বঙ্গবন্ধুর আদর্শে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে : লিটন || নগরীতে স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালিত

আপডেট: জানুয়ারি ১১, ২০১৭, ১২:০৭ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক



বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে সভায় আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য ও নগর সভাপতি এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন বলেছেন, বঙ্গবন্ধু বাঙালিদের অধিকার ও স্বাধীনতা এনে দিয়েছেন। কিন্তু ৭৫’র ঘটনার পরই দেশে ষড়যন্ত্রের রাজনীতি শুরু হয়েছিল। তারপর থেকে দেশের উন্নয়ন কর্মকা- থেমে যায়। বর্তমানে প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর আদর্শে দেশকে উন্নয়নে দিকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন।  গতকাল মঙ্গলবার রাতে মহানগর আ’লীগের উদ্যোগে দলীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, স্বাধীনতা যুদ্ধের ভয়াবহতা কাটিয়ে দেশের মানুষ যখন স্বপ্ন দেখতে শুরু করে। তখনই ঘাতকের দল বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে। এরপর বিএনপি-জামায়াত ক্ষমতায় এসে যুদ্ধাপরাধীদের ক্ষমতা বসিয়ে দেন। তৎকালীন তাদের আখের গোছানো, ষড়যন্ত্র ও সহিংসতা ছিল লক্ষ্য। স্বাধীনতাবিরোধীরা দেশের মানুষকে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে দিতে চায়নি। কারণ বিএনপি-জামায়াত পাকিস্তানি কায়দার রাজনীতিতে বিশ্বাসী । বঙ্গবন্ধু বেঁচে থাকলে অনেক আগেই উন্নত-সমৃদ্ধশালী দেশে পরিণত হতো। দেশের মানুষ উন্নত জাতি হিসেবে সুখে শান্তিতে জীবন-যাপন কাটাতো।
রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকারের পরিচালনায় সভায় বক্তব্য দেন, নগর আওয়ামী লীগ সহ-সভাপতি সমাজসেবী শাহীন আকতার রেনী, সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আসলাম সরকার, দফতর সম্পাদক মাহাবুব-উল-আলম বুলবুল, আসলাম সরকার মতিহার থানা আওয়ামী লীগ সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা ডা. আব্দুল মান্নান, জাতীয় শ্রমিক লীগ রাজশাহী মহানগরের সভাপতি বদরুজ্জামান খায়ের।
এসময় উপস্থিত ছিলেন, যুগ্মসম্পাদক মোস্তাক হোসেন, নাঈমুল হুদা রানা, সাংগঠনিক সম্পাদক আজিজুল আলম বেন্টু, আসাদুজ্জামান আজাদ, মহিলা সম্পাদিকা ইয়াসমিন রেজা ফেন্সি, কৃষি সম্পাদক জহির উদ্দিন তেতু, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক ফিরোজ কবির সেন্টু, যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক মীর তৌফিক আলী ভাদু, শিল্প ও বাণিজ্য সম্পাদক এএসএম ওমর শরীফ রাজীব, সাংস্কৃতিক সম্পাদক কামার উল্লাহ সরকার কামাল, উপ-দপ্তর সম্পাদক শফিকুল ইসলাম দোলন, উপ-প্রচার সম্পাদক মীর ইসতিয়াক আহমেদ লিমন, সদস্যবৃন্দ আব্দুস সালাম, হাবিবুর রহমান বাবু, এনামুল হক কলিন্স, সিরাজুল ইসলাম, মকিদুজ্জামান জুরাত, মোসফিকুর রহমান হাসনাত, রবিউল আলম রবি, এবিএম হাবিবুল্লা ডলার, মুক্তিযোদ্ধা সাহাব উদ্দিন, নগর শ্রমিক লীগ যুগ্মসম্পাদক শরীফ আলী মুনমুন, কৃষক লীগ সভাপতি রহমতুল্লাহ সেলিম, যুবলীগ সভাপতি রমজান আলী, স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি আব্দুল মোমিন, সাধারণ সম্পাদক জেডু সরকার, নগর মহিলা আওয়ামী লীগ সভাপতি সালমা রেজা, সাধারণ সম্পাদক কানিজ ফাতেমা মিতু, নগর ছাত্রলীগ সভাপতি রকি কুমার ঘোষ, সাধারণ সম্পাদক মাহমুদ হাসান রাজিব, রাজপাড়া থানা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আনসারুল হক খিচ্চু, মতিহার থানা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আলাউদ্দিন প্রমুখ।
এরআগে এ দিবস উপলক্ষে রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগ বিভিন্ন কর্মসূচী পালন করে। সুর্যোদ্বয়ের সাথে সাথে নগর আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের স্বাধীনতা চত্বরে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়, সকাল ৯ টায় কুমারপাড়াস্থ দলীয় কার্যালয়ের স্বাধীনতা চত্বরে বঙ্গবন্ধুসহ শহীদ জাতীয় চার নেতার প্রতিকৃতিতে মাল্যদান, দুপুর ১২টায় দুস্থদের মাঝে কম্বল বিতরণ, সন্ধ্যা ৬টায় দলীয় কার্যালয়ে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল।


জেলা আ’লীগ : বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে জেলা আওয়ামী লীগ বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্যে সূর্যোদয়ের সাথে সাথে জেলা আ’লীগের লক্ষীপুরস্থ দলীয় কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন, বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে মাল্যদান, সারাদিনব্যাপি মাইকে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ ও মুক্তিযুদ্ধের গাণ প্রচার করা হয়। বিকেল ৪টায় লক্ষ¥ীপুর মোড়ে দলীয় কার্যালয়ের সামনে থেকে জেলা আওয়ামী লীগের গণজমায়েত শেষে মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। মিছিলে শেষে লক্ষ¥ীপুর মোড়ে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন, রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আব্দুল মজিদ সরদার।
সমাবেশে বক্তব্য দেন, জেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক মোহা. আসাদুজ্জামান আসাদ, যুগ্মসাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট লায়েব উদ্দিন লাভলু, সাংগঠনিক সম্পাদক আহসান-উল-হক মাসুদ, জেলা যুবলীগ সভাপতি আবু সালেহ, সাধারণ সম্পাদক এএইচএম খালেদ ওয়াশি কেটু, জেলা কৃষকলীগের সভাপতি রবিউল আলম বাবু, সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক তাজবুল ইসলাম, জেলা শ্রমিকলীগের সভাপতি আবদুল্লাহ খান, সাধারণ সম্পাদক আজাদ আলী, জেলা মহিলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট নাসরিন আকতার মিতা, জেলা মহিলা যুবলীগের সভাপতি নার্গিস শেলী, জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি হাবিবুর রহমান হাবিব।
এসময় উপস্থিত ছিলেন, দফতর সম্পাদক ফারুক হোসেন ডাবলু, উপ-দফতর সম্পাদক প্রভাষক শরিফুল ইসলাম, পবা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাজদার রহমান সরকার, নওহাটা পৌরসভা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক কামরুল হাসান, আওয়ামী লীগ নেতা শফিকুল সরকার, জেলা পরিষদের সদস্য কৃষ্ণা দেবী, আসাদুজ্জামান মাসুদ, জেলা যুবলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আলী আজম সেন্টু, যুবনেতা মুজাহিদ হোসেন মানিক, রফিকুজ্জামান রফিক, শাহাদত হোসেন পিন্টু, ইমাম, আরিফুল ইসলাম, রাজপাড়া থানা ছাত্রলীগের সভাপতি নাসির উদ্দিন রুবেল, সাধারণ সম্পাদক মারুফ হোসেনসহ জেলা আ’লীগ, যুবলীগ, মহিলা আ’লীগ, শ্রমিকলীগ, ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দ, উপজেলা আ’লীগ, পৌরসভা আ’লীগসহ সহযোগি সংগঠনের সকল স্তরের নেতাকর্মী।
বক্তব্যে আসাদ বলেন, বঙ্গবন্ধুর জন্ম না হলে বাংলাদেশের জন্ম হতো না। বঙ্গবন্ধু এদেশের জনগণের জন্য জীবন দিয়েছেন। তার সুযোগ্যকন্যাকেও বারবার দেশ বিরোধীরা হত্যা করতে চেষ্টা করেছে। জনগণের দোয়ায় শেখ হাসিনা প্রাণে বেচেঁ যান। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন শেখ হাসিনা বাস্তবায়ন করে চলেছে দ্রুত গতিতে। সেখানেই বিএনপি-জামাতের ষড়যন্ত্র যাতে দেশ উন্নয়নের দিকে যেতে না পারে। কিন্তু আওয়ামী লীগ সরকার সকল ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করে সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। সমাবেশ পরিচালনা করেন, রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক একেএম আসাদুজ্জামান।
রাকাব বঙ্গবন্ধু পরিষদ : এ দিবস উপলক্ষে রাকাব বঙ্গবন্ধু পরিষদের উদ্যোগে রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক প্রধান কার্যালয় ভবন চত্বরে ব্যাংকের সকল স্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীর উপস্থিতিতে ব্যবস্থাপনা পরিচালক কাজী ছানাউল হক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণের মাধ্যমে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করেছেন।
এসময় উপস্থিত ছিলেন, ব্যাংকের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক নজরুল ইসলাম, প্রধান কার্যালয়ের মহাব্যবস্থাপক (নিরীক্ষা, হিসাব ও আদায়) মোজাম্মেল হক, মহাব্যবস্থাপক (পরিচালন) সাজাম্মুল ইসলাম, মহাব্যবস্থাপক (প্রশাসন) খোন্দকার গোলাম মোস্তফা, প্রধান কার্যালয়ের উপ-মহাব্যবস্থাপক/বিভাগীয় প্রধানগণ, প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটের অধ্যক্ষ, রাকাব বঙ্গবন্ধু পরিষদের সভাপতি এমজি আজম, রাকাব কর্মচারী সংসদ (সিবিএ) কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সাধারণ সম্পাদক (ভারপ্রাপ্ত) শফিকুর রহমান, রাকাব অফিসার্স অ্যাসোসিয়েশন কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সাধারণ সম্পাদক শওকত শহীদুল ইসলাম, রাকাব অফিসার্স ফোরাম কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সভাপতি শেখ মো. তৌফিক এলাহী, মুক্তিযোদ্ধা প্রাতিষ্ঠানিক ইউনিট কমান্ডের ডেপুটি কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল কালাম আজাদ, রাকাব অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা-কর্মচারী কল্যাণ সমিতির কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির যুগ্মসাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা ইয়াছিন আলী মোল্লাসহ ব্যাংকের বিভিন্ন স্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ।
অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক কাজী ছানাউল হক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে শ্রদ্ধাভরে স্মরণ এবং তার বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন। তিনি বলেন, দীর্ঘ ৯ মাসেরও অধিক সময় কারাভোগের পর বঙ্গবন্ধু এ দিনে স্বদেশ প্রত্যাবর্তন করেন। মূলত স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের মাধ্যমে বাঙালি জাতি বিজয়ের পরিপূর্ণতা উপলব্ধি করে। বঙ্গবন্ধু বাঙালী জাতির রাজনৈতিক স্বাধীনতার পাশাপাশি অর্থনৈতিক মুক্তি চেয়েছিলেন বলেই তিনি যুদ্ধবিধ্বস্ত স্বাধীন বাংলাদেশের পুনর্গঠনের কাজ ব্যপকভাবে শুরু করেছিলেন। কিন্তু ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার মাধ্যমে দেশের সেই উন্নয়নকে ব্যাহত করা হয়।
তিনি আরো বলেন, বঙ্গবন্ধুর অসম্পূর্ণ কাজগুলোকে সম্পূর্ণ করার মাধ্যমে তার স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিরলস পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। তিনি বঙ্গবন্ধুর চিন্তা, চেতনা ও আদর্শকে অনুসরণের মাধ্যমে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে সকলকে সম্পৃক্ত হওয়ার জন্য আহ্বান জানান। অনুষ্ঠান শেষে বঙ্গবন্ধুর রুহের মাগফিরাত কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়।
রাজশাহী কলেজ ছাত্রলীগ : এ দিবস উপলক্ষে রাজশাহী কলেজ মুসলিম ছাত্রবাসে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পন করেন ছাত্রলীগ রাজশাহী কলেজ শাখার আহ্বায়ক নূর মোহাম্মদ সিয়াম, যুগ্মআহ্বায়ক নাইমুল হাসান নাঈমসহ রাজশাহী কলেজ ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দ।
ছাত্রলীগের সাবেক নেতৃবৃন্দ : বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসে ছাত্রলীগ সাবেক কর্মীবৃন্দ লক্ষ¥ীপুর মোড়ে সকাল ১০ টায় বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন, নগর ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি শফিকুজ্জামান শফিক, সাবেক সহসভাপতি ফজলে রাব্বী বাদশা, হাবিবুর রহমান সজিব, সাবেক যুগ্মসাধারণ সম্পাদক সামাউন ইসলাম, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক প্রভাষক শরিফুল ইসলাম, রাজপাড়া থানা ছাত্রলীগের সভাপতি নাসির উদ্দিন রুবেল, জেলা ছাত্রলীগ নেতা পাশাসহ প্রমুখ। মুক্তিযোদ্ধা সংসদ জেলা ইউনিট : বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে শহীদ কামারুজ্জামান চত্বরের মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবনে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। পরে বঙ্গবন্ধুর কৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ ও বিকেলে আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন, জেলা কমান্ডার মুক্তিযোদ্ধা ফরহাদ আলী মিঞা। এসময় উপস্থিত ছিলেন, ডেপুটি কমান্ডার শাহাদুল হক, জেলা নির্বাহী সদস্য অ্যাডভোকেট আবদুস সামাদ প্রমুখ।
মুক্তিসংগ্রাম পরিষদ-মুক্তিযুদ্ধ’৭১ : বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। পরে বঙ্গবন্ধুর কৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ ও বিকেলে আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন, মুক্তিযোদ্ধা আবুল হাসান খন্দকার। এসময় বক্তব্য দেন, মুক্তিসংগ্রাম পরিষদ-মুক্তিযুদ্ধ’৭১ নেতা এমএ করিম মোল্লা, কেএমএম ইয়াসিন আলী, বঙ্গবন্ধু পরিষদের নেতা মুক্তিযোদ্ধা তছের প্রমুখ।