বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের বাংলাদেশ এগিয়ে চলেছে ।। শ্রদ্ধা ও ভালবাসায় বঙ্গবন্ধুর জন্মজয়ন্তী ও শিশু দিবস উদযাপিত

আপডেট: মার্চ ১৮, ২০১৭, ১২:৫৯ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক



বঙ্গবন্ধু মানেই বাংলাদেশ। বঙ্গবন্ধুর জন্ম না স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যুদয় হতো না। গোপালগঞ্জে টুঙ্গিপাড়ায় বেড়ে উঠা সাধারণ শিশুটি তার কর্মস্পৃহা, দৃঢ়তা ও মানুষকে ভালোবাসার কারণে ধীরে ধীরে অসাধারণ মানুষে পরিণত হয়েছেন। তার এই গুণগুলো ভবিষ্যৎ প্রজন্মের শিশু-কিশোরদের আত্মস্থ করতে হবে। এই গুণগুলো নিজেদের মধ্যে বিকশিত করার মাধ্যমেই আজকের শিশুরা আগামি দিনের কর্ণধার হয়ে উঠবে। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করার যে উদ্যোগ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ এগিয়ে চলেছে তা বাস্তবায়িত হবে।
গতকাল শুত্রবার বঙ্গবন্ধুর ৯৮তম জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস উদযাপন উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে বক্তারা এসব কথা বলেন। বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন উপলক্ষে গতকাল বিভিন্ন সংগঠন নানা কর্মসূচি পালন করেন।
বক্তারা বলেন, পাকিস্তানি কুচক্রী দ্বারা প্রভাবিত হয়ে এদেশীয় কিছু বিকারগ্রস্ত মানুষ স্বাধীনতার পর বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেন। কিন্তু দেশ স্বাধীন হওয়ার পর ব্যক্তি বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা সম্ভব হলেও তার আদর্শকে হত্যা করা সম্ভব হয়নি। এখনো প্রতিটি মানুষের কাছেই বাংলাদেশ মানে বঙ্গবন্ধু। এইজন্য এই দিনটিকে আমাদের যথাযথ মর্যাদার সাথে পালন করতে হবে। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের বাংলাদেশ পূরণের জন্য সবাইকে একযোগে কাজ করে যেতে হবে।
বঙ্গবন্ধুর ৯৮তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে জেলা প্রশাসন, মহানগর আওয়ামী লীগ, জেলা আওয়ামী লীগসহ আওয়ামী লীগের বিভিন্ন সহযোগী সংগঠন, বিভিন্ন সরকারি দফতর, এনজিও প্রতিষ্ঠান নানা কর্মসূচি পালন করেন। দিবসটি উপলক্ষে শিশু-কিশোরদের নিয়ে চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা, রচনা প্রতিযোগিতা, বক্তৃতা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এতিমদের মাঝে বিতরণ করা হয় খাবার। এছাড়া দিবসটি উপলক্ষে আওয়ামী লীগ ও তার সহযোগী সংগঠনের উদ্যোগে মোড়ে মোড়ে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ প্রচারিত হয়।
মহানগর আওয়ামী লীগ : রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগ দিবসটি যথাযোগ্য মর্যাদার সাথে পালন করে। বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্যে ছিল সূর্যোদয়ের সাথে সাথে মহানগর আওয়ামী লীগ কার্যালয়সহ নগরীর সকল আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন। সকাল ১০টায় কুমারপাড়াস্থ দলীয় কার্যালয়ের স্বাধীনতা চত্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়। এরপর সকাল সাড়ে ১০টায় কুমারপাড়াস্থ দলীয় কার্যালয়ে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর আত্মার মাগফেরাত কামনা করে এক দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়। সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টায় ভুবনমোহন পার্কে চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ করা হয়। এসব কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন, আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সদস্য ও রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন, রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগ সহ-সভাপতি শাহীন আকতার রেনী, নওশের আলী, শাহাদৎ হোসেন, শফিকুর রহমান বাদশা, সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকার, যুগ্ম সম্পাদক মোস্তাক হোসেন, রেজাউল ইসলাম বাবুল, নাঈমুল হুদা রানা, সাংগঠনিক সম্পাদক এ্যাড. আসলাম সরকার, প্রচার সম্পাদক প্রভাষক কামরুজ্জামান, আইন সম্পাদক এ্যাড. মুসাব্বিরুল ইসলাম, সাংস্কৃতিক সম্পাদক কামার উল্লাহ কামাল, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক ফিরোজ কবির সেন্টু, উপ-দপ্তর সম্পাদক শফিকুল ইসলাম দোলন, সদস্য এ্যাড. মোজাফফর হোসেন, আহ্সানুল হক পিন্টু, এনামুল হক কলিন্স, মকিদুজ্জামান জুরাত, সিরাজুল ইসলাম, অফসার মাস্টার, হাবিবুল্লাহ ডলার, হাফিজুর রহমান বাবু, আব্দুস সালাম, আতিকুর রহমান কালু, ডা: আব্দুল মান্নান, রাজপাড়া থানা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক শেখ আনসারুল হক খিচ্চু, বোয়ালিয়া (পশ্চিম) থানা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক শামসুজ্জামান রতন, বোয়ালিয়া (পূর্ব) থানা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক শ্যামল কুমার ঘোষ, মতিহার থানা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আলাউদ্দিন , শাহ্মুখদুম থানা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক শাহাদত আলী শাহু, এছাড়াও সহযোগী সংগঠনের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক ও বিভিন্ন ওয়ার্ডের সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
জেলা আওয়ামী লীগ : দিবসটি উপলক্ষে রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে সকাল ৭টায় দলীয় কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। এরপর সকাল ৮টায় বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে মাল্যদান করেন জেলার নেতৃবৃন্দ। সারাদিন মাইকে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ ও মুক্তিযুদ্ধের গান প্রচার হয়। এছাড়া বাদ জুম্মা মহিষবাথান গোরস্থান সংলগ্ন মাদ্রাসায় খাদ্য বিতরণ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। খাবার বিতরণ ও দোয়া মাহফিলে উপস্থিত ছিলেন, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোহা. আসাদুজ্জামান আসাদ, সাংগঠনিক সম্পাদক একেএম আসাদুজ্জামান, আইন বিষয়ক সম্পাদক এ্যাড. এজাজুল হক মানু, যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক মুখতার হোসেন, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক এ্যাড. এহসান আহম্মেদ শাহিন, উপ-দফতর সম্পাদক প্রভাষক মো. শরিফুল ইসলাম, আওয়ামী লীগ নেতা শফিকুল সরকার, মাদ্রাসা কমিটির সভাপতি আব্দুল হাই, সাধারণ সম্পাদক শামসুল আলম এবং জেলা সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীবৃন্দ। দোয়া পরিচালনা করেন, মাদ্রাসার সুপার হাফেজ মাওলানা নাজির আহমেদ।
জেলা প্রশাসন : দিবসটি উপলক্ষে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে সকাল ৯টায় রাজশাহী গভ. ল্যাবরেটরি স্কুল থেকে একটি শোভাযাত্রা বের করা হয়। শোভাযাত্রাটি জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে গিয়ে শেষ হয়। সেখানে দিবসটি উপলক্ষে আলোচনা সভা, পুরস্কার বিতরণী ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন, রাজশাহীর জেলা প্রশাসক কাজী আশরাফ উদ্দিন। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার নূর উর রহমান। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, রাজশাহী রেঞ্জের ডিআইজি এম খুরশীদ হোসেন, আরএমপির অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার সরদার তমিজউদ্দিন আহমদ, জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মোয়াজ্জেম হোসেন ভূঁঞা।
প্রধান অতিথি নূর উর রহমান শিশু-কিশোরদের উদ্দেশ্যে বলেন, তোমরা হচ্ছো আগামি দিনের ভবিষ্যৎ কর্ণধার। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশকে নিয়ে যে স্বপ্ন দেখেছিলেন, তোমাদের দায়িত্ব হচ্ছে সেই স্বপ্নকে বাস্তবায়িত করা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে উন্নত ১০টি দেশের মধ্যে নিয়ে যাবার যে লক্ষ্য নিয়ে কাজ করছেন তোমাদের মাধ্যমেই সেই স্বপ্ন পূরণ হবে। তোমরা বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে নিজেদের মধ্যে ধারণ করে সেই মোতাবেক নিজেদের প্রস্তুত করবে।
জেলা প্রশাসক কাজী আশরাফ উদ্দীন বলেন, বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছে। দেশ স্বাধীন হওয়ার আগে প্রতিটি আন্দোলনে তিনি নেতৃত্ব দিয়েছেন। তিনি জীবনে কখনো আপোস করেননি। তিনি ছিলেন আপোসকামী নেতা। শিশু-কিশোরদেরও সেই গুণ আত্মস্থ করতে হবে।
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় : শুক্রবার সকাল পৌনে ৮টায় রাবির বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ ও মোনাজাত করেন ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য অধ্যাপক চৌধুরী সারওয়ার জাহান, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক সায়েন উদ্দিন আহমেদ ও রেজিস্ট্রার অধ্যাপক মুহাম্মদ এন্তাজুল হকসহ বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। এরপর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল ও রাবি বঙ্গবন্ধু পরিষদসহ বিভিন্ন হল, বিভাগ, ইনস্টিটিউট এবং পেশাজীবী ও সামাজিক-সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক সংগঠন পুস্পস্তবক অর্পণ করে।
সকাল ৮টায় ‘সাবাস বাংলাদেশ’ চত্বর থেকে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় স্কুল এবং শেখ রাসেল মডেল স্কুলের শিক্ষার্থীদের শোভাযাত্রা ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ করে। বেলুন-ফেস্টুন উড়িয়ে শোভাযাত্রার উদ্বোধন করেন ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য। সকাল সাড়ে ৮টায় শেখ রাসেল মডেল স্কুল প্রাঙ্গনে অনুষ্ঠিত হয় শিশু সমাবেশ, বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন উপলক্ষে কেক কাটা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। সকাল ৯টায় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় স্কুল প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত হয় স্কুলের শিশু সমাবেশ, বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন উপলক্ষে কেক কাটা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এবং চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা ও শেখ মুজিবুর রহমানের ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’র নির্বাচিত অংশ থেকে কুইজ প্রতিযোগিতা।
দিবসের কর্মসূচিতে আরো ছিল জুমার নামাজের পর বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে মিলাদ মাহফিল ও দোয়া এবং সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় শহীদ সুখরঞ্জন সমাদ্দার ছাত্র-শিক্ষক সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।
রুয়েট : এদিন সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে প্রশাসনিক ভবনসহ বিভিন্ন ভবনে জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মধ্যে দিয়ে রুয়েটে দিবসটি পালনের কর্মসূচি শুরু হয়। সকাল ১০টায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুস্পস্তবক অর্পণ করেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোহা. রফিকুল আলম বেগ, রুয়েট শিক্ষক সমিতি এবং বিভিন্ন হলসহ রুয়েট ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা। দিবসটি উপলক্ষে শুক্রবার সকাল সাড়ে ৯ টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় শরীরচর্চা কেন্দ্রে শিশুদের চিত্রাংকন প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন উপাচার্য। পরে সকাল সাড়ে ১০টায় রুয়েটের কেন্দ্রীয় শরীরচর্চা কেন্দ্র মিলনায়তনে একটি আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠিত হয়। সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোহা. রফিকুল আলম বেগ।
রুয়েট ছাত্রকল্যাণ পরিচালক অধ্যাপক ড. এনএইচএম কামরুজ্জামান সরকারের সভাপতিত্বে ও উপ-ছাত্রকল্যাণ পরিচালক সিদ্ধার্থ শংকর সাহার সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন পুরকৌশল অনুষদের অধিকর্তা অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আব্দুস সোহবান, যন্ত্রকৌশল অনুষদের অধিকর্তা অধ্যাপক ড. নীরেন্দ্র নাথ মুস্তাফী, ইলেকট্রনিক এন্ড কম্পিউটার সায়েন্স অনুষদের অধিকর্তা অধ্যাপক ড. মো. রফিকুল ইসলাম শেখ, পরিচালক (পরিকল্পনা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ড. মো. আব্দুল আলীম, রুয়েট শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি নাইমুর রহমান নিপু, সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী মাহমুদ জামান তপু এবং সাংগঠনিক সম্পাদক মোল্লা এইচএস ইসমাইল। এছাড়া দিবসটি উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল প্রাঙ্গণে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচির উদ্বোধন এবং চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা ও বঙ্গবন্ধুর জীবন ও আদর্শ নিয়ে রচনা প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরন করেন উপাচার্য প্রফেসর ড. মোহা. রফিকুল আলম বেগ। এদিকে কেন্দ্রীয় মসজিদে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আত্মার শান্তি কামনা করে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। বিকেলে কেন্দ্রীয় মিলনায়তনে বঙ্গবন্ধুর উপর নির্মিত চলচিত্র প্রর্দশনীর আয়োজন করা হয়।
রাজশাহী সিটি করপোরেশন : দিবসটি উপলক্ষে নানা কর্মসূচি গ্রহণ করেছে রাজশাহী সিটি করপোরেশন। এসব কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে আলোচনা সভা, দোয়া মাহফিল ও শিশুদের চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা। সকালে নগরভবন চত্বরে আয়োজিত আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, রাজশাহী সিটি করপোরেশনের দায়িত্বপ্রাপ্ত মেয়র নিযাম উল আযীম।
বক্তব্য দিতে গিয়ে দায়িত্বপ্রাপ্ত মেয়র বলেন, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সম্পর্কে আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে জানাতে হবে। তাঁর আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে দেশটাকে এগিয়ে নিতে সকলকে একযোগে কাজ করতে হবে। বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা জাতির পিতার স্বপ্নকে বাস্তবে রূপ দেবার জন্য দিনরাত নিরলসভাবে কাজ করে চলেছেন। তাঁর নিরলস প্রচেষ্টায় দেশ মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হতে চলেছে। আমরাও তাঁর সেই স্বপ্ন পূরণে কাজ করে যেতে চাই।
রাসিকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ড. এবিএম শরীফ উদ্দিনের সভাপতিত্বে আয়োজিত আলোচনা সভায় বক্তব্য দেন, ১৬নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর বেলাল আহম্মেদ, প্রধান প্রকৌশলী আশরাফুল হক, সচিব খন্দকার মাহাবুবুর রহমান। আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলে আরও উপস্থিত ছিলেন ৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. হাবিবুর রহমান, ৪নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. রুহুল আমিন, ৬নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. নূরুজ্জামান, ৪নং সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর মো. বিলকিস বানু, ৭নং সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর মোসা. নাজমা খাতুন, ৭নং সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর মোসা. মমতাজ মহল লাইলী, রাসিকের প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা শাহানা আখতার জাহান, বাজেট কাম হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা মো. আব্দুর রশিদ, প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. এফ এ এম আঞ্জুমান আরা বেগমসহ বিভিন্ন শাখা ও বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ। আলোচনা শেষে বঙ্গবন্ধুসহ সকল শহিদদের রুহের মাগফিরাত কামনা করে দোয়া করা হয়। দোয়া পরিচালনা করেন, রাজশাহী সিটি করপোরেশন জামে মসজিদের পেশ ইমাম ক্বারী মামুনুর রশীদ।
বিকেলে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৮তম জন্ম দিবস ও জাতীয় শিশু দিবস-২০১৭ উপলক্ষে আয়োজিত চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারী শিশুদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন দায়িত্বপ্রাপ্ত মেয়র নিযাম উল আযীম।
রাজশাহী শিক্ষাবোর্ড : জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মহান দেশপ্রেম আমাদের অন্তরে ধারণ করে জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সকলকেই বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলার স্বপ্নকে বাস্তবে রূপ দেয়ার জন্যে নিরলসভাবে কাজ করে যেতে হবে। রাজশাহী শিক্ষা বোর্ড আয়োজিত বঙ্গবন্ধুর ৯৮তম জন্মদিনের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর আবুল কালাম আজাদ একথা বলেন।
সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন, রাজশাহী শিক্ষা বোর্ডের সচিব ড. আনারুল হক ও কলেজ পরিদর্শক প্রফেসর আকবর হোসেন। এসময় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন, বোর্ডের উপ-বিদ্যালয় পরিদর্শক (চলতি দায়িত্ব) মুঞ্জুর রহমান খান এবং হিসাব রক্ষণ অফিসার (চলতি দায়িত্ব) হোসনে আরা আরজু, সহকারী পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক (মাধ্যমিক) সুলতানা শামীমা আক্তার এবং নিরাপত্তা অফিসার গোলাম ছরওয়ার প্রমুখ। এসময় বোর্ডের বিভিন্ন স্তরের কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন। সভায় সভাপতিত্ব করেন, বোর্ডের বিদ্যালয় পরিদর্শক দেবাশীষ রঞ্জন রায়। অনুষ্ঠান সঞ্চালকের দায়িত্বে ছিলেন বোর্ডের প্রধান মূল্যায়ন অফিসার (চলতি দায়িত্ব) এস এম গোলাম আজম।
অনুষ্ঠানের শুরুতে ‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান-এর জন্ম দিবস ও জাতীয় শিশু দিবস’ উপলক্ষে প্রধান অতিথি রাজশাহী শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর আবুল কালাম আজাদ এতিমখানায় এতিম ও দুঃস্থ শিশুদের মাঝে পোশাক বিতরণ করেন। বাদ আছর জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে বোর্ড মসজিদে দোয়া ও মিলাদ মাহ্ফিল অনুষ্ঠিত হয়।
ব্রাইট ওয়ে স্পোটিং ক্লাব : জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৮তম জন্মবাষির্কী ও জাতীয় শিশু দিবসের আলোচনা সভায় সাংসদ বেগম আখতার জাহান বলেছেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আমাদের আদর্শ,আমাদের এগিয়ে চলার শক্তি, তার মত আর্দশের বলিষ্ঠ নেতা আমরা হয়তো আর কোনদিন পাব না। বিশ্বে অনেক দেশ আছে যারা হয়ত বা বাংলাদেশ কে চিনে না, কিন্তু জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সারাবিশ্বের মানুষ নেতা হিসাবেই চিনেন এবং জানেন। আমরা আজ তারই কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ পরিচালনা করছি। আগামীতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বেই এগিয়ে যাবে সোনার বাংলাদেশ।
গতকাল শুত্রবার বিকালে রাজশাহী পবা উপজেলার বড়গাছিতে ব্রাইট ওয়ে স্পোটিং ক্লাব আয়েজিত আলোচনা সভায় ব্রাইট ওয়ে স্পোটিং ক্লাবের সভাপতি হামিদ হাসান সরকারের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন, পবা আওয়ামী লীগের সদস্য আজিজুল আলম, ইউনিয়ন যুবলীগ লীগের সাধারণ সম্পাদক জমসেদ আলী, সদস্য রাকিবুল ইসলাম, নওহাটা মহিলা ডিগ্রি কলেজের সহকারী অধ্যাপক ওয়াজেদ আলী, ইউপি মহিলা সদস্য দুলালী বেগম। স্বাগত বক্তব্য দেন, মোহাম্মদ সবুজ।
মহিলা টিটিসি : ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্যদিয়ে রাজশাহী মহিলা টিটিসিতে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৮তম জন্ম দিবস ও জাতীয় শিশু দিবস-২০১৭ উদযাপিত হয়েছে। মহিলা টিটিসির কর্মকর্তা-কর্মচারী ও ছাত্রীদের সমন্বয়ে আনন্দঘন পরিবেশে কেক কাটার মধ্য দিয়ে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর জন্মদিনের উৎসব পালন করা হয়। দিনের কর্মসূচি অনুযায়ী বঙ্গবন্ধুর জীবনী ও শিশু দিবসের তাৎপর্য তুলে ধরে আলোচনা পর্ব শুরু হয়। আলোচনা পর্বে অংশগ্রহণ করেন, রাজশাহী মহিলা টিটিসির অধ্যক্ষ নাজমুল হকসহ প্রশিক্ষক-শিক্ষক ও ছাত্রীরা। বঙ্গবন্ধুর জীবনাদর্শসহ দিবসভিত্তিক কেন্দ্রের ছাত্রীদের রচনা প্রতিযোগীতায় বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন অধ্যক্ষ নাজমুল হক। সর্বশেষে হাজার বছরের শ্রেষ্ট সন্তান জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে মোনাজাতের মধ্যদিয়ে দিনের কর্মসূচির সমাপ্তি ঘোষণা করা হয়।
একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি : দিবসটি উপলক্ষে নির্মূল কমিটির মতিহার থানা শাখার উদ্যোগে ১৭ পাউন্ডের একটি কেক কাটা হয়। শুক্রবার বিকেল ৪টায় ডাশমারী স্কুল মোড়ে এ কেক কাটা হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন, নির্মূল কমিটির কেন্দ্রীয় সহসাধারণ সম্পাদক উপাধ্যক্ষ কামরুজ্জামান, জেলার যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শাহ আলম বাদশা, নগর কমিটির যুগ্ম সম্পাদক মনিরুজ্জামান মানিক, মতিহার থানা কমিটির সাধারণ সম্পাদক বদিউজ্জামান বদি, বোয়ালিয়া থানার সাধারণ সম্পাদক আয়েশা ইসলাম মুন্নি প্রমুখ।
রাজশাহী সিটি কলেজ : দিবসটি উপলক্ষে শিক্ষক-শিক্ষার্থীর সমন্বয়ে এক আনন্দ র‌্যালি বের করা হয়। র‌্যালিটি কলেজ চত্বর থেকে আরম্ভ করে সাহেববাজার প্রদক্ষিণ করে কলেজ চত্বরে প্রত্যার্বতন করে এবং কলেজের প্রতিটি বিভাগ ও বিভিন্ন সেচ্ছাসেবী সংগঠন কলেজ চত্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধার্ঘ অর্পণ করে। সকাল ১০টায় আয়োজিত আলোচনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ড. মফিজুদ্দিন মোল্লা, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কলেজের উপাধ্যক্ষ প্রফেসর নিলুফার পারভীন। সভাপতিত্ব করেন কমিটির আহ্বায়ক, শিক্ষক পরিষদের সম্পাদক এ এফ এম বজলুল কবীর। অনুষ্ঠানে ‘বঙ্গবন্ধুর জীবনকথা : বাঙালিয়ানার অপরিহার্য পাঠ’ শীর্ষক মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বাংলা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক আবদুল হাই সিদ্দিকী। আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন, ইংরেজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক কামরুল ইসলাম, ইতিহাস বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক শাহ মো. তৈয়বুর রহমান চৌধুরী এবং গণিত বিভাগের প্রভাষক সাদিকুল ইসলাম। অধ্যক্ষ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শকে ধারণ করে দেশপ্রেমিক, অসাম্প্রদায়িক ও ন্যায়ভিত্তিক সমাজ গড়ার উপযোগী নাগরিক হিসেবে নিজেকে গড়ে তোলার জন্য নতুন প্রজন্মের প্রতি উদাত্ত আহ্বান জানান। দিবসকে কেন্দ্র করে অনুষ্ঠিত প্রবন্ধ রচনা ও কবিতা আবৃত্তি প্রতিযোগিতায় কৃতিত্ব অর্জনকারীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করা হয়। আলোচনা শেষে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে দু’আ করা হয়। এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে সমাপ্তি ঘটে। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন, বাংলা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড. আজিজুর রহমান।
শাহ মখদুম মেডিকেল কলেজ : দিবসটি উপলক্ষে গত বুহস্পতিবার দুপুর ১২টায় শাহ্ মখদুম মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ (ভারপ্রাপ্ত) অধ্যাপক ডা. মো. হাসানুজ্জামানের সভাপতিত্বে কলেজের এক নং লেকচার গ্যালারিতে ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর ৯৮তম জন্ম বার্ষিকী ও জাতীয় শিশুদিবস’ উপলক্ষে বিশেষ আলোচনা সভা ও দোয়া অনুষ্ঠিত হয়।
এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, কলেজের পরিচালনা পরিষদের অন্যতম সদস্য এবং মেডিসিন বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ডা. মো. আজিজুল হক। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, কলেজের বায়োকেমিস্ট্রি বিভাগের বিভাগীয় প্রধান সহযোগী অধ্যাপক ডা. মো. এরফান রেজা, শাহ্ মখদুম মেডিকেল কলেজ হসপিটাল এর উপ-পরিচালক ডা. মো. মুজিবর রহমান, কলেজ, সহকারী অধ্যাপক (মেডিসিন) ডা. মো. শামীম হোসাইন, উপ-পরিচালক (কমপ্লেক্স) আছমা-উল-হুছনা। উপস্থিত শিক্ষকমন্ডলী, কর্মকর্তা ও কর্মচারী এবং ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে আলোচনায় সভায় বক্তব্য দেন, এনাটমী বিভাগের প্রভাষক ডা. সিফাত-ই-মাহিন মীম, সহকারী পরিচালক (প্রশাসন) ড. এ টি এম হামিদুর রহমান, মামুনুর রশিদ মামুন ও শাকিলা দিল আফরোজ মিষ্টি।
বখতিয়ারপুর কলেজ : দিবসটি উপলক্ষে রাজশাহীর দুর্গাপুর উপজেলার বখতিয়ারপুর ডিগ্রি কলেজের উদ্যোগে আলোচনা সভা ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করা হয়। গতকাল সকাল ১০টায় কোরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে কলেজ মিলনায়তনে এই সভা শুরু হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন কলেজের অধ্যক্ষ মজিবর রহমান। সভায় কলেজ গভর্নিং বডির সদস্য ইউনুস আলী, আইয়ুব আলী, কলেজের অধ্যাপক আতাউর রহমান সান্নান, নাজিম উদ্দিন, আবদুর রাজ্জাক সরকার, আবদুল হান্নান প্রমূখ বক্তব্য দেন। পরে বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের সদস্যদের মঙ্গল কামনা করে দোয়া করা হয়। এরপর শিক্ষার্থীদের মধ্যে বিতরণ করা হয় মিস্টি।
ইসলামিক ফাউন্ডেশন : জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৮তম জন্ম দিবস ও জাতীয় শিশু দিবস উদযাপন উপলক্ষে ইসলামিক ফাউন্ডেশন রাজশাহীতে র‌্যালি, ক্বিরাত, হামদ-নাত, কুইজ ও রচনা প্রতিযোগিতা এবং আলোচনা সভা, মিলাদ ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করে। রাজশাহী বিভাগীয় কার্যালয়ের পরিচালক মাহাবুব আলমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ। বিশেষ অতিথি ছিলেন ইসলামিক ফাউন্ডেশনের রাজশাহী বিভাগীয় কার্যালয়ের উপ-পরিচালক একেএম মনিরুল ইসলাম।
কমেলা হক ডিগ্রি কলেজ: দিবসটি উপলক্ষে কমেলা হক ডিগ্রি কলেজের শিক্ষক শিক্ষার্থী ও কর্মচারিদের সমন্বয়ে র‌্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে উপস্থিত ছিলেন, প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ মহসিন আলী, সহকারি অধ্যাপক আনিকা ফারজানা, একরামুল হক, আয়নাল হক, প্রভাষক একেএম নূরুজ্জামান, রেখা রাণী সাহা প্রমূখ।
রাজশাহী চেম্বার অব কমার্স : দিবসটি উপলক্ষে রাজশাহী চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রির উদ্যেগে চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়। চেম্বার সভাপতি মনিরুজ্জামানের সভাপতিত্বে এসময় উপস্থিত ছিলেন, নগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন, সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকার, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ প্রমুখ।
হাউজিং এস্টেট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়: দিবসটি উপলক্ষে হাউজিং এস্টেট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের উদ্যোগে চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক দফতরের সহ পরিদর্শক সাইফুল ইসলাম ও জেলা শিক্ষা অফিসের সহ পরিদর্শক রাবেকা খাতুন প্রমুখ।
ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন : দিবসটি উপলক্ষে ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনের উদ্যোগে আইইবি রাজশাহী কেন্দ্রের চিত্রাঙ্কন ও রচনা প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এসময় উপস্থিত ছিলেন, কেন্দ্রের চেয়ারম্যান প্রকৌ. ফিরোজ হোসেন, ভাইস চেয়ারম্যান অধ্যাপক শামীমুর রহমান, নিজামুল হক প্রমুখ।
চারুকলা মহাবিদ্যালয়: দিবসটি উপলক্ষে রাজশাহী চারুকলা মহাবিদালয়ের উদ্যোগে আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। এতে উপস্থিত ছিলেন, অধ্যক্ষ রেজাউল ইসলাম, শিক্ষক ড. ইমরুল কায়েস, রফিকুল ইসলাম, আখেরুল ইসলাম, আব্দুস সাত্তার প্রমুখ।
রাজশাহী কলেজ: দিবসটি উপলক্ষে রাজশাহী কলেজের উদ্যোগে র‌্যালি ও আলোচনা সভার আয়োজন করে। এসময় উপস্থিত ছিলেন, কলেজ অধ্যক্ষ প্রফেসর হবিবুর রহমান, উপাধ্যক্ষ আল ফারুক চৌধুরী, বিভাগীয় প্রধান ইয়াকুব আলী প্রমুখ।
মসজিদ মিশন অ্যাকাডেমি: দিবসটি উপলক্ষে মসজিদ মিশন অ্যাকাডেমির উদ্যেগে আলোচনা সভা, রচনা ও চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন, প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ আকবর আলী, সাবেক অধ্যক্ষ এনামুল হক, ইনচার্জ আব্দুস সাত্তার প্রমুখ।
মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন মঞ্চ: দিবসটি উপলক্ষে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তাবায়ন মঞ্চ রাজশাহী মহানগর কমিটির উদ্যেগে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন, কমিটির সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা হাকিম আতাউর রহমান, মুক্তিযোদ্ধা আবুল কালাম আজাদ, নুরুল ইসলাম মতিন প্রমুখ।
উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী: দিবসটি উপলক্ষে উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী রাজশাহী জেলা সংসদের উদ্যোগে আলোচনা সভা ও আবৃত্তি পরিবেশনার আয়োজন করা হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন, সংগঠনের সহসভাপতি রাজকুমার সরকার, অধ্যক্ষ শাফিকুর রহমান বাদশা প্রমুখ।
রাজশাহী মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজ : দিবসটি রাজশাহী মডেল স্কুল এন্ড কলেজে আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠান এর আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, বিভাগীয় কমিশনার নূর-উর-রহমান। তিনি নিজ হাতে কেক কেটে ছাত্রদের মাঝে কেক বিতরণ করেন ও বিজয়ী শিক্ষার্থীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন। বক্তব্যে তিনি বলেন, ২০৪১ সালের মধ্যেই বাংলাদেশকে একটি উন্নত দেশে পরিনত করার মত যোগ্য করে আজকের শিশুদের গড়ে তুলতে হবে। অনুষ্ঠানের সভাপতি ও অধ্যক্ষ হাবিবুর রহমান তার বক্তব্যে বঙ্গবন্ধুর রাষ্ট্রদর্শে তার শিক্ষার্থীদের গড়ে তোলার দৃঢ় আশাবাদ ব্যক্ত করেন।
বঙ্গবন্ধু মেডিকেল টেকনোলজিস্ট পরিষদ : দিবসটি উপলক্ষে পরিষদের পক্ষ থেকে লক্ষ্মীপুর গোলচত্বরে স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচির আয়োজন করা হয়। রক্তদান কর্মসূচির উদ্বোধন করেন, সংরক্ষিত নারী আসনের সাংসদ অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি বেগম আখতার জাহান। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোহা. আসাদুজ্জামান, রাজশাহী জেলা আওয়ামীলীগের উপ-দপ্তর সম্পাদক শরিফুল ইসলাম, রাজশাহী বিভাগের স্বাস্থ্য পরিচালক ডা. আশিস কুমার সাহা। কর্মসূচিতে প্রায় শতাধিক রক্তদাতা স্বেচ্ছায় রক্তদান করেন। বিএমটিপি রাজশাহী জেলার সভাপতি রবিউল ইসলাম সাধারণ সম্পাদক জি এ ফয়সাল ও সিনিয়র সভাপতি আব্দুল ওয়াহেদ-এর সহযোগিতায় রক্তদান কর্মসূচির সার্বিক তত্ত্বাবধান করেন বঙ্গবন্ধু মেডিকেল টেকনোলজিস্ট কেন্দ্রীয় পরিষদের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম বেলাল।
রাজশাহী আনাসার ভিডিপি : বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনী রাজশাহী রেঞ্জ ও জেলা সদর জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মবার্ষিকী ও শিশু দিবস উপলক্ষে বিভিন্ন কার্যক্রমের আয়োজন করে। দিবসটি উপলক্ষে ভোরে ফজর নামাজের পর জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান রুহের মাগফেরাত কামনায় এবং জাতির শান্তি, সমৃদ্ধি ও অগ্রগতি, মুক্তিযুদ্ধে শহিদদের আত্মার শান্তি এবং আনসার ও ভিডিপির অগ্রগতি কামনা করে বিশেষ দোয়া ও মোনাজাত করা হয়।
মোনাজাত শেষে তবারক বিতরণ করা হয়। সকাল ১০টায় আনসার ভিডিপি সম্মেলন কক্ষে সতীর্থ, এসো সত্যাশ্রয়ে : জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমান বিষয়ে প্রামাণ্য চিত্র প্রদর্শিত হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, রাজশাহী রেঞ্জ পরিচালক পবিত্র কুমার সাহা, জেলা কমান্ড্যান্ট আশরাফুল আলম, থানা প্রশিক্ষক মেসবাউল হক, হামিদা খাতুন, আলেয়া বেগমসহ ব্যাটালিয়ন আনসার ও সাধারণ আনসার সদস্যবৃন্দ।
নগর ছাত্রলীগ: বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মদিন উপলক্ষে নগর ছাত্রলীগ শুক্রবার সকালেনগর আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের স্বাধীনতা চত্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি জ্ঞাপন করে। সকাল সাড়ে ১০টায় নগর আওয়ামী লীগ আয়োজিত মিলাদ মাহফিলে যোগদান করে এবং বাদ জুম্মা রাজশাহী কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ সাহেববাজার জিরোপয়েন্টে দোয়া মাহফিল আয়োজন করে। এতেু উপস্থিত ছিলেন, নগর আওয়ামী লীগ সভাপতি এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন, সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকার, নগর ছাত্রলীগ সভাপতি রকি কুমার ঘোষ, সাধারণ সম্পাদক মাহমুদ হাসান রাজিব সহ নেতৃবৃন্দ।
সূর্যকণা উচ্চ বিদ্যালয় : দিবসটি উপলক্ষে সকালে সুর্যকণা উচ্চ বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, রাজশাহী সিটি করপোরেশনের দায়িত্বপ্রাপ্ত মেয়র নিযাম উল আযীম। এ সময় বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নজরুল ইসলাম, আঞ্চলিক শিক্ষা অফিসের গবেষণা কর্মকর্তা সিরাজুল হক, সহকারী শিক্ষক আঞ্জুমান আরা শোভাসহ ও বিদ্যালয়ের শিক্ষক, অভিভাবক ও শিক্ষার্থীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
ইসলামী ব্যাংক মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল: এ দিবসটি উপলক্ষে ‘বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন বাংলাদেশের খুশির দিন’ স্লোগানকে সামনে রেখে ইসলামী ব্যাংক মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল (নওদাপাড়া) রাজশাহীর উদ্যোগে মা ও শিশু উৎসব, দোয়ার মাহফিল ও হাসপাতালে ভর্তিকৃত রোগীদের মাঝে উন্নত মানের খাবার বিতরন করা হয়। হাসপাতালের ডাইরেক্টর প্রফেসর ডাঃ মো. নজরুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন, হাসপাতালের ডেপুটি ডাইরেক্টর ডা. মোহা. আল মামুন-আর রশীদ, ইসলামী ব্যাংক মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের শিশু বিভাগের অধ্যাপক ও বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ডা. মোঃ ইকবাল বারী, ইসলামী ব্যাংক মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের শিশু বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. মফিজুল ইসলাম। ইসলামী ব্যাংক হাসপাতালের গাইনী কনসালটেন্ট ডা. হাওয়া বেগম সিদ্দিকা, রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার (পূর্ব) অফিসের সাব ইনসপেক্টর শাহ আলম সরকার। হাসপাতালের সিনিয়র অফিসার ও প্রশাসনিক ইনচার্জ মোঃ সাইফুল আলম, প্রশাসনিক কর্মকর্তা আতিকুল হক আকন্দ সোহেল।
মেট্রোপলিটন কলেজ: এ দিসবটি উপলক্ষে কলেজের মিলনায়তনে আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়। সভা সভাপতিত্ব করেন, কলেজে অধ্যক্ষ জুলফিকার আহমেদ। আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন, উপাধ্যক্ষ সাইফুর রহমান, সহকারী অধ্যাপক মাহবুবা ইয়াসমীন, প্রভাষক বিধান চন্দ্র সরকার, বজলুর রহমান প্রামানিক. মোহা. জিল্লার রহমানসহ শিক্ষার্থীরা।
সরকারি পিএন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়: এ দিসবটি উপলক্ষে আলোচনাসভা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। পরে শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে চিত্রাংকন, কবিদা আবৃতিতে প্রথম,দ্বিতীয়, তৃতীয় স্থন অধিকারকারীদের পুরস্কার প্রদান করা হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন, বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক তৌহিদা আরা। এসময় বঙ্গবন্ধুর আত্মার মাগফেরাত কামনা করা হয়।
ইলা মিত্র শিল্পী সংঘ: এ দিসবটি উপলক্ষে কার্যালয়ে আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন, সংগঠনের সভাপতি এসএম আবু বকর। আলোচনা করেন, সহসভাপতি সেলিম রেজা প্রমুখ।
হামদর্দ বানেশ্বর শাখা : এ দিসবটি উপলক্ষে মেডিকেল ক্যাম্প ও বিনামূশ্যে ঔষধ বিতরণ করা হয়েছে। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন, প্রেসিডিয়াম সদস্য কেন্দ্রীয় কমিটি বাংলাদেশ আওয়ামী সাংস্কৃতিক লীগ ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ওবাইদুর রহমান। এসময় উপস্থিত ছিলেন, হামদর্দ বানেশ্বর শাখার শাখা ব্যবস্থাপক মো. আরিফ আলী, সহকারী মেডিকেল অফিসার হাকীম মো. ইউসুফ আলী প্রমুখ।
রেশম বোর্ড এমপ্লয়ীজ লীগ : এ দিসবটি উপলক্ষে বঙ্গবদ্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পুস্তবক অর্পণ করা হয়। আবু সেলিম হোসেনের সভাপতিত্বে এতে বক্তব্য দেন, কেন্দ্রীয় সভাপতি আবু সেলিম ও সাধারণ সম্পাদক শামছুর হক, যুগ্ম সম্পাদক রুবেল , অর্থ সম্পাদক হেদায়েতুলাহ, প্রচার সম্পাদক কিউ এম আফজালুর রহমান প্রমুখ। এসময় বঙ্গবন্ধুর আত্মার মাগফেরাত কামনা করা হয়।
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় নাটোর : এ দিসবটি উপলক্ষে আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিষ্ট্রার ড. মো. সোলায়মানের সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. শাহজাহান।
নিউ গভ. ডিগ্রি কলেজ: দিসবটি উপলক্ষে আলোচনাসভা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, পুরস্কার বিতরণ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। উপাধ্যকষ অধ্যাপক হাবিবুর রহমানের সভপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন, অধ্যক্ষ অধ্যাপক এসএম জার্জিস কাদির। আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন,উদডাপন কমিটির আহ্বায়ক ড. শিখা সরকার এবং পরিষদের সম্পাদক তানভিরুল হক, বাংলা বিভাগের অধ্যাপক ড. সেরাজ উদ্দীন। দোয়া পরিচালনা করেন, অর্থনীতি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড. আবদুল মালেক প্রমুখ।
মেহেরচণ্ডী উচ্চ বিদ্যালয়: দিসবটি উপলক্ষে জাতীয় পকাতা উত্তোলন ও আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। পরে শিক্ষার্থীরা রচনা ও চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতায় দুইট গ্রুপে অনুষ্ঠিত হয়। ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণি ‘ক’ গ্রুপ ও নবম থেকে দশম শ্রেণি ‘খ’ গ্রুপ। প্রধান শিক্ষক শফিকুল ইসলাম বাচ্চুর সভাপতিত্বে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
প্রগতিশীল নাগরিক সংহতি: এ দিবসটি উপলক্ষে সন্ধ্যায় নগরীরর নিউমার্কেটস্থ পুস্প ষ্টুডিওর ¯্নপে রুমে অনুষ্ঠিত হয়। প্রগতিশীল নাগরিক জোটের যুগ্ম আহবায়ক মুক্তিযোদ্বা আলী আর্সলান অপুর সভাপতিত্বে সভায় আলোচনায় অংশ নেন, সংগঠনের সদস্য সচিব কলাম লেখক শাহ মো. জিয়াউদ্দিন, যুগ্ম সদস্য সচিব শিল্পী আজমল সাচ্চু, কার্যকরি সদস্য প্রাক্তন ইউপি চেয়ারম্যান সাইফুল হক ফাক্কার, মো. হাবিুবুর রহমান তুহিন, মুক্তিযোদ্বা রণজিৎ বিশ্বাস, কেএম রেজাউল করিম খোকন, মমিনুল ইসলাম বিপু প্রমুখ।
বশিরাবাদ দাওয়াতুল ইসলাম আলিম মাদ্রাসা: এ দিবসটি উপলক্ষে আলোচনাসভা ও দোয়া অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন, মাদরাসার অধ্যক্ষ মাওলানা মোহাম্মদ ইয়াহিয়া। প্রধান অতিথি ছিলেন, দাওয়াতুল ইসলাম কারীগরী কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ ডা. মো. ইব্রাহিম খলীল। বিশেষ অতিথি ছিলেন, পরিচালনা কমিটির সদস্য মো. ইমরান হোসেন, অভিভাবক ইউসুফ আলী প্রমুখ। অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন, মাদরাসার শিক্ষক মাওলানা আরিফুল ইসলাম, মাও. সাইদুল ইসলাম, মাওলানা কোবাদ আলী, মাও সোলায়মান কবির, মাওলানা আমির হোসেনসহ সকল শিক্ষক, কর্মচারী ও শিক্ষার্থীবৃন্দ।
জাতীয় তরুণ সংঘ: জেলা ও বিভাগীয় কার্যালয়ে বঙ্গবন্ধুর আত্নার মাগফিরাত কামনা করে দোয়া মিলাদ অনুষ্ঠিত হয়। প্রধান অতিথি ছিলেন, জাতীয় তরুণ সংঘ বিভাগ ও জেলা সমন্বয়কারী ও সভাপতি ওয়াদুদ-উল-মো. তাকাদ্দাছ (কাজল)। বিশেষ অতিথি ছিলেন, জাতীয় তরুণ সংঘ কমিউনিটি প্যারামেডিকেল ট্রেনিং সেন্টারের পরিচালক মোসা. রুবীনা পারভিন। আরো উপস্থিত ছিলেন, প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক ডা. আফতাব উদ্দীন আহম্মেদ, প্রভাষক মো. মাহাফুজুল হক ও উক্ত প্রতিষ্ঠানের সকল শিক্ষার্থীবৃন্দ প্রতিষ্ঠানের প্যাথলজি শিক্ষক মো. মাহাফুজুল হক। উক্ত মিলাদ ও দোওয়া মাহফিল অনুষ্ঠানের সার্বিক দায়িত্ব পালন করেন, জাতীয় তরুণ সংঘ জেলা সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট এএসএম হেলাল উদ্দীন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ