পুরুলিয়ার পর উত্তরবঙ্গ, CAA বিরোধী ঝড় তুলতে শিলিগুড়িতে মহামিছিল মমতার

আপডেট: জানুয়ারি ৩, ২০২০, ১:০৮ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


পুরুলিয়ার পর এবার নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের প্রতিবাদে উত্তরবঙ্গবাসীকে একজোট করার লক্ষ্য মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে চারটে নাগাদ দমদম বিমানবন্দর থেকে তিনি উড়ে যাবেন বাগডোগরা। সেখান থেকে পা রাখবেন উত্তরকন্যায়। রাতে থাকতে পারেন সুকনা বনবাংলোয়। সেইমতো প্রস্তুতি সারা সেখানে। শুক্রবার শিলিগুড়ি শহরে জনগণকে সঙ্গে নিয়ে তিনি মহামিছিল করবেন, যেমনটা করেছিলেন পুরুলিয়ায়, গত সোমবার। শহরের যানজট এবং নিরাপত্তার কারণে সভাস্থল পরিবর্তন করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার নতুন সভাস্থল পরিদর্শন করলেন রাজ্যের মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস, ইন্দ্রনীল সেন।
লোকসভা নির্বাচনে উত্তরবঙ্গে দলের ফলাফল অত্যন্ত শোচনীয়। গেরুয়া উত্থানের জেরে দীর্ঘদিন ধরে তৈরি করা শক্ত মাটিতে একটি আসনও জিততে পারেনি তৃণমূল। দায় চেপেছে উত্তরবঙ্গের দায়িত্বে থাকা নেতাদের উপর। তার জেরে শাস্তির মুখেও পড়তে হয়েছে কাউকে কাউকে। আগামী পুরভোট এবং বিধানসভার আগে হারানো জমি পুনরুদ্ধারে তৃণমূলের হাতে এখন বড় অস্ত্র একটাই-সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন (CAA) এবং জাতীয় নাগরিকপঞ্জি (NRC)। তা হাতে নিয়ে বিজেপির বিরুদ্ধে অল-আউট অ্যাটাকে যাবেন তৃণমূল সুপ্রিমো, সেকথা স্পষ্ট করে দিয়েছেন আগেই। জেলায় জেলায় CAA বিরোধী আন্দোলন গড়ে তোলার ডাক দিয়েই থেমে থাকেননি। নিজে গিয়ে জনতাকে সঙ্গে নিয়ে প্রতিবাদ মিছিলে হাঁটছেন। যার শুরু হয়েছে পুরুলিয়া থেকে। গত সোমবার পুরুলিয়া শহরের মানভূম ভিক্টোরিয়া ইনস্টিটিউশনের সামনে থেকে ট্যাক্সি স্ট্যান্ড পর্যন্ত, প্রায় চার কিলোমিটার রাস্তা হেঁটেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সঙ্গে জনতা।
এবার শিলিগুড়ি শহরেও সেই ছবির প্রতিফলন পড়তে চলেছে। শুক্রবার দুপুর ১২টা নাগাদ প্রধাননগরের মৈনাক টুরিস্ট লজের পর্যটন দপ্তর থেকে বাঘাযতীন পার্ক ময়দান পর্যন্ত প্রায় সাড়ে চার কিলোমিটার রাস্তাজুড়ে পদযাত্রা করবেন মুখ্যমন্ত্রী। যদিও পদযাত্রা এবং সভার কর্মসূচি আগে একটু অন্যরকম ছিল। কথা ছিল, শুক্রবার দুপুরে দার্জিলিং মোড়ের ক্ষুদিরাম মূর্তির পাদদেশে থেকে সভা করে মহামিছিলের সূচনা করবেন মমতা। কিন্তু নিরাপত্তা ও শহরের যানজট এড়াতে রাতারাতিই কার্যত পরিবর্তন করা হয়েছে মুখ্যমন্ত্রী সভাস্থল। এলাকা পরিদর্শন করে যানজটের হাল এবং নিরাপত্তা চিত্র দেখার পর সেটি পরিবর্তন করে মৈনাক ট্যুরিস্ট লজের পর্যটন দপ্তরের সামনে থেকে মিছিল শুরু করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। সেখানেই মুখ্যমন্ত্রী সভা করার পর মহামিছিলের সূচনা করবেন। এই সভা এবং মিছিলের মূল দায়িত্বে থাকা মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাসের দাবি, অন্তত ১ থেকে দেড় লক্ষ মানুষের সমাগম হবে এই মহামিছিলে। শুক্রবার বিকেলেই কলকাতায় ফিরবেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।
তথ্যসূত্র: সংবাদ প্রতিদিন