টার পর ঘন্টা ধরে নাকাল হতে হয়েছে। টুইটারে তিনি ক্ষোভ উগরে দেওয়ার পর পাকিস্তান সরকার বিষয়টি নিয়ে তদন্তের আশ্বাস দিয়েছে।
বিশ্ব একাদশের যে দলটি পাকিস্তানের মাটিতে আগামী সপ্তাহে তিনটি টিটোয়েন্টি ম্যাচ খেলবে, তার জন্য ১৪ সদস্যের স্কোয়াডে ইমরান তাহিরও আছেন। আর সে জন্যই তিনি সোমবার পাকিস্তানের ভিসা নিতে গিয়েছিলেন। কিন্তু বার্মিংহামের পাকিস্তান কনস্যুলেটে যাওয়ার পর তার যে অভিজ্ঞতা হয়েছে – তা এক কথায় ভয়াবহ।
ইমরান তাহির টুইটারে লিখেছেন, “আজ ভিসা নিতে গিয়ে কনস্যুলেটে খুবই দুর্ভাগ্যজনক পরিস্থিতির শিকার হতে হল। পরিবারের সদস্যদের নিয়ে প্রথমে টানা পাঁচ ঘন্টা ধরে যন্ত্রণাদায়ক অপেক্ষার মধ্যে দিয়ে বসে থাকতে হল।”
“তারপর দূতাবাসের কর্মীরা এসে আমাকে বের করে দিলেন। বললেন, অফিসের কাজের সময় না কি শেষ হয়ে গেছে – তারা কনস্যুলেট বন্ধ করে দিচ্ছেন।”
শেষে যুক্তরাজ্যে পাকিস্তানি হাই কমিশনার ইবনে আব্বাসের হস্তক্ষেপে ইমরান তাহির ও তার পরিবারের লোকজনদের পাকিস্তানের ভিসা মেলে।
কিন্তু ‘একজন পাকিস্তানি বংশোদ্ভূত দক্ষিণ আফ্রিকান ক্রিকেটার – যিনি বিশ্ব একাদশের হয়ে খেলতে রাজি হয়েছেন – ভিসার জন্য তার সঙ্গে যেমন শোচনীয় ব্যবহার করা হল’ – তাতে যে তাহির ব্যথিত টুইটারেই তা তিনি স্পষ্ট করে দিয়েছেন।
পাকিস্তানের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আহসান ইকবাল অবশ্য ইমরান তাহিরের টুইটার পোস্টের জবাবে লিখেছেন, এই ঘটনার কথা জেনে তিনি অত্যন্ত দুঃখিত।
বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হবে এবং দোষী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও মি ইকবাল টুইটারে কথা দিয়েছেন।
২০০৯ সালে লাহোরে শ্রীলঙ্কার ক্রিকেটারদের ওপর জঙ্গী হামলার পর থেকে পাকিস্তানের মাটিতে গত আট বছর ধরে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কার্যত বন্ধ আছে।
কিন্তু সেপ্টেম্বরের ১২, ১৩ ও ১৫ তারিখে একটি বিশ্ব একাদশ দল লাহোরের গদ্দাফি স্টেডিয়ামে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে তিনটি টিটোয়েন্টি আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলতে যাচ্ছে।
এই বিশ্ব একাদশের স্কোয়াডে মোট সাতটি টেস্ট-খেলিয়ে দেশের চোদ্দজন ক্রিকেটার জায়গা পেয়েছেন, যার মধ্যে একজন দক্ষিণ আফ্রিকার লেগ স্পিনার ইমরান তাহির।
কিন্তু সেই তাহিরকেই যেভাবে পাকিস্তানের ভিসা নিতে গিয়ে নাজেহাল হতে হল, তা অবশ্যই পাকিস্তান সরকার ও সে দেশের ক্রিকেট বোর্ডকে বিব্রতকর অবস্থায় ফেলবে।
তথ্যসূত্র: বিবিসি বাংলা

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ