ফুলের চারা বিক্রি করে কয়েক কোটি টাকা আয়ের স্বপ্ন

আপডেট: নভেম্বর ২১, ২০১৬, ১২:২৫ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক



রাজশাহীতে জমে উঠেছে শীতকালীন ফুলের চারা বিক্রি। চারা সংগ্রহে ভিড় বাড়ছে সরকারি ও ব্যক্তি মালিকানাধীন নার্সারিগুলোতে। পুরো মৌসুম জুড়ে কয়েক কোটি টাকার বাণিজ্যের প্রস্তুতি রয়েছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।
রাজশাহী নার্সারি মালিক সমিতির হিসেবে, রাজশাহীতে নার্সারি রয়েছে ৩৮টি। এর মধ্যে ১৫টি বড়। অক্টোবরের মাঝামাঝি থেকে এসব নার্সারিতে শুরু হয়েছে শীতকালীন ফুলের চারা বিক্রি। চলবে মার্চ পর্যন্ত। প্রতি বছর কয়েক কোটি টাকার চারা বিক্রি হয়। এবারো সেই টার্গেটেই এগুচ্ছেন বাণিজ্যিক এসব নার্সারি মালিক। এর বাইরেও সীমিত চারা বিক্রি করছে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের দুটি নার্সারি। নার্সারি মালিকদের হিসেবে একেকটি বড় নার্সারি এক মৌসুমে চারা বিক্রি করে অন্তত: ১০ লাখ টাকার। চারা সংগ্রহকারীদের অধিকাংশই সৌখিন বাগান মালিক।
নগরীর নওদাপাড়া পোস্টাল অ্যকাডেমির সামনের মেসার্স লিজা নার্সারিতে চারা নিতে এসেছিলেন জেলার গোদাগাড়ী উপজেলার বালিয়াঘাট্টা এলাকার কলেজ শিক্ষক কামরুজ্জামান শহীদ। শখের বসেই কয়েক বছর ধরে বাগান করেন তিনি। প্রতিবছর তিনি চাঁপাইনবাবগঞ্জ হর্টিকালচার সেন্টার থেকে ফুলের চারা সংগ্রহ করেন। কিন্তু এবছর এসেছেন রাজশাহীর এ নার্সারিতে। তার ভাষ্য, নানান জাত ও দামে সাশ্রয়ী হওয়ায় তিনি এখানে এসেছেন। চারাও পেয়েছেন মনমত। সবমিলিয়ে সন্তষ্ট তিনি।
নার্সারিতে ডালিয়া ফুলের চারা বাছাই করছিলেন নার্সারি মালিক তাজুল ইসলাম। ডালিয়া চারা তার নার্সারিতে উৎপাদন হয় না। শুধু তিনিই নন, রাজশাহী অঞ্চলে এ ফুলের চারা নেই। যোগান নিশ্চিত করতে এবছর তিনি ভারত থেকে চারা আমদানি করছেন। বাছাই করে সরবরাহ করছেন ক্রেতাদের মাঝে।
তবে শীতকালীন অন্যান্য ফুলের চারা রয়েছে তার নার্সারিতে। রকম ভেদে প্রতিটি চারার দাম পড়ছে ৩ টাকা থেকে ২০ টাকা পর্যন্ত। তিনি ছাড়াও ছয়জন কর্মী কাজ করছেন। এ মৌসুমে তিনি অন্তত ২০ লাখ টাকার চারা বিক্রি করবেন বলে আশা করছেন। গত বছরও বিক্রি করেছিলেন ২০ লাখ টাকার শীতকালীন ফুলের চারা। বীজের উচ্চমূল্যের কারণে চারার দাম বাড়তি বলে জানিয়েছেন তিনি।
রাজশাহী নার্সারি মালিক সমিতির সভাপতি শাহেদুজ্জামান জানিয়েছেন, প্রশিক্ষণ ছাড়া কোন ধরনের  সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা পান না তারা। পান না সহজ শর্তে ব্যাংক ঋণও। এসব সুবিধা পেলে এ বাণিজ্য আরো ছড়িয়ে দেয়া যেতো।
রাজশাহীতে সরকারি উদ্যোগে ফুলের চারা উৎপাদন করছে কোর্ট হর্টিকালচার সেন্টার ও কাশিয়াডাঙ্গা হর্টিকালচার সেন্টার। এর মধ্যে কোর্ট হর্টিকালচার সেন্টার গত বছর শীতকালীন ফুলের চারা বিক্রি করেছে ২০ হাজার টাকার। বিক্রি হয়েছে ২ হাজার ২৫০টি চারা। এর প্রায় অর্ধেক এক হাজার ৩০২টি চারা বিক্রি হয়েছে কাশিয়াডাঙ্গা হর্টিকালচার সেন্টার।
তবে এবছর চারার উৎপাদন বেড়েছে বলে জানিয়েছেন কাশিয়াডাঙ্গা হর্টিকালচার সেন্টারের নার্সারি তত্ত্ব¡াবধায়ক রবিউল ইসলাম। তিনি বলেন, পর্যাপ্ত জায়গা না থাকায় তারা বাণিজ্যিক চারা উৎপাদনে যেতে পারছেন না। তবে এটি তারা আদর্শ নার্সারি হিসেবেই গড়ে তুলেছেন।
একই ভাষ্য কোর্ট হর্টিকালচার সেন্টারের উদ্যানতত্ত্ববিদ ফৌজিয়া ফেরদৌসের। তিনি বলেন, তাদেরও সিড  বেড সীমিত। এছাড়া বীজ আমদানি নির্ভর। ফলে চারার উৎপাদন বাড়ছে না। এছাড়া যেসব চারা উৎপাদন হয় সেগুলোও বিক্রি নেই প্রচারণার অভাবে। সব মিলিয়ে এখনো বাণিজ্যিক হতে পারেনি প্রতিষ্ঠানটি। তবে প্রতি বছরই চারা উৎপাদন ও বিপণন বাড়ছে বলে জানিয়েছেন তিনি।
রাজশাহী আঞ্চলিক কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের হিসেবে, রাজশাহী অঞ্চলে এ বছর বাণিজ্যিক ফুলের চাষ হচ্ছে প্রায় ২০ হেক্টর জমিতে। এর মধ্যে রাজশাহীতে ৯ দশমিক ৬ হেক্টর, নওগাঁয় ৩ দমমিক ৩৬ হেক্টর ও নাটোরে ৮ হেক্টার। গত বছরের চেয়ে এ বছর বেড়েছে ফুল চাষ। এর বাইরের রয়েছে বিপুল পরিমাণ সৌখিন ফুল বাগান। ফুলচাষিদের সব ধরনের তথ্য ও পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছেন মাঠ পর্যায়ের কৃষি কর্মকর্তারা।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ