প্রধান শিক্ষককে পিটিয়ে হাত-পা ভেঙে দিয়েছে ইউপি সদস্য

আপডেট: নভেম্বর ২৩, ২০১৬, ১২:০২ পূর্বাহ্ণ

নাটোর অফিস ও বড়াইগ্রাম প্রতিনিধি



নাটোরের বড়াইগ্রাম উপজেলার নগর ইউনিয়নের পাঁচবাড়িয়া উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মিজানুর রহমানকে পিটিয়ে হা-পা ভেঙে দিয়েছে স্থানীয় ইউপি সদস্য ও তার সহযোগীরা। গতকাল মঙ্গলবার সকাল ১০টার দিকে ওই প্রধান শিক্ষক বিদ্যালয়ে আসার পথে পাঁচবাড়িয়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। আহত প্রধান শিক্ষককে প্রথমে বনপাড়া পাটোয়ারী হাসপাতালে পরে ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।
আহত শিক্ষকের বোন জেয়াসমিন জানান, আগামী ০৫ ডিসেম্বর ওই বিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা কমিটির নির্বাচন। স্থানীয় নগর ইউপি সদস্য বাচ্ছুর  পক্ষের লোকজন তারা কোনো প্রকার নির্বাচন ছাড়াই কমিটি গঠন করতে চায়। এতে পাঁচবাড়িয়া উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মিজানুর রহমান রাজী না হওয়ায় ওই পক্ষ ক্ষিপ্ত ছিল। এর জের ধরে মঙ্গলবার সকালে প্রতিপক্ষ সন্ত্রাসীরা পিটিয়ে তার বাম হাত ও ডান পা ভেঙে দেয়। হামলাকারীদের বিচার দাবি করেছেন আহত শিক্ষকের পরিবারের সদস্যরা।
স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান নীলুফার ইয়াসমিন ডালু বলেন, পাঁচবাড়িয়া গ্রামের ইউপি সদস্য বাচ্চু মিয়া দীর্ঘদিন থেকে নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি পদে থাকার জন্য প্রধান শিক্ষককে চাপ দিয়ে আসছিলেন। প্রধান শিক্ষক মিজানুর রহমান আইনের বাইরে গিয়ে কমিটিতে অন্তর্ভুক্তির বিষয়ে অক্ষমতা প্রকাশ করেন। সম্প্রতি বর্তমান কমিটির মেয়াদ শেষের দিকে হওয়ায় নতুন কমিটি গঠনের লক্ষ্য ভোটার তালিকা প্রণয়নের কাজ শুরু হয়। সেই তালিকাতে নিয়ম বর্হিভুতভাবে ১০ম শ্রেণির শিক্ষার্থীর অভিভাবকের নাম অন্তর্ভুক্তির দাবি  জানায়। প্রধান শিক্ষক এতেও অক্ষমতা প্রকাশ করে এ বিষয়ে বর্তমান কমিটির সভাপতি উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে অবহিত করতে বললে ক্ষুব্ধ হন তিনি। এরই জের ধরে মঙ্গলবার সকালে নিজ বাড়ি দাঁড়িকৈড় থেকে পাঁচবাড়িয়া আসার পথে বাচ্চু মেম্বার, তার ভাই মজনু এবং সহযোগী রাশেদুল, নাজিম, মল্লেম, লিটনসহ ১০/১২ জন তাকে পাঁচবাড়িয়া মোড়ে ভটভটি থেকে টেনে নামিয়ে লোহার রড, লাঠি-সোটা দিয়ে পিটিয়ে তার বাম হাত ও ডান পা ভেঙে এবং মাথা ফাটিয়ে রক্তাক্ত জখম করে। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে বনপাড়া পাটোয়ারী হাসপাতালে ভর্তি করে।
ইউপি চেয়ারম্যান আরো বলেন, বাচ্চু মেম্বার একজন চিহ্নিত সন্ত্রাসী ও মাদক ব্যবসায়ী। তার নামে থানায় একাধিক মামলা ও গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি আছে। ইতোপূর্বে আমাকে এবং এই প্রধান শিক্ষককে প্রাণনাশের হুমকি দিয়েছিলেন বাচ্চু মেম্বার। সে বিষয়ে থানায় জিডি করা আছে। এতো কিছুর পরেও পুলিশ রহস্যজনক কারণে কোনো পদক্ষেপ নিচ্ছেন না।
পাটোয়ারী হাসাপাতলের সত্বাধিকারী ডা. সিদ্দিকুর রহমান পাটোয়ারী বলেন, প্রধান শিক্ষক মিজানুর রহমানের বাম হাত ও ডান পা গুরুতর ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এর ফলে তার চিরতরে পঙ্গু হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তাই উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে।
ইউএনও এবং ওই বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটির সভাপতি ইশরাত ফারজানা বলেন, খবর পেয়ে আইনি ব্যবস্থা নিতে ওসিকে বলা হয়েছে।
এ বিষয়ে বড়াইগ্রাম থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শাহ্রিয়ার খান বলেন, প্রধান শিক্ষককে লাঞ্ছিত করার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। এরপর অভিযোগের ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। গ্রেফতারি পরোয়ানার বিষয়ে ওসি বলেন, বাচ্চু মিয়ার বাবার নাম ভুল থাকায় তা সংশোধনের জন্য আদালতে পাঠানো হয়েছে।
নাটোরে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আনোয়ার হোসেন খান জানান, নগর ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য বাচ্চুর নেতৃত্বে এই হামলার ঘটনা ঘটেছে। পুলিশ হামলাকারীদের আটক করতে অভিযান চালাচ্ছে।