ফেসবুকে ঝামেলা এড়াবেন যেভাবে

আপডেট: সেপ্টেম্বর ২৪, ২০১৭, ১২:৩২ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


মানুষ ফেসবুককে এমনভাবে নিজের সঙ্গে জড়িয়ে ফেলেছে। ফলে ব্যক্তিগত জীবনে দেখা দেয় বিভিন্ন সমস্যা। অনেক সময় ফেসবুক ব্যবহারকারী বিষণ্ণ, নিঃসঙ্গ, হতাশ হয়ে পড়েন। আবার অনেকেই ফেসবুক ব্যবহারকে শুধু সময়ের অপচয় বলে মনে করেন। তবে ফেসবুকের যথাযথ ব্যবহার মানুষকে শান্তিও দিতে পারে। কিছু বিষয় মাথায় রেখে ফেসবুক ব্যবহার করলে এসব ঝামেলা এড়ানো যেতে পারে। আসুন জেনে নেই বিষয়গুলো-
সুন্দর বার্তা : প্রকাশ্যে কারো সম্পর্কে ভালো বললে তার মূল্য পাওয়া যায়। অনেকেই হয়তো ভালো লাগার কথা প্রকাশ্যে বলতে বিরক্ত হন। ফেসবুকে যা-ই শেয়ার করেন না কেন, তাতে যেন সুন্দর বার্তা থাকে, সে বিষয়টি খেয়াল রাখতে হবে।
ইতিবাচক চিন্তা : ফেসবুকেও ইতিবাচক চিন্তা করা জরুরি। যারা বাস্তব জীবনে ইতিবাচক হন, তারা ফেসবুকেও সেই মানসিকতা থেকে পোস্ট দেন। তাই ইতিবাচক মানসিকতার বন্ধুদের ফেসবুকে রাখুন আর নেতিবাচক বন্ধুদের পোস্টগুলো হাইড করে রাখুন। নেতিবাচক মানুষদের একেবারেই বন্ধুতালিকা থেকে না সরিয়ে তাদের আপডেটগুলো বরং কম দেখুন।
জীবনঘনিষ্ঠ পোস্ট : ফেসবুকে ব্যক্তিগত পোস্ট করতে লজ্জা পাওয়ার কিছু নেই। ব্যক্তিগত অর্জন ফেসবুকে শেয়ার করলে আপনার ভালো লাগবে। তা থেকে বন্ধুদের ইতিবাচক প্রতিক্রিয়াও জানতে পারবেন। তবে খেয়াল রাখবেন, আপনার পোস্টে যেন অন্যরা বিরক্ত না হয়।
বিরক্তিকর লাইভ : ফেসবুকে এখন লাইভ করার সুবিধা রয়েছে। তাই যেকোন সময়ে, যেকোন বিষয়ে হুটহাট লাইভে আসবেন না। আপনার লাইভ যেন অন্যের বিরক্তির কারণ না হয়।
ফেসবুক আসক্তি : ফেসবুকে কোন বিষয়ে পোস্ট করার পর কী ধরনের প্রতিক্রিয়া এসেছে, সেটা দেখার জন্য যদি বারবার ফেসবুকে ঢুকতে হয়, তবে আপনার ফেসবুকে আসক্তি পেয়ে বসতে পারে। আপনি যদি অন্তত ৪৮ ঘণ্টা ফেসবুক ছাড়া কাটাতে পারেন, তবে আপনি ফেসবুক আসক্তদের মধ্যে পড়বেন না।
পছন্দের গ্রুপ : আপনার ফেসবুক থেকে পছন্দ অনুযায়ী গ্রুপে যোগ দিয়ে নতুন বন্ধু বানাতে পারেন। আপনার পছন্দসই গ্রুপ না পেলে নিজেই একটি গ্রুপ তৈরি করে নিতে পারেন। গ্রুপে মজার মজার পোস্ট দিয়ে আলাপ-আলোচনা করতে পারেন। বিভিন্ন ধরনের মজার পোস্টে মন ভালো হয়ে যেতে পারে।
মজার পোস্ট : ফেসবুক ব্যবহারকারীদের প্রোফাইলে দেওয়া ছবিটি যেন সুন্দর হয়। তবে ফেসবুক নিয়ে মেতে থাকার দরকার নেই। বাস্তব জীবনে মানুষ আপনাকে যেভাবে দেখে অভ্যস্ত; ফেসবুকেও সেভাবেই থাকা উচিত। আপনি যদি হাস্যকর কিছু করে থাকেন, ফেসবুকে তা পোস্ট করতে পারেন। তবে সব ধরনের পোস্ট না দিয়ে সত্যিকার ও মজার পোস্ট দিন।
বিতর্কিত সেলফি : ফেসবুকের একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে সেলফি। বেশিরভাগ ব্যবহারকারী ফেসবুকে তাদের সেলফি পোস্ট করে থাকে। সে ক্ষেত্রে খেয়াল রাখতে হবে যে, কোন বিতর্কিত সেলফি যেন পোস্ট না হয়ে যায়। যে কারণে আপনার ব্যক্তিজীবনেও অশান্তি আসতে পারে।
পুরনো অ্যালবাম : ফেসবুক ব্যবহারকারীরা শুধু সুখী মুহূর্তগুলোর ছবিই পোস্ট করেন। তাই পুরনো অ্যালবামগুলোর ছবি দেখলে মন ভালো হয়। পুরনো অ্যালবামগুলো মন ভালো করার ওষুধ হিসেবে কাজ করে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ