বছরের প্রথমদিন বই প্রদান যুগান্তকারী সাফল্য : পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী

আপডেট: এপ্রিল ১, ২০১৭, ১২:১৭ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম বলেছেন, একমাত্র শেখ হাসিনার সরকারের সময়ই বছরের প্রথম দিন উৎসব করে বই দেয়া হচ্ছে। আমাদের সময় জানুয়ারি, ফেব্রুয়ারি, মার্চ এমনকি এপ্রিলের দিকে একটা-দুইটা বই পেতাম। কিন্তু এখন বছরের প্রথমদিন দেশের লাখ লাখ শিশু-কিশোর শিক্ষার্থীর হাতে সরকারের বই তুলে দেয়া একটি যুগান্তকারী সাফল্য। আর এ সফলতা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিচক্ষণতার কারণেই সম্ভব হয়েছে। গতকাল শুক্রবার বেলা ১১টার দিকে নগরীর সিরোইল সরকারি উচ্চবিদ্যালয় চত্বরে সুবর্ণজয়ন্তী উৎসবের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
তিনি বলেন, বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। জনসংখ্যার বিচারে আমরা পৃথিবীর তরুণতম দেশ। এর ওপরে ভর করেই জননেত্রী শেখ হাসিনা এদেশকে মধ্যম আয়ের দেশ গড়ার ঘোষণা দিয়েছিলেন। ’৮৫ সালের দিকে আমরা ছিলাম দ্বিতীয় দরিদ্রতম দেশ। এখন আমরা পৃথিবীর ৪২তম অর্থনৈতিক শক্তিধর দেশ। অর্থনৈতিক এই অগ্রযাত্রাকে সম্মিলিতভাবে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে। এখন হরতাল ডেকে আর মানুষ পাওয়া যায়না। কারণ মানুষ বোঝে। তাই মানুষ হরতাল কলে জ্বালাও পোড়াও কলে ক্ষতি করার কথা চিন্তা না করে নিজেদের উন্নয়ন করার কথা চিন্তা করে এগিয়ে যাচ্ছে।
পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমরা ভুল সময়ে বেড়ে ওঠা প্রজন্ম। মহান স্বাধীনতার ইতিহাস আমাদের প্রজন্মকে জানতে দেয়া হয়নি। আমরা এখনও ব্যর্থ হচ্ছি স্বাধীনতা সংগ্রামে যারা শহিদ হয়েছেন তাদের সত্যিকারের ইতিহাস তুলে ধরতে। লাল-সবুজের পতাকা, বঙ্গবন্ধু, ত্রিশ লাখ শহিদ, অগনিত মুক্তিযোদ্ধা ও দুই লাখ মা-বোনের সম্ভ্রমের প্রতি শ্রদ্ধা-সম্মান জানাতে না পারলে মন্ত্রী, ভিসি বা কোন কিছু হয়েই লাভ নাই।
তিনি আরো বলেন, দেশের অগ্রযাত্রায় বিজ্ঞানের গুরুত্ব দিতে হবে। প্রধানমন্ত্রীর সঠিক দিক-নির্দেশনায় এখন বিনিয়োগ আসছে। এদেশে বড় বড় শিল্প-কারখানা গড়ে উঠবে। সামনের দিনে বিজ্ঞানপ্রসুত ফলাফল থেকে গবেষণা হবে এবং নতুন নতুন জিনিস আবিষ্কার হবে। বিজ্ঞানের ছাত্ররাই এগুলো করবে। আমি তোমাদের বলবো বিজ্ঞানকে প্রথম অগ্রাধিকার দিয়ে তোমরা সামনের দিকে এগিয়ে যাবে।
রজতজয়ন্তী উদ্যাপন কমিটির আহ্বায়ক রুয়েট উপাচার্য অধ্যাপক রফিকুল আলম বেগের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপউপাচার্য অধ্যাপক চৌধুরী সারওয়ার জাহান, রাজশাহী সিটি করপোরেশনের ভারপ্রাপ্ত মেয়র নিজাম-উল-আযীম, আমান গ্রুপের চেয়ারম্যান ও ম্যানেজিং ডিরেক্টর রফিকুল ইসলাম, আইসিবি’র ম্যানেজিং ডিরেক্টর ইফতেখার-উজ-জামান, সিরোইল সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবদুর রশীদ প্রমুখ।
পরে বেলা ১২টার দিকে সহ¯্রাধিক সাবেক-বর্তমান শিক্ষার্থী ও অতিথিদের নিয়ে একটি বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা নগরীর বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে আবার বিদ্যালয়ে এসে শেষ হয়। এর আগে সকাল ৯টায় অতিথিরা স্কুল চত্বরে রজতজয়ন্তী উৎসবের উদ্বোধন করেন। দুই দিনব্যাপী এই উৎসবের প্রথম দিনে বিভিন্ন ব্যাচের শিক্ষার্থীদের স্মৃতিচারণ, মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও কনসার্ট অনুষ্ঠিত হয়। আজ শনিবার স্মৃতিচারণ ও আড্ডার মধ্য দিয়ে উৎসবের সমাপনী অনুষ্ঠিত হবে।
উল্লেখ্য, রাজশাহীর ঐতিহ্যবাহী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান হিসেবে সিরোইল সরকারি উচ্চবিদ্যালয় গত পাঁচ দশক ধরে শিক্ষা বিস্তারের ক্ষেত্রে অগ্রণী ভূমিকা পালন করছে। এই বিদ্যালয়ের প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের অনেকেই দেশনন্দিত শিক্ষাবিদ, বুদ্ধিজীবী, শিল্পপতিসহ বিভিন্ন সেক্টরে সাফল্যের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করছেন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ