ফি দিতে না পারায় স্কুলছাত্রকে পেটানোর অভিযোগ

আপডেট: জুলাই ১৪, ২০১৭, ১২:৪৫ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


পরীক্ষার ফি দিতে না পারায় রাজশাহীর চারঘাটের পশ্চিম ঝিকড়া উচ্চবিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী শাকিব আলীকে পিটিয়ে বের করে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে। বিষয়টি নিয়ে ওই বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মোজাম্মেল হকের নামে থানায় অভিযোগ দিয়েছেন ওই শিক্ষার্থীর বাবা জাহাঙ্গীর হোসেন।
গত বুধবার সন্ধ্যায় চারঘাট মডেল থানায় এ অভিযোগ দেয়া হয়। তবে তার আগেই দুপুরের দিকে থানায় অভিভাবকদের বিরুদ্ধে লাঞ্ছনার অভিযোগ দেন ওই শিক্ষক। দুটি অভিযোগই খতিয়ে দেখছে পুলিশ। শাকিব আলী ওই বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থী।
শাকিব আলীর বাবা জাহাঙ্গীর হোসেনের ভাষ্য, আর্থিক দৈন্যতায় সংসার চালাতে হিমশিম খাচ্ছেন তিনি। ফলে ছেলের প্রথম সাময়িক পরীক্ষার ফি ১৩০ টাকা দিতে পারেননি। গত বুধবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে বিদ্যালয়ে তার ছেলেকে অকথ্য ভাষায় গালাগাল দেন ওই শিক্ষক। একপর্যায়ে মারধর করে বিদ্যালয় থেকে বের করে দেন।
তিনি দাবি করেন, বিকেলে বাড়ি ফিরে তিনি ছেলের কাছে ঘটনা শোনেন। পরে এর প্রতিবাদ জানাতে গেলে শিক্ষক মোজাম্মেল হক ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন।
তবে এ অভিযোগ ভিত্তিহীন দাবি করেছেন শিক্ষক মোজাম্মেল হক। তিনি বলেন, বকেয়া রাখায় ওই ছাত্রের কাছে ফি চেয়েছিলেন। ওই শিক্ষকের কথায় সাঁয় দিয়েছেন বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষক মাসুদ রানা। তিনি বলেন, বরাবরই ওই শিক্ষার্থী বেতন, ফি কিছুই দেয় না। তারপরেও তাকে বিদ্যালয় থেকে বের করে দেয়া হয়নি। ওই শিক্ষার্থী নিয়মিত ক্লাস-পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে। মারধর কিংবা বিদ্যালয় থেকে বের করে দেয়ার অভিযোগ ভিত্তিহীন।
শিক্ষক ও অভিভাকের পাল্টাপাল্টি অভিযোগের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন চারঘাট মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নিবারন চন্দ্র বর্মন। তিনি বলেন, অভিযোগ দুটি খতিয়ে দেখছেন তিনি। তদন্ত শেষে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর প্রতিবেদন দেবেন। নেয়া হবে আইনি ব্যবস্থাও।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ