অবৈধ পুকুর খনন,চাদাবাজি,সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের প্রতিবাদে মানববন্ধন

আপডেট: ফেব্রুয়ারি ২৫, ২০২৪, ৮:২৯ অপরাহ্ণ


নজরুল ইসলাম বাচ্চু,চারঘাট:অবশেষে নিরুপায় হয়ে অবৈধভাবে পুকুর খনন, চাদাবাজি, সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডসহ মাদকের বিস্তার প্রতিরোধসহ নানাবিধ অনিয়মের প্রতিবাদে রাস্তায় নেমে প্রতিবাদ শুরু করলো চারঘাট উপজেলার সর্বসাধারণ। রোববার (২৫ ফেব্রƒয়ারি) বিকালে চারঘাট-বানেশ^র মহাসড়কের বিক্ষোভ মিছিলের পরে দুপাশে দাঁড়িয়ে মানব প্রচীরের মাধ্যমে সর্বসাধারণের ব্যানারে প্রতিবাদ কর্মসূচির আয়োজন করেন উপজেলার শলুয়া ইউনিয়নবাসী। এতে কয়েকশো সাধারণ মানুষ ছাড়াও অংশ নেয় বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীসহ এলাকাবাসী। প্রতিবাদে অবৈধ পুকুর খনন বন্ধ, চাদাবাজি, সন্ত্রাসী কর্মকান্ডসহ অনিয়ম রোধে কয়েক দফা দাবি জানানো হয়। এসব অবৈধ কর্মকান্ডের সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা না হলে কঠোর কর্মসুচীর ঘোষণা করা হবে বলে হুশিয়ারি উচ্চারণ করা হয়।

পুকুর খনন মানববন্ধন থেকে জানানো হয়, চারঘাট উপজেলা একটি আম প্রধান এলাকা। এছাড়াও তিন ফসলির উর্বর জমি রয়েছে এ উপজেলায়। গত কয়েক বছর ধরে স্থানীয় প্রশাসনকে ম্যানেজ করে গুটি কয়েক প্রভাবশালী সিন্ডিকেটের সদস্যরা দিনের পর দিন মাসের পর মাস বছরের পর বছর জুড়ে সবুজের বুক চিরে একের পর এক অবৈধ ভাবে পুকুর খনন অব্যাহত রাখলেও কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি। এতে বছর জুড়েই চলে অবৈধ পুকুর খননসহ সস্ত্রাসী কর্মকাণ্ড। স্থানীয় গ্রামবাসী একাধিকবার স্থানীয় প্রশাসনকে লিখিত ও মৌখিকক ভাবে এসব অবৈধ কর্মকাণ্ড বন্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়ে আসলেও নেয়া হয়নি কার্যকর ব্যবস্থা। ফলে আমসহ বিভিন্ন বাগান উজাড় করে তিন ফসলি জমিতে অবৈধ ভাবে পুকুর খনন কাজ চলমান রয়েছে। এতে পুকুরের আশে পাশে জলাবদ্ধাতায় ফসল ফলানো দুৃষ্কর হয়ে উঠছে কৃষকদের। এ ছাড়াও চাদাবাজি ও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে বিভিন্ন দোকান থেকে পণ্য নিয়ে দাম না দেয়া, জোর করে পণ্য নিয়ে চলে যাওয়া এখন নিত্যদিনের কাজে পরিণত হয়েছে। বিভন্ন সময় এসবের প্রতিবাদ জানাতে গিয়ে নাজেহাল হচ্ছেন এখানকার ব্যবসায়ীসহ কৃষকরা। কিন্তু রহস্যজনক কারণে পুকুর খননসহ এসব সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডসহ বিভন্ন অনিয়মে নিরব রয়েছেন স্থানীয় প্রশাসন।

প্রতিবাদ কর্মসূচীতে বক্তব্য দেন, সরদহ কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ সাহাবুদ্দিন সরকার, কলেজ শিক্ষক আসাদুজ্জামান, ইউপি সদস্য ফিরোজ খান, হলিদাগাছী বাজার কমিটির সভাপতি শিপন আহম্মেদ প্রমুখ।
বক্তারা বলেন, উপজেলার শলুয়া ইউনিয়নের নাহিদ হাসান, শান্ত ইসলাম, সাব্বির হোসেন, বিদ্যূৎ আলী, ও রাসেলের নেতৃত্বে একটি সংঘবদ্ধ দল শলূয়া ইউনিয়নে অবৈধ কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছেন। তাদের অবৈধ পুকুর খননসহ চাঁদাবাজি ও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে ইউনিয়নবাসী আজ অতিষ্ঠ। তাদের নেতৃত্বে ব্যবসায়ীরাও আজ ভালো ভাবে ব্যবসা পরিচালনা করতে পারছেন না। তারা বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে পণ্য নিয়ে পণ্যের দাম না দিয়ে চলে যাচ্ছেন। প্রতিবাদ করলেও নেমে আসে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের খড়গ। তাই অনেকটা অতিষ্ঠ হয়ে সকল ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখে গ্রামবাসী প্রতিবাদে রাস্তায় নেমেছে। চিহিৃত সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা না হলে আরও কঠোর কর্মসুচী ঘোষণা করা হবে বলে হুশিয়ারি উচ্চারণ করেন বক্তারা।

এলাকাবাসীর মানবন্ধন কর্মর্সূচী পালনের কথা শিকার করে চারঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এএসএম সিদ্দিকুর রহমান বলেন, চাঁদাবাজি বা সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের বিষয়ে কেউ কোনো ধরনের লিখিত বা মৌখিক অভিযোগ করেননি। অভিযোগ পেলে যখাযথ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পুলিশ তৎপর রয়েছে।

চারঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাইদা খানম বলেন, ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। চারঘাটে কোনো অনিয়ম সহ্য করা হবে না।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ