ফের শাপলা চত্বরে এলে উচিত জবাব দেয়া হবে : সাংসদ বাদশা

আপডেট: মার্চ ৮, ২০১৭, ১২:০৩ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক



‘হেফাজতে ইসলামের’ উদ্দেশে রাজশাহী-২ (সদর) আসনের সাংসদ ফজলে হোসেন বাদশা বলেছেন, ‘হেফাজতে ইসলাম এখন সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণ থেকে ভাস্কর্য সরানোর দাবি তুলেছে। এ দাবিতে তারা আবার শাপলা চত্বরে আসতে চায়। কিন্তু তাদেরকে দৃঢ়কণ্ঠে বলতে চাই, ফের শাপলা চত্বরে এলে উচিৎ জবাব দেয়া হবে।’
বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ উপলক্ষে নগরীতে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় নগরীর মিয়াপাড়ায় সাধারণ গ্রন্থাগারের মিলনায়তনে এই আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়। শহিদ জামিল আক্তার রতন স্মৃতি সংসদ এ সভার আয়োজন করে।
সভায় বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা বলেন, ‘সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গন থেকে ভাস্কর্য সরালে হেফাজত অপারেজয় বাংলাকে বলবে ‘মূর্তি’। তারা সেটিও ভেঙে ফেলতে চাইবে। তারপর লাল-সবুজের পতাকা নামিয়ে তারা চাঁদ-তারার পাকিস্তানি পতাকা তুলে দেবে। তাই তাদের ব্যাপারে সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে। প্রয়োজনে ৫০ লাখ মানুষের লাঠিমিছিল দিয়ে হেফাজতিদের ধাওয়া দিতে হবে।’
তিনি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ৭ই মার্চ পুরো দেশের পরিস্থিতি আত্মউপলদ্ধি করে ভাষণ দিয়েছিলেন। তিনি তার ভাষণের মধ্য দিয়ে জাতিকে উদ্বীপ্ত করেছেন। দিকনির্দেশনা দিয়েছেন। মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উজ্জীবিত থেকে আমরা তা এখনও অনুসরণ করি। ১৪ দল অনুসরণ করে। কিন্তু ১৪ দলে ফাঁটল ধরাতে ষড়যন্ত্র চলছে। এই ষড়যন্ত্র রুখে দিতে হবে। তা না হলে হেফাজতিদের মতো পাকিস্তানপন্থিরা ঘাড়ে চেপে বসবে।’
সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন, ওয়ার্কার্স পার্টির রাজশাহী মহানগরের সভাপতি লিয়াকত আলী লিকু, বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টির (ন্যাপ) রাজশাহী জেলার সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান খান আলম, কবিকুঞ্জের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা রুহুল আমিন প্রামানিক সভাপতি, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ) রাজশাহী মহানগরের একাংশের সাধারণ সম্পাদক আবদুল্লাহ আল মাসুদ শিবলী ও অপরাংশের সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম শফিক।
এ ছাড়াও অন্যদের মধ্যে আইনজীবি এন্তাজুল হক বাবু, উদিচির রাজশাহী জেলার সভাপতি আলমগীর মালেক, ঘাতক দালাল নির্মুল কমিটির সভাপতি ডা. সুজিত সরকার, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন মঞ্চের সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ, জাতীয় শ্রমিক ফেডারেশনের জেলা সভাপতি ফেরদৌস জামিল টুটুল, ক্রীড়া সংগঠক নূরুল হক, যুবমৈত্রীর রাজশাহী বিভাগের সাংগঠনিক সম্পাদক মাসুম আক্তার অনিক, রাজশাহী মহানগরের সভাপতি মনিরুজ্জামান মনির প্রমূখ বক্তব্য দেন।
সভায় সভাপতিত্ব করেন শহীদ জামিল আক্তার রতন স্মৃতি সংসদের সভাপতি আব্দুল মতিন। সভা পরিচালনা করেন সাধারণ সম্পাদক মনির উদ্দিন পান্না।