পাতানো ম্যাচ খেলে ফাইনালে পাকিস্তান?

আপডেট: জুন ১৭, ২০১৭, ১২:৪৯ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


বাংলাদেশ সেমিফাইনাল থেকে ছিটকে পড়ায় এখন সবার দৃষ্টি পাকিস্তানের দিকে। চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে একের পর এক বিস্ময় দেখিয়ে ফাইনালে চলে গেছে পাকিস্তান। আগামীকাল রোববার ভারতের বিপক্ষে প্রথমবারের মতো চ্যাম্পিয়নস ট্রফি জয়ের স্বপ্ন নিয়ে নামবে তারা। তবে এমন গৌরবময় মুহূর্তেও কালিমা লেগে গেল পাকিস্তানের গায়ে। সাবেক উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান আমির সোহেলের দাবি, পাতানো ম্যাচের সুবিধা নিয়েই এত দূর এসেছে পাকিস্তান!
চ্যাম্পিয়নস ট্রফির তলানির দল হিসেবে এসেছিল পাকিস্তান। র‌্যাঙ্কিংয়ের অষ্টম দলটিই দক্ষিণ আফ্রিকা, শ্রীলঙ্কা ও ফেবারিট ইংল্যান্ডকে হারিয়ে চলে গেছে ফাইনালে। সেমিফাইনালে ইংল্যান্ডকে তো রীতিমতো হেসেখেলে হারিয়েছে তারা। আর গ্রুপপর্বে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রায় হেরে যাওয়া ম্যাচে যেভাবে সরফরাজ আহমেদরা ঘুরে দাঁড়িয়েছেন, সেটাই নজর কেড়েছে সবার।
কিন্তু পাকিস্তানি এক টিভি চ্যানেলের সাফল্য নিয়ে আমির সোহেলের মতামত জানতে চাইলেই বোমা ফুটল। এ জয়ে গৌরবের কিছু নেই জানিয়ে বলেছেন, ‘সরফরাজকে কারও বলা উচিত, তোমরা মহৎ কিছু করেছ ভেব না। বাইরের কেউ তোমাদের এ জয় পাইয়ে দিয়েছে। সরফরাজের এত খুশি হওয়ার কারণ নেই। আমরা সবাই জানি, পর্দার আড়ালে কী হয়! কে আসলে তাদের এ ম্যাচ জিতিয়েছে, সেটা বিস্তারিত বলতে চাই না। যদি কেউ জিজ্ঞেসও করে বলব সমর্থকদের দোয়ায় আর আল্লাহর ইচ্ছায় ম্যাচগুলো জিতেছে। যারা কারসাজি করছে, তাদের নাম নেব না। মাঠের খেলায় না, বাইরের হস্তক্ষেপে এখানে এসেছ। ছেলেদের এখন মাথা ঠিক রাখা উচিত!’
পাকিস্তান ক্রিকেটের সঙ্গে ম্যাচ পাতানোর ঘটনা নিবিড়ভাবে জড়িয়ে। কিন্তু নতুন করে এভাবে প্রকাশ্যে সোহেলের দাবি তোলায় বিস্মিত হয়েছেন সবাই। বিশেষ করে পাতানো ম্যাচ খেলে পাকিস্তানকে জেতানোর অভিযোগ অন্তত আগে কখনো শোনা যায় নি। অনেক দিন পর কোনো আনন্দের উপলক্ষ পাওয়া পাকিস্তানি সমর্থকেরাও কিছুটা থমকে গেছেন এমন অভিযোগে। সোহেল অবশ্য আবার অবস্থান পাল্টেছেন। তিনি জানান, সেমিফাইনালের আগে এমন কথা বলেছিলেন। এখন আর কোনো গুরুত্ব নেই এর।
ইংল্যান্ডের বিপক্ষে এক জয়েই ম্যাচ পাতানোর অভিযোগ তুলে ফেললেন সোহেল। আর তাঁর আগের ইঙ্গিত কোন দলের উদ্দেশ্যে ছিল? বাজে ফিল্ডিং ও ক্যাচ ফসকে ম্যাচ হারা শ্রীলঙ্কা নাকি হঠাৎ করে ব্যাটিং ধসে পড়া দক্ষিণ আফ্রিকা? সোহেলই ভালো বলতে পারবেন! সূত্র: নিউজএইটিন,প্রথম আলো অনলাইন।