পুঠিয়ায় পল্লীবিদ্যুতের ভুতুড়ে বিলে গ্রাহকদের নাভিশ্বাস

আপডেট: June 29, 2020, 10:19 pm

নিজস্ব প্রতিবেদক:


রাজশাহীর পুঠিয়ায় পল্লীবিদ্যুৎ অফিসের ভুতুড়ে বিলে নাভিশ্বাস উঠেছে গ্রাহকদের। গ্রাহকদের অভিযোগ, এমনিতেই করোনাভাইরাসের প্রভাবের কারণে আর্থিক কষ্টের মধ্যে রয়েছেন সাধারণ মানুষ। তার ওপর গত তিন মাস ধরে বিদ্যুৎ অফিস তাদের ইচ্ছা মতো বিল তৈরি করে বাড়িতে পৌঁছে দিচ্ছেন।

জানা গেছে, নাটোর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ এর পুঠিয়া জোনাল অফিসে গ্রাহক সংখ্যা রয়েছে প্রায় ৬৩ হাজার। করোনাভাইরাসের কারণে মার্চ মাস হতে সারাদেশে লকডাউন ঘোষণা করা হয়ে ছিল। একাধিক গ্রাহকের অভিযোগ, মার্চ, এপ্রিল, মে এই তিন মাসের বিল ধারাবাহিক ভাবে মাত্রাতিরিক্ত টাকার ভুতুড়ে বিল গ্রাহকদের কাছে এসেছে।
কেউ পুঠিয়া জোনাল অফিসে এসে অভিযোগ জানালে কর্তৃপক্ষ বলছে, করোনার কারণে দুই তিনটি বিল কর্মচারীরা ঘরে বসে করেছে। আগামী মাসের বিলের সঙ্গে তা সমন্বয় করে দেয়া হবে।

বারইপাড়া গ্রামের জহুরুল ইসলাম পলান বলেন, সোমবার ভুতুড়ে বিল সংশোধনী করতে পুঠিয়া জোনাল অফিসে যান। পরে বিল সমন্বয়ের বিষয়টি ডিজিএম এর কাছে জানালে তিনি সরাসরি বিল সমন্বয় হবে না বলে সাফ জবাব দেন।
পৌরসভার ৪ নম্বর ওয়ার্ডের উত্তম কুমার মজুমদার বলেন, গত মার্চ মাসে তার বাড়িতে বিল আসে ৬০২ টাকা। পরের মাসে আসে ৭৬২ টাকা ও মে মাসে আসে ১৫০০ টাকা। তিনি আরো বলেন, প্রতিবছর পল্লী বিদ্যুৎ অফিস জুন জুলাই মাসে মাত্রাতিরিক্ত টাকার ভুতুড়ে বিল করে শুনে ছিলাম। কিন্তু এ বছর করোনাভাইরাসের মধ্যে এপ্রিল মাস হতে বিদ্যুৎ বিল বেশি করা শুরু করেছে। উত্তম মজুমদারের মতো উপজেলা জুড়ে হাজার হাজার বিদ্যুৎ গ্রাহকদের অভিযোগ প্রায় একই।

এ ব্যাপারে পুঠিয়া জোনাল অফিসের ম্যানেজার ইয়াকুব আলি শেখ বলেন, লকডাউনের কারণে গ্রাহকরা ঘরে থাকায় বেশি বিদ্যুৎ ব্যবহার করেছেন। তাই বিদ্যুৎ বিল বেশি এসেছে। এখানে আমাদের কিছু করার নেই।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ