পাবনায় ৩ প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীর সাফল্য

আপডেট: নভেম্বর ২৯, ২০২২, ১:৪৬ অপরাহ্ণ


পাবনা প্রতিনিধি :


রাজশাহীর বাঘা উপজেলার জালাল উদ্দিনের ছেলে রবিউল ইসলাম জন্ম থেকেই দৃষ্টি প্রতিবন্ধী। লেখাপড়ার প্রতি তার প্রবল আগ্রহ। ২০১৭ সালে পরিবার থেকে তাকে ভর্তি করা হয় পাবনার মানবকল্যাণ ট্রাস্টে। পঞ্চম শ্রেণি থেকে তিনি এখানে পড়ালেখা করেন। এবারের এসএসসি পরীক্ষায় শ্রুতি লেখকের সহায়তায় তিনি জিপিএ ৩.৬৭ পয়েন্ট অর্জন করেছেন।

তার মতো রাজশাহীর পুঠিয়া উপজেলার সাজ্জাদ হোসেনের ছেলে আব্দুর রব আকন্দ ৩.৬৭ পয়েন্ট এবং পাবনার সাঁথিয়ার মাহমুদপুর গ্রামের হয়রত আলীর ছেলে অন্তর হোসেন জিপিএ ২.৫০ পয়েন্ট পেয়ে উত্তীর্ণ হয়েছেন। তারা দু’জন জন্ম থেকেই শারীরিক প্রতিবন্ধী।

সকল প্রতিবন্ধকতাকে পেছনে ফেলে এবার দৃষ্টি ও শারীরিক প্রতিবন্ধী এই তিন শিক্ষার্থী এসএসসি পরীক্ষায় সাফল্য অর্জন করেছেন। পাবনার মানব কল্যাণ ট্রাষ্টের সার্বিক সহযোগিতায় এসএসসি পরীক্ষা দিয়েছিলেন তারা।

মানব কল্যাণ ট্রাস্ট সুত্রে জানা গেছে, দৃষ্টি প্রতিবন্ধী রবিউল ইসলাম দোগাছী স্কুল এন্ড কলেজ থেকে এবং শারীরিক প্রতিবন্ধী আব্দুর রব আকন্দ শহীদ ও অন্তর হোসেন শহীদ এম মনসুর আলী কলেজ থেকে পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিলেন।

দৃষ্টি প্রতিবন্ধী রবিউল ইসলাম জানান, এক সময় পরিবারের অভাবে লেখাপড়া ছেড়েই দিয়েছিলাম। এরপর এই প্রতিষ্ঠানে এসে বিনা খরচে পড়াশুনা করছি। এবার এসএসসি পরীক্ষা দিয়ে পাশ করেছি। খুবই ভালো লাগছে।

তিনি বলেন, শিক্ষাবোর্ড থেকে আমাদের জন্য ব্রেইল পদ্ধতির কোন বই সরবরাহ করা হয়নি। ব্রেইল পদ্ধতির বই সরবরাহের দাবি জানাচ্ছি।
রবিউল ইসলামে বাবা জালাল উদ্দিন বলেন, জন্ম থেকে আমার সন্তান দৃষ্টি প্রতিবন্ধী হলেও পড়াশুনার প্রতি প্রবল আগ্রহ ছিলো। অভাব অনটন ও নানা প্রতিকুলতায় এক সময় তাদের শিক্ষা জীবন অনিশ্চিত হয়ে পড়ে।

আমরা আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছিলাম। এ সময় মানব কল্যাণ ট্রাষ্ট্রের চেয়ারম্যান প্রফেসর আবুল হোসাইন স্যারের সন্ধান পেয়ে এই মানবকল্যাণ ট্রাষ্টে ভর্তি করে দেই। তখন থেকে সব খরচ এই ট্রাষ্টই বহন করে থাকে।
পাবনা মানব কল্যাণ ট্রাষ্টের চেয়ারম্যান প্রফেসর আবুল হোসাইন বলেন, শতাধিক দৃষ্টি প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থী পাবনার মানব কল্যাণ ট্রাষ্টের সহায়তায় ব্রেইল পদ্ধতিতে লেখাপড়া করছেন। এছাড়াও প্রায় ৬০ জনের মত শারীরিক প্রতিবন্ধী এখানে পড়াশুনা চালিয়ে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, এ প্রতিষ্ঠান থেকে এ পর্যন্ত প্রায় একশ’ দৃষ্টি প্রতিবন্ধীকে উচ্চ শিক্ষার সুযোগ করে দেওয়া হয়েছে। তবে এ প্রতিষ্ঠানে মাত্র দু’জন ব্রেইল পদ্ধতির শিক্ষক হওয়ায় ব্যাহত হচ্ছে তাদের শিক্ষা কার্যক্রম। গত বছর ১১ জন পরীক্ষার্থী এসএসসি পরীক্ষা দিলেও এবার ৩ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষা দিয়েছে। সরকারের পৃষ্ঠপোষকতা পেলে ব্যাপকভাবে এখানে প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের পড়াশুনার সুযোগ দেওয়া যাবে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ