বঙ্গবন্ধু পরিষদের আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত, ইসরায়েলী গোয়েন্দা সংস্থাকে ব্যবহার করে বিএনপি ক্ষমতায় আসার চেষ্টা করছে : রাবি ভিসি

আপডেট: সেপ্টেম্বর ২২, ২০২১, ১০:৩৬ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক:


‘ইসরায়েলী গোয়েন্দা সংস্থাকে ব্যবহার করে বিএনপি ক্ষমতায় আসার চেষ্টা করছেদ। এ বিষয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কাছে তথ্য-প্রমাণও রয়েছে। এছাড়াও তারা বাংলাদেশকে একটি ধর্মান্ধ মুসলিম দেশ হিসেবে বিশ্বে উপস্থাপন করতে চাইছে। বিএনপি ইসরাইলকে আশ্বস্ত করার চেষ্টা করছে যে, তারা ক্ষমতায় গেলে দেশটির সঙ্গে সম্পর্কের উন্নতি হবে। এ সংক্রান্ত কাজে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম আল জাজিরাকে ব্যবহার করা হচ্ছে। বুধবার (২২ সেপ্টেম্বর) বিকেল ৪ টায় শাহমখদুম কলেজের সম্মেলন কক্ষে ‘বিএনপি-জামায়াতের নির্লজ্জ মিথ্যাচার ও অবৈধ ক্ষমতা দখলের পায়তারা’ শীর্ষক আলোচনা সভায় এসব কথা বলেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর গোলাম সাব্বির সাত্তার।

তিনি আরো বলেন, করোনা ভাইরাসে যখন স্তব্ধ পৃথিবী, ভবিষ্যত নিয়ে শঙ্কিত মানুষ ও জীবন নিয়ে উদ্বিগ্ন সবাই- ঠিক সেই সময় বিএনপি পাকিস্তানের গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই এর সঙ্গে অন্তত ২০টি বৈঠকের প্রমাণ পাওয়া গেছে। এমনকি তারা অপপ্রচার ও মিথ্যাচারের ধারাবাহিকতায় করোনা ভ্যাকসিন নিয়েও জনগণকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করেছিল। বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে মোকাবেলা করতে ব্যর্থ হয়ে ক্রমাগতভাবে ষড়যন্ত্রের পথ বেছে নিয়েছে দলটি। এছাড়াও পাকিস্তানি গোয়েন্দা সংস্থার সাথে তাদের যে দহরম-মহরম সম্পর্ক সেটা বহু পুরনো। জনসম্পৃক্ত কোনো কর্মসূচি না পেয়ে দলটির নেতাদের মিথ্যাচারের কেন্দ্রবিন্দু হচ্ছে প্রেস ব্রিফিং, বিদেশি কূটনীতিক ও সোশ্যাল মিডিয়া।

তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশকে ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে নিয়ে যাওয়া দলটি, দেশে ধ্বংসযজ্ঞের বদলে উন্নয়নের কর্মযজ্ঞ দেখছে। এছাড়াও পদ্মাসেতু, মেট্রোরেল, কর্ণফুলী নদীর গহ্বরে বঙ্গবন্ধু টানেলসহ বিভিন্ন মেগা প্রকল্প দেখে হতাশায় ভুগছে বিএনপির নেতাকর্মীরা। সেই জন্যই আবদুল গাফফার চৌধুরী বলেছিলেন, ‘বিএনপি ও তারেক রহমানের অপকর্মের ইতিহাস লিখতে গেলে একটি মহাভারত হবে’।

রাজশাহী মহানগর বঙ্গবন্ধু পরিষদের আয়োজনে আলোচনা সভায় রাজশাহী মহানগর বঙ্গবন্ধু পরিষদের সহসভাপতি প্রফেসর মো. নূরল আলম এর সভাপতিত্ব বক্তব্য রাখেন রাজশাহী মহানগর বঙ্গবন্ধু পরিষদের সাধারণ সম্পাদক আরিফুল হক কুমার, ড. আব্দুল মান্নান, প্রফেসর তরুণ কুমার সরকার, প্রফেসর তানভীরুল আলম। এছাড়াও মুক্ত আলোচনায় অংশ গ্রহণ করেন উপস্থিত সুধীবৃন্দ।

সভায় উপস্থিত বক্তারা বলেন, সম্প্রতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার কন্যা শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে একটি ষড়যন্ত্র চলছে। দেশ স্বাধীনের পর পাকিস্তানীরা চলে গিয়েছিল। কিন্তু তারা রেখে গিয়েছিল তাদের দোসরদের। তারাই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যা করেছি।

বক্তারা আরও বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যা করেই তারা থেমে যায়নি। তারা দেশ বিরোধী ষড়যন্ত্র করে যাচ্ছে। এই ষড়যন্ত্রকারীরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকেও হত্যা করার পরিকল্পনা নিয়েছিল। তারা ২০ বারের বেশি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যা করার চেষ্টা করেছে। দেশ যখন শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এগিয়ে যাচ্ছে তখনি একটি মহল নানা ধরণের মিথ্যাচার চালিয়ে যাচ্ছে। তারা দেশের উন্নয়ন নিয়ে অপপ্রচার করছে। তাদের এই ষড়যন্ত্র প্রতিরোধ করতে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে।