পূর্বের ৬টি সৃজনশীল প্রশ্ন বহালের দাবিতে পরীক্ষার্থীদের মানববন্ধন

আপডেট: অক্টোবর ১০, ২০১৬, ১১:৫১ অপরাহ্ণ

_DSC6475
নিজস্ব প্রতিবেদক
মানিনা, মানবনা, ৭টি সৃজনশীল লিখবনা। অতিরিক্ত ১টি সৃজনশীল বাতিল করে পূর্বের ৬টি বহাল করতে হবে-ব্যানার, ফেস্টুন, প্ল্যাকার্ডে এসব সেøাগান লিখে বিক্ষোভ মিছিল ও পথ সভা করেছেন এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার্থীরা। নগরীর এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার্থীরা গতকাল সোমবার সকালে একটি  অতিরিক্ত সৃজনশীল প্রশ্ন বাতিলের দাবিতে নগরীর সিএন্ডবি মোড় থেকে বিক্ষোভ মিছিলসহকারে রাজশাহী শিক্ষা বোর্ড প্রদক্ষিণ করে লক্ষিপুর মোড়ের গোলচত্বরে এসে পথসভা করেন। এতে নগরীর বিভিন্ন স্কুল ও কলেজের  এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার্থীরা অংশগ্রহণ করেন।
জানা যায়, গতকাল সোমবার সকালে নগরীর মডেল স্কুল এন্ড কলেজ, নিউ গভ. ডিগ্রি কলেজ, সরকারি সিটি কলেজ, শহীদ কামরুজ্জামান কলেজসহ বিভিন্ন স্কুল কলেজের আসন্ন এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার্থীরা মিছিলসহকারে রাজশাহী শিক্ষা বোর্ড প্রদক্ষিণ করে লক্ষিপুর মোড়ের গোল চত্বরে এসে সমাবেশ করেন। এসময় তারা মানিনা  মানিনা ৭টি সৃজনশীল মানিনা, অতিরিক্ত ১টি সৃজনশীল প্রশ্ন বাতিল কর করতে হবে ইত্যাদি শ্লোগান দেন।
উল্লেখ্য, সৃজনশীল পরীক্ষা পদ্ধতি চালুর পর থেকে এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষায় ছাত্র-ছাত্রীদের সৃজনশীল অংশে ৬০ নম্বরের জন্য ৬টি এবং এমসিকিউ অংশে ৪০ নম্বরের জন্য ৪০টি প্রশ্নের উত্তর দিতে হত। সম্প্রতি শিক্ষা মন্ত্রণালয় ২০১৭ সালের এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার জন্য নম্বর বন্টন পূণর্বিন্যাস করে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে। নতুন এ নিয়মানুযায়ী সৃজনশীল অংশে ১০ নম্বর বাড়িয়ে ৭০ আর এমসিকিউ অংশে ১০ নম্বর কমিয়ে ৩০ করা হয়েছে। এ নিয়মে ছাত্র-ছাত্রীদের আগের ৬টির জায়গায় এখন ৭টি সৃজনশীল প্রশ্নের উত্তর দিতে হবে। এমসিকিউ থাকবে ৩০টি। ফাইনাল পরীক্ষার মাত্র কয়েক মাস আগে নতুন এ নিয়ম চালু করায় এবারের এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের ফলাফলে নেতিবাচক প্রভাব পড়বে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। ছাত্র-ছাত্রীদের অভিযোগ ৭টি সৃজনশীল লেখায় তারা অভ্যস্ত নয়। তারা বলেন অতিরিক্ত ১টি সৃজনশীল প্রশ্ন লিখার জন্য ১০মিনিট সময় বাড়ানো হয়েছে। যা আদৌ সম্ভব নয়। সরকার ফাইনাল পরীক্ষার মাত্র কয়েক মাস আগে হঠাৎ করে একটি সৃজনশীল প্রশ্ন বাড়িয়ে দেয়ায় তাদের ফলাফলে নেতিবাচক প্রভাব পড়বে বলে তারা অভিযোগ করেন। আসন্ন এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা আগের নিয়মে অর্থাৎ ৬টি সৃজনশীল ও ৪০টি এমসিকিউ প্রশ্ন পদ্ধতিতে নেয়ার দাবি জানান ছাত্র-ছাত্রীরা।