পুকুর খননের অপরাধে বাগমারায় তিনজনের কারাদণ্ড

আপডেট: এপ্রিল ১০, ২০১৭, ১২:০৬ পূর্বাহ্ণ

বাগমারা প্রতিনিধি


বাগমারায় ধানী জমিতে অবৈধ পুকুর খনন বন্ধের অভিযান শুরু করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। গতকাল রোববার বিকেলে উপজেলার বাসুপাড়া ও গনিপুর ইউনিয়নের বিভিন্ন স্থানে অভিযান পরিচালনা করেন ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাছরিন আক্তার ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) আলমগীর হোসেন।
অভিযানে পুকুর খননের দায়ে তিন শ্রমিককে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড প্রদান করেছেন। সাজাপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন, উপজেলার দেউলা গ্রামের নওসের আলীর ছেলে ইউসুফ আলীকে (২৬) ১৫ দিন, মাথাভাঙ্গা এলাকার ইউসুফ আলীর ছেলে রাসেলকে (১৯) ১৫ দিন এবং সৈয়দ আলীর ছেলে আমানুল্লাহ ওরফে আমানকে (২৬) সাত দিনের কারাদণ্ড প্রদান করেন। সাজাপ্রাপ্তদের আজ সোমবার আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরণ করা হবে বলে বাগমারা থানার পুলিশ জানিয়েছেন।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গত কয়েকদিন পূর্বে উচ্চআদালত বাগমারায় ফসলি জমিতে পুকুর খননের কার্যক্রম বন্ধের নির্দেশ প্রদান করেন। আদালতের নির্দেশ অমান্য করে বাগমারা উপজেলায় বিভিন্ন এলাকাতে আবারো অবৈধভাবে পুকুর খননের কার্যক্রম শুরু করে। পুকুর খননের বিষয়টি উপজেলা প্রশাসনের নজরে আসলে গতকাল রোববার উপজেলা প্রশাসন ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন। ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাছরিন আক্তার ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) আলমগীর হোসেন তিন শ্রমিককে কারাদণ্ড ও পুকুর খনন বন্ধ করে দেন।
এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাছরিন আক্তার জানান, উচ্চ আদালতের নির্দেশ অমান্য করে পুকুর খননকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া শুরু হয়েছে। বাগমারায় সকল এলাকার অবৈধ পুকুর খননকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা ও পুকুর খনন বন্ধ করা হবে বলে তিনি জানিয়েছেন।
অপরদিকে বাগমারা থানার ওসি নাছিম আহম্মেদ জানান, অবৈধ পুকুর খননের দায়ে তিনজনকে সাজা দিয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। আজ সোমবার সাজাপ্রাপ্তদের আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরণ করা হবে।