ফিলিস্তিনকে স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে ঘোষণার দাবি

আপডেট: মে ২২, ২০২১, ১০:০০ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক:


স্থায়ীভাবে শান্তি প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে ফিলিস্তিনকে একটি স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে ঘোষণার জন্য মুক্তিকামী সকল আন্তর্জাতিক শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ ভূমিকা পালনের আহ্বান জানিয়েছেন, বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির রাজশাহী মহানগরের নেতারা। শনিবার (২২ মে) সকাল ১০টায় শহরের সাহেব বাজার জিরোপয়েন্টে ফিলিস্তিনে ইসরায়েলি গণহত্যার প্রতিবাদে আয়োজিত এক মানববন্ধন থেকে তারা এই দাবি জানান। ওয়ার্কার্স পার্টির রাজশাহী নগর কমিটি এই মানববন্ধন কর্মসূচির আয়োজন করে।
ঘন্টাব্যাপি চলা এ মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, ইসরাইল-ফিলিস্তিন ‘যুদ্ধবিরতি’ কোন সমাধান নয়। এটি ক্ষণিকের আত্মতুষ্টি আনতে পারে। কিন্তু ইসরাইলের সন্ত্রাসী মনোভাব অপরিবর্তিতই থাকবে। সুতরাং ফিলিস্তিনের সাধারণ মানুষের মাঝে স্থায়ী শান্তি প্রতিষ্ঠায় তাদের স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে ঘোষণার কোন বিকল্প নেই। আমাদের মূল সংগ্রামটি মূলত এই দাবিকে সামনে রেখেই এগিয়ে নেওয়া উচিত।
বক্তারা আরও বলেন, একটি স্বাধীন ফিলিস্তিন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠায় সব থেকে বড় বাধার নাম-আমেরিকা নামক ‘সাম্রাজ্যবাদী’ রাষ্ট্রটি। পশ্চিমাদের নীরবতা ও আরব বিশ্বের বিশ্বাসঘাতকতাই স্বাধীন ফিলিস্তিন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা না হওয়ার নেপথ্যের কারণ। আমরা ওয়ার্কার্স পার্টি সবসময় যেকোন স্বাধীনতার পক্ষে। আমরা মনে করি, বিশ্বে যারাই এ আদর্শ ধারণ করে; সে সমস্ত সকল মক্তিকামী শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে স্বাধীন ফিলিস্তিন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার দাবিকে আরও দৃঢ় করতে হবে।
ইসরাইলের শাস্তি এখন সময়ের দাবি মন্তব্য করে বক্তারা বলেন, গত কয়েক শতক ধরে আমেরিকার আশ্রয়ে-প্রশ্রয়ে ইসরাইল ফিলিস্তেনিদের ওপর যে আচরণ করেছে তা সুস্পষ্ট মানবাধিকার লংঘন। বিশেষ করে ফিলিস্তিনের নারী ও শিশু হত্যার যে যজ্ঞ; তা বর্তমান বিশ্বে মেনে নেওয়ার কোন সুযোগ নেই। অতএব আন্তর্জাতিক ট্রাইবুনালে ইসরাইলের বিচার প্রক্রিয়া শুরু করা এখন সময়ের দাবি। বিশ্বাস করি- তা অচিরেই বাস্তবায়িত হবে।
মানববন্ধনে প্রথম আলোর সিনিয়র সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে নির্যাতন ও গ্রেফতারের ঘটনা নিয়েও কথা বলেন বক্তারা। টিকা সংগ্রহে কালক্ষেপণ বন্ধ করা ও রোজিনা ইসলামের মামলায় জব্দকৃত নথিগুলোতে কী রাষ্ট্রীয় গোপন তথ্য রয়েছে সেটিও জানতে চেয়েছেন ওয়ার্কার্স পার্টির স্থানীয় নেতারা।
মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন ওয়ার্কার্স পার্র্টির কেন্দ্রীয় সদস্য ও মহানগরের সম্পাদকম-লীর সদস্য অ্যাড. এন্তাজুল হক বাবু। সঞ্চালনা করেন, কেন্দ্রীয় সদস্য ও মহানগরের সাধারণ সম্পাদক দেবাশিষ প্রামানিক দেবু। বক্তব্য রাখেন- জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল হক তোতা, মহানগর সম্পাদকম-লীর সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল কালাম আজাদ, আব্দুল মতিন, মনিরুদ্দীন পান্না, মনিরুজ্জামান মনির, নাজমুল করিম অপু, নগর ছাত্রমৈত্রীর সভাপতি ওহিদুর রহমান।
উপস্থিত ছিলেন- মহানগর সম্পাদকম-লীর সদস্য সিরাজুর রহমান খান, মহানগর সদস্য ইসমাইল হোসেন, সাঈদ চৌধুরী, শাহিনুর বেগম, কাশিয়াডাঙ্গা থানার সভাপতি শামীম ইমতিয়াজ, যুবমৈত্রীর নেতা তৌহিদ উদ্দীন বিদ্যুৎ প্রমুখ।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ