প্রধানমন্ত্রীর ইদ উপহার তুলতে পিন কোড বিড়ম্বনা

আপডেট: মে ৮, ২০২১, ১০:৪৪ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক:


প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ইদ উপহারের টাকা তুলতে পিন কোর্ড বিড়ম্বনায় পড়তে হচ্ছে অনেকেই। এমন অবস্থায় বিতরণকারী প্রতিষ্ঠানের কাস্টমার কেয়ার নম্বরে যোগাযোগ করেও মিলছে না প্রতিকার বলে অভিযোগ করেছেন- ভুক্তভোগি ও স্থানীয় এজেন্টরা।
কয়েকজন ভুক্তভোগি জানান- প্রধানমন্ত্রীর ইদ উপহার এমন একটি ম্যাসেজ মোবাইলে এসেছে। এনিয়ে বিকাশ, নগদ ও রকেটের স্থানীয় এজেন্টের কাছে টাকা তুলতে গেলে, তারা পিন নম্বর চাচ্ছেন। যারা পিন নম্বর দিতে পারছেন, তারা টাকা উত্তোলন করছেন। আর যারা পিন নম্বর ভুলে গেছেন বা জানা নেই, তারা অর্থ পেতে বিড়ম্বনায় পড়ছেন। স্থানীয় এজেন্টরা সংশ্লিষ্ট কাস্টমার কেয়ারে যোগাযোগ করেও কোনো সুরাহা করতে পারছেন না বলে জানানো হয়।
সালেহা নামের এক নারী জানান- ‘গত ইদের টাকা তুলেছি। এবারো প্রধানমন্ত্রীর ইদ উপহারের ম্যাসেজ এসেছে। কিন্তু টাকা তুলতে পারিনি। টাকা তোলার জন্য দোকানে (এজেন্টের দোকানে) গিয়েছিলাম। তারাও চেষ্টা করে পারলো না।’
এনিয়ে অনেক ভুক্তভোগিই আঞ্চলিক অফিসে যাচ্ছেন। সেখান থেকেই আগের বা নতুন পিন নম্বর সংগ্রহ করে তুলতে পারছেন টাকা। তবে অনেককেই পিন নম্বরের জন্য কোম্পানিগুলোর ঢাকা অফিসেও যোগাযোগ করতে বলা হচ্ছে। এমন এক ভুক্তভোগি নগরীর বুধপাড়া এলাকার ফিরোজ আলী।
ফিরোজ জানান- তার গত ইদে প্রধানমন্ত্রীর ইদ উপহারের টাকার ম্যাসেজ এসেছিল। এর কয়েক মাস পরে মোবাইলের সেই ম্যাসেজটি দেখতে পায়। এনিয়ে টাকা বিতরণকারী প্রতিষ্ঠানের কাস্টমার কেয়ারে যোগাযোগ করি, তারা ঢাকার প্রধান অফিসে যেতে বলে।
তবে একই এলাকার সাইদুল, রবিউলের মোবাইলে ম্যাসেজ এসেছে প্রধানমন্ত্রীর ইদ উপহারের। তারা বিকাশ, নগদ ও রকেটের স্থানীয় এজেন্টের কাছে থেকে এই উপহারের টাকা তুলেছেন। তারা জানান- ‘পিন নম্বর জানা ছিলো তাদের। তাই টাকা তুলতে সমস্যা হয়নি।’ তবে পিন নম্বর ভুলে গেছেন আলমগীর হোসেন। তিনি পিনের জন্য বিকাশ অফিসে ফোন করেছেন। এখনও সুরাহা হয়নি।
সুমন টেলিকমের প্রোপাইটার সুমন জানান- ম্যাসেজ এসেছে টাকা পায়নি, এমন সমস্যা তার কাছে আসেনি। তবে ম্যাসেজ আসার পরে ঠিকঠাক বোঝা যাচ্ছে না, এটি বিকাশ, নগদ কিংবা রকেট থেকে এসেছে। পরে ম্যাসেজ আসা নম্বর থেকে শনাক্ত করতে হচ্ছে। তিনি আরও বলেন- টাকা উত্তোলনে একটি পিন নম্বর লাগছে। সেটি অ্যাকাউন্ট খোলার সময় গ্রাহককে দেয়া হয়েছিল। সেই পিন অনেকেই হারিয়ে ফেলেছেন। এনিয়ে সংশ্লিষ্ট কোম্পানির কাস্টমার নম্বরে যোগাযোগ করলে হাতেগুনা কয়েক জনের পিন পাওয়া যাচ্ছে। তবে বেশির ভাগ পিন পাওয়া সম্ভব হচ্ছে না। এনিয়ে পিন কোর্ড বিড়ম্বনায় অনেকই তুলতে পারছেন না টাকা।
নগরীর কাজলা এলাকার ‘শেফালী স্টেশনারীদর প্রোপাইটার রবিউল ইসলাম জানান- ‘ম্যাসেজ আসার পরে টাকা পায়নি, এমন কেউ আসেনি। তবে পিন ভুলে যাওয়ার কারণে অনেকেই টাকা তুলতে পারছেন না।’
বিকাশ হেল্পলাইন নম্বরে যোগাযোগ করা হলে কাস্টমার সেবাদানকারী প্রতিনিধি নিলয় জানান- ‘এই ক্ষেত্রে পিন কোড ভুলে গেলেও কোনো সমস্যা নেই। তবে পিন কোড কোন গ্রাহক জানতে আমাদের সাথে যোগাযোগ করলে ন্যাশনাল আইডি কার্ডের নম্বর (গ্রাহকের যদি ন্যাশনাল আইডি কার্ড বা পাসপোস্ট নম্বর দিয়ে বিকাশ খোলা থাকলে সেই নম্বর ) ও লেনদেন অঙ্কসহ কিছু তথ্য মিলে গেলে তা প্রদান করা হচ্ছে।’
প্রসঙ্গত, চলমান করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে বিভিন্ন পেশায় কাজ হারানো পরিবারকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ইদ উপহার বিতরণ শুরু হয়েছে বিকাশ, নগদ ও রকেটের মাধ্যমে। তবে পিন বিড়ম্বয়ান তারা টাকা তুলতে পারছেন না। এর আগে রোববার (২ মে) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার সরকারি বাসভবন-গণভবন থেকে এই কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন। এসময় ভোলা, চট্টগ্রাম এবং জয়পুরহাট জেলায় ১৫টি দরিদ্র পরিবারকে আর্থিক সহায়তা বিতরণের মাধ্যমে এই কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন তিনি।