বঙ্গবন্ধু জাতীয় কৃষি পুরস্কার পেলেন গোদাগাড়ীর আদরী মার্ডি

আপডেট: জুলাই ২০, ২০১৭, ১:০৫ অপরাহ্ণ

গোদাগাড়ী প্রতিনিধি


নিজের খেত পরিচর্যায় ব্যস্ত জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত আদরী মার্ডি-সোনার দেশ

কৃষিতে বিশেষ অবদান রাখায় বঙ্গবন্ধু জাতীয় কৃষি পুরস্কার (রোপ্য পদক) পেয়েছেন নারী কৃষক আদরী মার্ডি। গত রোববার জাতীয় কৃষি ইন্সটিটিউট মিলনায়তনে আদরী মার্ডির হাতে এ পুরস্কার তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার রিশিকুল ইউনিয়নের নিমঘুটু পাথরঘাটা গ্রামের কংগ্রেস টুডুর স্ত্রী আদরী মার্ডি গ্রীষ্মকালীন শাকসবজি চাষ, ফসলচাষে জৈব সার ব্যবহার ও আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে কৃষি অভাবনীয় সাফল্য পেয়েছেন। স্বামী-স্ত্রী দীর্ঘদিন ধরে অন্যের জমিতে কৃষি শ্রমিক হিসেবে কাজ করলেও অভাব অনটন লেগেই থাকতো। এক পর্যায়ে জমি বর্গা নিয়ে গ্রীষ্মকালীন শিম চাষ শুরু করে। পাশাপাশি বাড়িতে কেঁচো সার উৎপাদন শুরু করে। নিজের ফসলি জমিতে কেঁচো সার ব্যবহারের পাশাপাশি অন্যদেরকেও ব্যবহারে উৎসাহিত করেন। বাণিজ্যিকভাবে কেঁচো সার ও বিভিন্ন ফসল চাষ করে আর্থিকভাবে স্বাবলম্বী হয় আদরী মার্ডি। নিজে এক বিঘা জমি ক্রয়ের সঙ্গে নিজের বসত বাড়িটি তৈরি করেছে সুন্দরভাবে। এখন আদরী মার্ডি নিজের ক্রয়কৃত জমিতে ফসল চাষের সঙ্গে আরো জমি বর্গা নিয়ে বাণিজ্যিকভাবে ধান, গম ও শাক সব্জির চাষ করে কৃষি শ্রমিক থেকে একন আদরী মার্ডি একজন আদর্শ কৃষক।
বঙ্গবন্ধু জাতীয় কৃষি পুরস্কার পাওয়ায় আদরী মার্ডি সাবেক গোদাগাড়ী কৃষি কর্মকর্তা ড. সাইফুল ইসলাম, মোজদার হোসেন, বর্তমান কৃষি অফিসার তৌফিকুর রহমানসহ উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা অতনু সরকার, সাংবাদিক আলমগীর কবির তোতার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন।
এ বিষয়ে গোদাগাড়ী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা তৌফিকুর রহমান বলেন, আদরী মার্ডি কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর থেকে প্রশিক্ষণ নিয়ে নিজের জমিতে ফসল চাষের পাশাপাশি এ অঞ্চলের অন্য কৃষকদের সহযোগিতা করে আসছে। এ আদর্শ কৃষকের অবদানে গোদাগাড়ী কৃষি ব্যবস্থা সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। আদরী মার্ডির মতো গোদাগাড়ীতে আরো অনেক নারী কৃষক রয়েছে। তারাও সফল হয়ে বঙ্গবন্ধু জাতীয় কৃষি পুরস্কার পাবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।