ফিরে দেখা রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় || খুন আর আন্দোলনে অস্থিরতার বছর

আপডেট: ডিসেম্বর ২৮, ২০১৬, ২:১২ অপরাহ্ণ

রফিকুল ইসলাম



শিক্ষক-শিক্ষার্থী খুন, শিক্ষকের অস্বাভাবিক মৃত্যু, খুনের বিচার দাবিতে আন্দোলন, নিয়োগ পরীক্ষা নিয়ে তুলকালামসহ বিভিন্ন ঘটনায় বছরজুড়ে আলোচনায় এসেছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়। একটি হত্যাকা-ের তদন্ত শেষ না হতেই ঘটেছে আরেকটি হত্যাকা-। শোকার্ত-ক্ষুব্ধ শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে ২০১৬ সালে বারবার অস্থির হয়ে ওঠে রাবি ক্যাম্পাস। বছরের শেষের দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ে নিয়োগের বিভিন্ন শর্ত শিথিলের দাবিতে আওয়ামী লীগ নেতকর্মীদের অবরোধ কর্মসূচিতে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে ক্যাম্পাস। রাবির ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্নে বঙ্গবন্ধুর মৃত্যুর সাল ভুল হওয়ার ঘটনায় সমালোচনার ঝড় ওঠে। খাদ্যে বিষক্রিয়ায় একসঙ্গে পাঁচ শিক্ষার্থীর অসুস্থ হওয়া, বহিরাগতের হামলায় শিক্ষার্থী আহত হওয়া ও কয়েকজন শিক্ষার্থীর অস্বাভাবিক মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে এ বছর। বিভিন্ন নেতিবাচক কর্মকা-ের জেরে কয়েকজন শিক্ষক-শিক্ষার্থী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিস্কার হয়েছেন। ফেসবুকে বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে বিভ্রান্তিকর তথ্য ছড়ানোর অভিযোগে মামলা হয়েছে শিক্ষকের বিরুদ্ধে। আইসিটি মামলায় গ্রেফতার হয়েছেন প্রগতিশীল ছাত্রজোট নেতা। বিভিন্ন দাবিতে আবাসিক হলে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভের ঘটনা ঘটেছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের নবনির্মিত টিএসসিসি চালু হলেও এর অপূর্ণাঙ্গতার অভিযোগ তুলে পূর্ণাঙ্গ টিএসসিসি নির্মাণের দাবি করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের সংস্কৃতিকর্মীরা। প্রখ্যাত কথাসাহিত্যিক হাসান আজিজুল হকসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের বেশ কয়েকজন শিক্ষককে হত্যার হুমকি দেয়ার ঘটনা ঘটেছে। ২০১৬ সালে এমনি বিভিন্ন নেতিবাচক ঘটনার সাক্ষি হয়েছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়।
শিক্ষক খুনের ধারাবাহিকতায় ড. রেজাউল করিম : ২০১৪ সালে ড. শফিউল ইসলাম লিলনের মতো একই কায়দায় প্রকাশ্য দিবালোকে অতর্কিত হামলায় আবারো রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক হত্যার ঘটনা ঘটে এ বছর। এবার ইংরেজি বিভাগের প্রফেসর এএফএম রেজাউল করিম সিদ্দিকীকে অতর্কিত হামলা করে গলায় কোপ দিয়ে হত্যা করা হয়। গত ২৩ এপ্রিল এ হত্যাকা-ের ঘটনা ঘটে। উদারমনা, অরাজনৈতিক এবং সজ্জন ব্যক্তি হিসেবে পরিচিত এই শিক্ষকের মৃতুতে ফুঁসে ওঠে ক্যাম্পাস। ক্লাশ-পরীক্ষা বর্জন করে চলে টানা আন্দোলন। ইংরেজি বিভাগের পাশাপাশি সব বিভাগের শিক্ষার্থীরা আন্দোলনে অংশগ্রহণ করেন। শিক্ষক সমিতির উদ্যোগে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরাও টানা আন্দোলন কর্মসূচি পালন করেন। অনুষ্ঠিত হয় গণসমাবেশ। এই আন্দোলনকে ঘিরে বেশ কয়েকদিন উত্তাল হয় ক্যাম্পাস। পরে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীসহ সরকারের গুরুত্বপূর্ণ চারজন মন্ত্রী ক্যাম্পাসে এসে সমাবেশে যোগ দিয়ে বিচারের আশ্বাস দিলে আন্দোলন স্তিমিত হয়। এই হত্যাকা-ের মামলায় আদালতে চার্জশিট দাখিল হয়েছে। মামলার কয়েকজন আসামী ক্রসফায়ারে নিহত হয়েছে।
হলের ভিতরে শিক্ষার্থী খুন : রাবির নবাব আব্দুল লতিফ হলে গত ২০ অক্টোবর ঘটে লোমহর্ষক খুনের ঘটনা। হলের ভিতরে গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষার্থী মোতালেব হোসেন লিপুকে হত্যা করে ফেলে রাখে খুনিরা। খুনিদের বিচার দাবিতে আন্দোলনে নামেন লিপুর সহপাঠিসহ বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষার্থীরা। লিপু হত্যামামলায় তার রুমমেট মনিরুল ইসলামকে গ্রেফতার দেখানো হয়। মনিরুলকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য চারদিনের রিমান্ডেও নেয় পুলিশ। রিমা-ের পর পুলিশ জানায়, লিপুর রুমমেটের কাছ থেকে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া গেছে। তবে এরপর থেকে থমকে যায় মামলার তদন্ত। মামলার তদন্তে এখন পর্যন্ত কোনো অগ্রগতি হয় নি।
শিক্ষকের অস্বাভাবিক মৃত্যু, সহকর্র্মী অভিযুক্ত : গত ৯ সেপ্টেম্বর বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক আকতার জাহানকে মৃত অবস্থায় বিশ্ববিদ্যালয়ের জুবেরি ভবনে তার নিজ কক্ষ থেকে উদ্ধার করা হয়। দরজা ভেঙ্গে তার লাশ উদ্ধারের পর কক্ষে সুইসাইড নোট পাওয়া যায়। আকতার জাহানের অস্বাভাবিক মৃত্যুর ঘটনায় শোকার্ত হয়ে ওঠেন বিভাগের শিক্ষক এবং বর্তমান ও সাবেক শিক্ষার্থীরা। ক্ষুদ্ধ শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের অনেকে আকতার জাহানের আত্মহত্যায় প্ররোচণার অভিযোগ তোলেন তার সাবেক স্বামী একই বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক তানভীর আহমদের বিরুদ্ধে। এর জেরে সহকর্মীদের চাপের মুখে বিভাগ কার্যক্রম থেকে সাময়িক অব্যাহতি নেন তানভীর আহমদ। আকতার জাহানের আত্মহত্যায় প্ররোচণাকারীর শাস্তির দাবিতে আন্দোলনে নামেন বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। গত ৩ নভেম্বর আকতার জাহানের আত্মহত্যায় প্ররোচণার মামলায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয় বিভাগের সহকারী অধ্যাপক আতিকুর রহমান রাজাকে। পরে তাকে ওই মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে জেলহাজতে পাঠানো হয়। ফৌজদারি মামলায় গ্রেফতার হওয়ায় আতিকুর রহমানকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাময়িক বহিস্কার করা হয়েছে। বর্তমানে জামিনে মুক্ত আছেন তিনি।
নিয়োগ পরীক্ষা নিয়ে অবরোধে উত্তপ্ত ক্যাম্পাস : বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়োগের ক্ষেত্রে বিভিন্ন শর্ত শিথিল করার দাবিতে গত ২৩ ডিসেম্বর ক্যাম্পাসে অবরোধ কর্মসূচি পালন করেন স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা। তারা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন ফটকে তালা দিয়ে অবস্থান নেন। আওয়ামী লীগের বিপুল সংখ্যক নেতকর্মীরা বিভিন্ন স্থানে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করলে ক্যাম্পাস উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। নেতাকর্মীদের বাধায় ওইদিনের নির্ধারিত নিয়োগ পরীক্ষা বন্ধ হয়ে যায়।
ভর্তি পরীক্ষায় প্রশ্নপত্রে বঙ্গবন্ধুর হত্যার সাল ভুল : এবারের ভর্তি পরীক্ষায় ‘বি’ ইউনিটের (আইন অনুষদ) প্রশ্নেপত্রে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হত্যাকা-ের সাল ভুল পাওয়া যায়। এতে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন শিক্ষক, শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। এমন ভুলে দুঃখ প্রকাশ করে সংশ্লিষ্ট ভর্তি কমিটি। প্রশ্নপত্র তৈরিতে জড়িতদের আইনের আওতায় আনার দাবি জানাায় রাবি ছাত্রলীগ। সমালোচনার মুখে ভর্তি কমিটির চিফ কো-অর্ডিনেটর আনম ওয়াহিদ স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘ইংরেজি ব্যাকরণ অংশের একটি প্রশ্নে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্মম হত্যাকা-ের তারিখ ১৫ আগস্ট ১৯৭৫ এর পরিবর্তে ১৫ আগস্ট ২০১৬ মুদ্রিত হয়েছে। এই অনিচ্ছাকৃত ভুলের জন্য আইন অনুষদ গভীর দুঃখ প্রকাশ করছে।’
হাসান আজিজুল হকসহ শিক্ষকদের হত্যার হুমকি : এ বছর বিশ্ববিদ্যালয়ের বেশ কয়েকজন শিক্ষককে প্রাণ নাশের হুমকি দেয়ার ঘটনা ঘটেছে। মুঠোফোনে হত্যার হুমকি দেয়া হয়েছে প্রখ্যাত কথাসাহিত্যিক হাসান আজিজুল হককে। নামে-বেনামে বিভিন্ন সময় মুঠোফোন অথবা উড়োচিঠির মাধ্যমে এসব হুমকি দেয়া হয়। এতে আতঙ্কগ্রস্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা। নিরাপত্তা চেয়ে জিডি করলেও সেটা জিডি পর্যন্তই সীমাবদ্ধ থাকে বলে অভিযোগ করেছেন শিক্ষকরা। বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টর দফতর সূত্রে জানা গেছে, এ বছর প্রায ২০ জন শিক্ষককে হুমকি দেয়ার ঘটনা ঘটেছে। এর মধ্যে রয়েছেন, কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের প্রশাসক ও বাংলা বিভাগের অধ্যাপক ড. সফিকুন্নবী সামাদী, শিক্ষক সমিতির সাবেক সভাপতি অধ্যাপক আনন্দ কুমার সাহা, ইতিহাস বিভাগের অধ্যাপক চিত্তরঞ্জন মিশ্র, প্রাণিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক বিধান চন্দ্র দাস, আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের সভাপতি আবুল কাশেম প্রমুখ। হুমকিপ্রাপ্ত শিক্ষকদের কাছ থেকে জানা গেছে, হুমকিদাতারা নিজেদেরকে জামায়াতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশ (জেএমবি), পূর্ব বাংলা কমিউনিস্ট পার্টি, চরমপন্থী গ্রুপের নেতা, সর্বহারা পার্টি, লাল বাহিনী, জনযুদ্ধের কমান্ডার মেজর জিয়া, আনসার আল ইসলাম বাংলাদেশসহ বিভিন্ন দলের পরিচয় দিয়ে থাকেন।
হল প্রাধ্যক্ষের পদত্যাগ দাবিতে আন্দোলন : ‘স্বেচ্ছাচারিতার’ অভিযোগ তুলে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের রহমতুন্নেসা হলের প্রাধ্যক্ষ ও আবাসিক শিক্ষকের পদত্যাগ দাবিতে ছাত্রীদের অবস্থান কর্মসূচি পালন করার ঘটনা ঘটেছে। গত ১ সেপ্টেম্বর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন ভবনের সামনে এ কর্মসূচি পালন করা হয়। ছাত্রীদের অভিযোগ, ছাত্রীদের কোনো সমস্যা প্রাধ্যক্ষ বা আবাসিক শিক্ষিকাকে জানালে তারা সেটা না শুনে দুর্ব্যবহার করেন এমনিক হল ছেড়ে যেতে এবং পরিবার নিয়েও কটুক্তি করেন। এছাড়া গণরুমের কার্ড করা নিয়ে ভোগান্তি, দায়িত্বে অবহেলা, সিট থাকা সত্ত্বেও তৃতীয় ও চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থীদের সিট না দেয়াসহ নানা অভিযোগ করেন ছাত্রীরা। এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন পদক্ষেপ নেয়ার আশ্বাস দিলেও কোনো সুরাহা না হওয়ায় পরে আবারো অবস্থান কর্মসূচি পালন করেন ছাত্রীরা।
তিন ছাত্রলীগ নেতার ছাত্রত্ব বাতিল : রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান প্রকৌশলীকে মারধর করায় বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের তিন নেতার ছাত্রত্ব বাতিল করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। গত ৩০ মার্চ সিন্ডিকেটের সভায় এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। ওই তিন নেতা হলেন রাবি ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও ফাইন্যান্স বিভাগের শিক্ষার্থী এসএম তৌহিদ আল হোসেন তুহিন, সহসভাপতি ও ফিশারিজ বিভাগের শিক্ষার্থী তন্ময়ানন্দ অভি এবং শহীদ হবিবুর রহমান হলের সভাপতি ও ফিশারিজ বিভাগের শিক্ষার্থী মামুন-অর-রশীদ।
খাদ্যে বিষক্রিয়ায় পাঁচ শিক্ষার্থী অসুস্থ : খাদ্যে বিষক্রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের নাট্যকলা বিভাগের পাঁচ শিক্ষার্থী গুরুতর অসুস্থ হওয়ার ঘটনা ঘটে গত ১৫ মার্চ। বিভাগের চূড়ান্ত পরীক্ষার অংশ হিসেবে নাটকের মহড়ার শেষে শিক্ষার্থীরা রুটি ও মিষ্টি খান। ওইদিন রাতেই প্রায় ১৩-১৪ জন অসুস্থ হয়ে পড়েন। সকালে পুনরায় মহড়া শুরু হলে অসুস্থতার মাত্রা বেড়ে যায়। গুরুতর অসুস্থ্য কয়েকজনকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
আইনমন্ত্রীকে কটাক্ষ করায় শিক্ষক সাময়িক বরখাস্ত : আইনমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে ফেসবুকে কটাক্ষ করায় আইন বিভাগের প্রভাষক শিবলী ইসলামকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয় গত ১ আগস্ট। বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশেষ সিন্ডিকেট সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।
গাছ থেকে পড়ে শিক্ষার্থীর মৃত্যু : নারকেল গাছ থেকে পড়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজকর্ম বিভাগের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী জারজিজ হোসেনের মৃত্যু হয় এ বছর। গত ২৬ এপ্রিল বন্ধুদের সঙ্গে শহীদ হবিবুর রহমান হলের সামনের নারকেল গাছ থেকে ডাব পাড়ার জন্য গাছে ওঠেন জারজিজ। এসময় গাছ থেকে পড়ে গেলে তার দুই পা ভেঙ্গে যায় এবং মাথার পেছনে ক্ষতের সৃষ্টি হয়। পরে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আইসিইউতে আটদিন চিকিৎসাধীন অবস্থায় থাকার পর তার মৃত্যু হয়।
শৃঙ্খলা ভঙ্গ করায় ছাত্রলীগ সভাপতি বহিস্কার : দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি মিজানুর রহমান রানাকে সংগঠন থেকে স্থায়ী বহিস্কার করা হয় গত ১৬ জানুয়ারি। আবাসিক হলে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে জড়িত থাকার অভিযোগে তাকে বহিস্কার করে সহসভাপতি রাশেদুল ইসলাম রাঞ্জুকে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব দেয়া হয়।
বহিরাগতদের হামলায় শিক্ষার্থী আহত, উৎপাতের প্রতিবাদে বিক্ষোভ : ক্রিকেট খেলাকে কেন্দ্র করে গত ২৯ ফেব্রুয়ারি বহিরাগতদের হামলায় আহত হন বিশ্ববিদ্যালয়ের চার শিক্ষার্থী। গত ১২ জুন বিশ্ববিদ্যালয়ের স্টেশন বাজারে বহিরাগতদের হামলায় আহত হন বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই শিক্ষার্থী। গত ২০ জুলাই বহিরাগতদের উৎপাতের প্রতিবাদে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল করে চারুকলা অনুষদের শিক্ষার্থীরা। শিক্ষার্থীরা অভিযোগ করে, স্থানীয় বহিরাগতরা ভাস্কর্য ভেঙ্গে দেয়, বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীদেরকে উত্যক্ত করে। এছাড়া অনুষদের বিভিন্ন স্থানে বসে নেশা করাসহ বিভিন্ন অপকর্মের সাথে জড়িত। শিক্ষার্থীরা অনুষদে চারদিকে সীমানা প্রাচীর নির্মাণ ও ২৪ ঘণ্টা গার্ডের ব্যবস্থা করাসহ বেশ কয়েকটি দাবি জানান।
ভবনের কক্ষ বণ্টন নিয়ে তিন বিভাগের দ্বন্দ্ব, উত্তেজনা : কৃষি অনুষদের নবনির্মিত ভবনের কক্ষ বণ্টন নিয়ে তিনটি বিভাগের মধ্যে দ্বন্দ্বের জেরে উত্তেজনার সৃষ্টি হয় গত ২২ সেপ্টেম্বর। এদিন কক্ষ পুনঃবণ্টনের দাবিতে অবস্থান কর্মসূচি পালন করে ফিশারিজ এবং এগ্রোনমি অ্যান্ড এগ্রিকালচারাল এক্সটেনশন বিভাগের শিক্ষকরা। এসময় অনুষদের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। এর আগে গত ২৮ আগস্ট কক্ষ বরাদ্দ নিয়ে ক্রপ সায়েন্স এন্ড টেকনোলজি এবং ফিশারিজ ও এগ্রোনমি বিভাগের শিক্ষকদের মধ্যে অসন্তোষ ও উত্তেজনা দেখা দেয়।
ট্রেনের ধাক্কায় ছাত্রী নিহত : ফোনে কথা বলার সময় ট্রেনের ধাক্কায় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রী নিহত হয় গত ২৮ আগস্ট। নিহত শান্তনা বসাক (১৯) বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজকর্ম বিভাগের শিক্ষার্থী।
ফাঁস নিয়ে শিক্ষার্থীর আত্মহত্যা : গত ৩০ জানুয়ারি ফলিত গণিত বিভাগের সুব্রত কুমার নিজ কক্ষে গলায় গামছা বেঁধে আত্মহত্যা করেন। আলুপট্টি এলাকার একটি মেস থেকে ঝুলন্ত অবস্থায় তার মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। প্রাথমিকভাবে পুলিশ জানায় পরীক্ষা খারাপ হওয়ায় আত্মহত্যা করেছে সুব্রত।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ