প্রথমবারের মতো আর্থশট পুরস্কার ঘোষণা

আপডেট: অক্টোবর ১৮, ২০২১, ১:০৩ অপরাহ্ণ

আর্থশট পুরস্কার প্রবর্তন করেছেন প্রিন্স উইলিয়ামআর্থশট পুরস্কার প্রবর্তন করেছেন প্রিন্স উইলিয়াম

সোনার দেশ ডেস্ক:


প্রথমবারের মতো ঘোষণা করা আর্থশট পুরস্কার প্রাপ্তদের মধ্যে রয়েছেন কোরাল উৎপাদক দুই বন্ধু এবং দেশ কোস্টারিকা। পৃথিবী রক্ষার চেষ্টাকারীদের জন্য বার্ষিক এই পুরস্কার প্রবর্তন করেছেন যুক্তরাজ্যের ডিউক অব কেমব্রিজ প্রিন্স উইলিয়াম। রবিবার রাতে লন্ডনে পাঁচ বিজয়ীর নাম ঘোষণা করা হয়। প্রত্যেক বিজয়ী দশ লাখ পাউন্ড পুরস্কার পাবেন। বাংলাদেশি মুদ্রায় এর পরিমাণ ১১ কোটি ৭৬ লাখ টাকারও বেশি।

রবিবার আলেক্সান্দ্রা প্রাসাদে পুরস্কার ঘোষণার অনুষ্ঠানে প্রিন্স উইলিয়াম ছাড়াও যোগ দেন এমা ওয়াটসন, ডেম এমা থম্পসন এবং ডেভিড ওয়েলোয়োর মতো তারকারা। অনুষ্ঠানে যোগ দিতে কেউ লন্ডনে বিমানে পৌঁছাননি। মঞ্চ তৈরিতে ব্যবহৃত হয়নি কোনও প্লাস্টিক। অতিথিদের পোশাক নির্বাচনে পরিবেশকে বিবেচনায় নেওয়ার অনুরোধ করা হয়।

আর্থশট পুরস্কারের অনুপ্রেরণা ১৯৬০’র দশকে আমেরিকার ‘মুনশট’ আকাঙ্ক্ষা। ওই সময় মার্কিন প্রেসিডেন্ট জন এফ কেনেডি এক দশকের মধ্যে চাঁদে একজন মানুষ পাঠানোর প্রতিশ্রুতি দেন।

আর পরবর্তী এক দশক ধরে দেওয়া হবে আর্থশট পুরস্কার। পরিবেশগত সমস্যা সমাধানের চেষ্টায় নিয়োজিত পাঁচটি প্রকল্পকে প্রতিবছর এই পুরস্কার দেওয়া হবে। প্রতিটি প্রজেক্টই দশ লাখ পাউন্ড পুরস্কার পাবেন।

প্রথমবার পুরস্কার দেওয়া হয়েছে পাঁচটি ভিন্ন ক্যাটাগরিতে। ১৫টি প্রজেক্টের একটি শর্টলিস্ট থেকে পুরস্কারপ্রাপ্তদের নির্বাচন করেন বিচারকেরা। বিচারকদের মধ্যে ছিলেন উপস্থাপক স্যার ডেভিড অ্যাটেনবোরো, অভিনেত্রী কেট ব্লানচেট এবং গায়ক সারিকা।

বিজয়ী যারা
প্রটেক্ট অ্যান্ড রিস্টোর ন্যাচার বিভাগে বিজয়ী হয়েছে রিপাবলিক অব কোস্টারিক। দেশটির বেশিরভাগ বনভূমি এক সময়ে ধ্বংস হয়ে যায়। তবে সম্প্রতি দেশটিতে গাছের সংখ্যা দ্বিগুণ বেড়েছে। আর অন্যদের জন্য তাদের অনুকরণীয় মডেল বিবেচনা করা হয়। প্রাকৃতিক বাস্তুতন্ত্র ফেরাতে স্থানীয় বাসিন্দাদের মূল্য পরিশোধের মাধ্যমে কোস্টারিকায় রেইনফরেস্ট বেড়েছে। আর এই প্রকল্পই পেয়েছে আর্থশট পুরস্কার।

ক্লিন আওয়ার এয়ার বিভাগে পুরস্কার পেয়েছে ভারতের তাকাচার। বহনযোগ্য এই মেশিনটি কৃষি বর্জ্যকে সারে পরিণত করতে পারে। তাহলে কৃষকদের আর ক্ষেত পুড়িয়ে বাতাস দূষণ করতে হয় না।

রিভাইব আওয়ার ওসানস বিভাগে পুরস্কার পেয়েছে বাহমাসের দুই বন্ধুর পরিচালিত কোরাল উৎপাদনের একটি প্রজেক্ট। বিশ্বের মৃতপ্রায় কোরাল রিফ পুনরুদ্ধারে এই প্রজেক্টটির নকশা করা হয়েছে। বিশেষ ট্যাংক ব্যবহার করে তারা এমন এক পদ্ধতি তৈরি করেছেন যাতে প্রাকৃতিক পরিবেশের চেয়ে কোরাল ৫০ গুণ দ্রুত বাড়ে।

বর্জ্যমুক্ত পৃথিবী গড়ি বিভাগে আর্থশট পুরস্কার জিতেছে ইতালির মিলান শহরের খাদ্য বর্জ্য ব্যবস্থাপনা। অব্যবহৃত খাবার সংগ্রহ এবং সেগুলো যাদের প্রয়োজন তাদের সরবরাহের ব্যবস্থা করায় এই পুরস্কার পেয়েছে তারা। এই উদ্যোগে নাটকীয়ভাবে বর্জ্য কমে গেছে আর একই সঙ্গে ক্ষুধা নিরসনও সম্ভব হচ্ছে।

ফিক্স আওয়ার ক্লাইমেট বিভাগে আর্থশট পুরস্কার জিতেছে এইএম ইলেক্ট্রোলাইসার। নবায়নযোগ্য জ্বালানি ব্যবহার করে পানির অক্সিজেন ও হাইড্রোজেন ভেঙে হাইড্রোজেন উৎপাদনের চতুর নকশা এইএম ইলেক্ট্রোলাইসার। হাইড্রোজেন একটি পরিবেশ সম্মত গ্যাস। তবে এটি সাধারণত জীবাশ্ম জ্বালানি পুড়িয়ে তৈরি করা হয়।
তথ্যসূত্র: বাংলাট্রিবিউন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ