ফেব্রুয়ারিতে দেশে ফিরতে পারেন এন্ড্রু কিশোর

আপডেট: জানুয়ারি ৮, ২০২০, ১২:৩৫ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


হাসপাতালে এন্ড্রু কিশোর-সংগৃহীত

সব ঠিক থাকলে ফেব্রুয়ারি মাসের শেষ দিকে দেশে ফিরবেন প্লেব্যাক কিংবদন্তি এন্ড্রু কিশোর। এখন নিয়মমাফিক চলছে তার কেমোথেরাপি। আর দুই সার্কেলে ৮টি থেরাপি বাকি আছে। এরপর দেশে ফিরতে পারবেন ক্যানসারের সঙ্গে যুদ্ধ করা এই শিল্পী।
এন্ড্রু কিশোরের চিকিৎসকের বরাতে এ তথ্যটি জানিয়েছেন শিল্পীর ছাত্র মোমিন বিশ্বাস। তিনি বলেন, ‘কর্তব্যরত চিকিৎসকের কথা অনুযায়ী আগামী ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত তাকে সিঙ্গাপুর জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে হবে। এরমধ্যে ৮টি কেমো সম্পন্ন হবে। ধারণা করছি, আরও প্রায় দেড় কোটি টাকার মতো লাগবে।’
সব কেমো শেষ হলে দেশে ফিরে বেশ কিছুদিন বিশ্রামে থাকতে হবে এন্ড্রু কিশোরকে। সেসময় নিয়মিত চেকআপের মধ্যে থাকতে হবে তাকে।
চিকিৎসার শুরুতে জানানো হয়েছিল, এন্ড্রু কিশোরকে ৬টি সাইকেলে ২৪টি কেমোথেরাপি দিতে হবে। ইতোমধ্যে ৪টি সাইকেলে তার ১৬টি কেমো সম্পন্ন হয়েছে। বাকি রয়েছে ২টি সাইকেলে ৮টি কেমো। কেমোর পাশাপাশি বিভিন্ন রকম টেস্ট, থাকা-খাওয়া ও যাতায়াত বাবদ এ পর্যন্ত প্রায় ২ কোটি টাকা খরচ হয়েছে।
বিভিন্ন অনুদান ও কনসার্ট থেকে এন্ড্রু কিশোরের চিকিৎসার জন্য এ পর্যন্ত প্রায় ৬০ লাখ টাকার মতো সহায়তা পাওয়া গেছে। এরমধ্যে সর্বশেষ দুটি কনসার্ট থেকে এসেছে ৮ লাখ ৮ হাজার টাকা।
অন্যদিকে এন্ড্রু কিশোরের চিকিৎসার জন্য ‘গো ফান্ড মি’ নামে ওয়েবসাইটের মাধ্যমে তহবিল তৈরির কাজও চলছে। ইতোমধ্যে সেখানে জমা হয়েছে ৮ হাজার ৯৮৯ ডলার। জানা যায়, ২৫ হাজার ডলারের (২১ লাখ ২২ হাজার) লক্ষ্য পূরণ হলেই এই টাকা শিল্পীর পরিবারের কাছে হস্তান্তর করবে ফাউন্ডেশনটি।
এদিকে, সিঙ্গাপুরে যাওয়ার আগে গত ৮ সেপ্টেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবনে এন্ড্রু কিশোরকে আমন্ত্রণ জানান। এ সময় তিনি এন্ড্রু কিশোরের শারীরিক সমস্যার খোঁজ খবর নেন এবং তার চিকিৎসার জন্য ১০ লাখ টাকার চেক তুলে দেন। এছাড়াও একটি বেসরকারি চ্যানেলের কর্তৃপক্ষ তার চিকিৎসায় সহায়তায় আরও ১০ লাখ টাকা প্রদান করেছে। এছাড়াও ব্যক্তিগতভাবে বেশ কয়েকজন তারকা ও এ প্রজন্মের শিল্পীদের উদ্যোগে তার চিকিৎসার জন্য টাকা দেওয়া হয়েছে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ