পুঠিয়ায় যান্ত্রিক কলের গরুর সাহায্যে তৈরি হচ্ছে সরিষার তেল !

আপডেট: অক্টোবর ৫, ২০২২, ১২:৪৩ পূর্বাহ্ণ

আকাশ কুমার ঘোষ, পুঠিয়া:


প্রচীন বাংলায় তেল উৎপাদনের একমাত্র অবলম্বন ছিল কাঠের ঘানি। এক সময় গ্রাম গঞ্জে ঘানি ভাঙা সরিষার তেলের সুগদ্ধে আশে পাশে মৌ মৌ করতো। এখন আর পাওয়া যায়না খাটি সরিষার তেলের সুগন্ধি। তবে প্রাচীনকাল থেকেই ব্যবহার হয়ে আসছে কাঠের ঘানি। সময় ও আধুনিকতার ছোঁয়াতে এখন এই ঘানির ব্যবহার নেই বল্লেই চলে। কিন্তু রাজশাহীর পুঠিয়া উপজেলার শিবপুর হাটে টিপুর যুব এগ্রো ঘানি ঘরে ঐতিহ্য ও আধুনিকতার সংমিশ্রনে কাঠের ঘানি থেকে উৎপাদন করছেন সরিষার তেল।

গবাদিপশুর কষ্ট ও তেল উৎপাদনে সময় বেশি লাগার কারনে ৭০ হাজার টাকা ব্যায়ে অটোরিকশা দিয়ে তেলের ঘানি টানার পদ্ধতি তৈরি করেছেন টিপু। এতে ব্যবহার করেছেন অটো রিকশার ফ্রেম, চাকা, ব্যাটারি ও মোটর। এসব যন্ত্রাংশ দিয়ে তৈরি তেলের ঘানি টানার দৃশ্য দেখতে প্রতিদিন শত শত মানুষ ভীড় করছেন তাদের ঘানিতে।

ঘানিতে ভারি বোঝা নিয়ে ঘোর পাক খাচ্ছে ব্যাটারি চালিত অটোরিকশা। আর তাতেই চুয়ে চুয়ে পড়ছে সরিষার তেল। এই কাঠের ঘানিতে যান্ত্রিক কলের গরুর সাহায্যে উৎপাদন করছেন সরিষার তেল। ঘানিঘর থেকে মাসে উপার্জন করছেন হাজার হাজার টাকা। প্রতিদিন তার ঘানিঘর থেকে ১২ লিটার সরিষার তেল উৎপাদন হচ্ছে। আর এই তেল স্থানীয়দের চাহিদা মিটিয়ে সরবরাহ হচ্ছে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে। তবে সহযোগীতা ও প্রশিক্ষণ পেলে অনেক বেকাররা এ পেশায় স্বালম্বী হতে পারবেন বলে মন্তব্য করেন সাধারণ জনগন।

আব্দুল মোমিন নামের একজন জানান, আমি এখানে ঘুরতে এসেছি, আমি ট্রাভেল এজেন্সীতে চাকরি করি। ঘুরতে এসে দেখলাম এখানে অভিনব পদ্ধতিতে সরিষার তেল মাড়াই করা হচ্ছে। বর্তমান বাজারে আমরাতো চোখে দেখতে পাইনা কীভাবে খাটি সরিষার তেল তৈরি হচ্ছে। খুবই ভাললেগেছে এটা দেখে মনে হচ্ছে পুরোটাই পিওর তেল এখানে। এবং আমার একটা বাচ্চা মেয়ে আছে তার জন্য আমি তেল ক্রয় করলাম।

যুব এগ্রো ঘানি ঘরের উদ্দ্যোক্তা ইনজামুল হক টিপু জানান, আমি এক সময় রংপুর বেড়াতে সেখানে গিয়ে রাস্তার ধারে এই কাঠের ঘানির প্রজেক্ট দেখি। আর সেটা দেখার পরেই আমি উদবুদ্ধ হই এবং আমার এলাকায় আমিও একটি কাঠের ঘানি স্থাপন করেছি। এখান থেকে আমার এলাকার তেলের চাহিদা মিটিয়ে পাশাপাশি সারা বাংলাদেশে তেলের সরবারহ করছি। আলহামদুলিল্লাহ মোটামুটি লাভবান হচ্ছি। এই প্রজেক্টটি খুব ভালো সাড়া দিয়েছে। এবং খাটি সরিষার তেল পেয়ে সবাই সন্তুষ্ট।

শিবপুর হাট বাজার বণিক সমিতির, সভাপতি, মোঃ মোস্তফা জানান, আমাদের এলাকার টিপু নামের একটি ছেলে ঘানি ভাঙানোর একটি মেশিন বসিয়েছে। এখান থেকে খাটি সরিষার তেল এলাকাবাসি কিনছে। এবং এটা দেখার জন্য বিভিন্ন এলাকা থেকে মানুষরা এসে ভিড় করছে ও তেল ক্রয় করছে। এটা আমাদের এলাকার একটা প্রসংশনীয় ব্যাপার এবং এটা দেখে অনেক মানুষ উদভুদ্দ হচ্ছে অন্য অন্য জাইগায় করার জন্য।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ