পাঞ্জাবে বিয়ের আসরে গুলিতে গর্ভবতী নিহত

আপডেট: December 6, 2016, 12:14 am

সোনার দেশ ডেস্ক



ভারতের পাঞ্জাব রাজ্যে একটি বিয়ের আসরে উদযাপনী গুলিবর্ষণের সময় ২৫ বছর বয়সী এক নারী নিহত হয়েছেন বলে জানিয়েছে পুলিশ।
শনিবার সন্ধ্যায় পাঞ্জাবের বাথিন্দার এ ঘটনায় নিহত কুলবিন্দার কাউর দুই মাসের গর্ভবতী ছিলেন বলে জানিয়েছে এনডিটিভি। বিয়ের আসরের মঞ্চে নাচার সময় তার পেটে গুলি লাগে, ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।
কুলবিন্দারের স্বামী হারজিন্দার সিং অভিযোগ করেছেন, বরের বন্ধু বিল্লার প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় তিনি কুলবিন্দারকে গুলি করেন। এ সময় বিল্লা ‘মাতাল’ ছিলেন বলে জানা গেছে।
হারজিন্দার বলেন, “মঞ্চ থেকে নেমে তাদের সঙ্গে যোগ দেওয়ার জন্য বলছিল তারা, কিন্তু সে (কুলবিন্দার) তা প্রত্যাখ্যান করে, তাই তারা তাকে গুলি করে।”
নিহত নারী চারজনের একটি নাচের দলের সদস্য ছিলেন। বাথিন্দা থেকে মাউর মান্দি টাউনের ওই বিয়ের আসরে নাচ পরিবেশনের জন্য গিয়েছিলেন তারা।
ঘটনাটির এক ভিডিওতে দেখা যায়, খুব কাছ থেকে কুলবিন্দারকে গুলি করা হচ্ছে এবং তিনি মঞ্চের ওপর পড়ে গেছেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া এ ভিডিওটি ব্যাপকভাবে শেয়ার করা হয়েছে।
তবে পুলিশ জানিয়েছে, ফাঁকা গুলি ছুড়ে উৎসব উদযাপনের সময় একটি গুলি দিকভ্রষ্ট হয়ে কুলবিন্দারের পেটে বিদ্ধ হয়, তাতেই তার মৃত্যু হয়। “ময়নাতদন্তের পর বিস্তারিত সবকিছু পরিষ্কার হবে,” বলেন পুলিশ কর্মকর্তা দলজিৎ সিং।
প্রত্যক্ষদর্শীরাও পুলিশের বক্তব্য সমর্থন করেছেন। তারা জানান, মঞ্চে নর্তকীরা নাচার সময় উদযাপনী গুলিবর্ষণ শুরু হয়, বিল্লা একটি গুলি করলেও গুলিটি তার দোনলা বন্দুকের ভিতরেই আটকে থাকে, এতে বিল্লা বন্দুকের লক খোলার চেষ্টা করলে গুলি হঠাৎ বের হয়ে কুলবিন্দারের গায়ে লাগে। গুলিবিদ্ধ কুলবিন্দার মঞ্চে পড়ে গেলে গান থেমে যায়। কুলবিন্দারকে স্থানীয় সিভিল হাসপাতালে নেওয়া হয়, সেখানে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
ঘটনার পরপরই বিল্লা পালিয়ে যান। তাকে ধরতে অভিযান শুরু করেছে পুলিশ। তার বিরুদ্ধে একটি খুনের মামলা দায়ের করা হয়েছে।- বিডিনিউজ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ