বড়াইগ্রামে স্বতন্ত্র প্রার্থীর কর্মীকে মারপিট

আপডেট: জানুয়ারি ৩১, ২০২৪, ২:১৮ অপরাহ্ণ


বড়াইগ্রাম (নাটোর) প্রতিনিধি :
নাটোর-৪ আসনে (বড়াইগ্রাম-গুরুদাসপুর) স্বতন্ত্র প্রার্থীর কর্মী শরিফুল ইসলামকে (২৭) মারপিট করে আহত করা হয়েছে। মঙ্গলবার (৩০ জানুয়ারি) রাতে জেলার বড়াইগ্রাম উপজেলার জোনাইল ইউনিয়নের জোনাইল বাজারে এ হামলার ঘটনা ঘটে।

অভিযোগ রয়েছে জোনাইল ইউপি চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদের নাতি ও দিঘইর গ্রামের আফসার আলীর ছেলে সাদ্দাম হোসেনের (২৮) নেতৃত্বে ১০-১২ জন নৌকার কর্মিসমর্থকেরা এই হামলা চালিয়েছে। আহত শরিফুল ইসলামে ভাই আরিফ হোসেন বাদি হয়ে ১৫ জনকে আসামী করে বড়াইগ্রাম থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন। শরিফুল ইসলাম উপজেলার দিঘইর গ্রামের মৃত আলমাছ শেখের ছেলে ও জোনাইল ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি।

শরিফুল ইসলাম বলেন, আমি সংসদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী ও জেলা আ’লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক আসিফ আব্দুল্লাহ বিন কুদ্দুস শোভনের কর্মী ছিলাম। নির্বাচনে ডা. সিদ্দিকুর রহমান পাটোয়ারী নৌকা প্রতীক নিয়ে বিজয়ী হন। তখন থেকেই নৌকার কর্মী-সমর্থকেরা বিভিন্ন হুমকি-ধমকি দিয়ে আসছিলেন। তারই সূত্র ধরে মঙ্গলবার সন্ধ্যার পরে আমার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান মাছের আড়তে টাকা কালেকশন করছিলাম।

এ সময় দিঘইর গ্রামের আক্কাস আলীর ছেলে সাদ্দাম হোসেনের নেতৃত্বে ওই গ্রামের আক্কাস আলীর ছেলে ফরহাদ হোসেন (৪৫), আব্দুল মজিদের ছেলে ফরাদ হোসেন (২৫), আদু প্রামানিকের ছেলে সোহান হোসেন (২২), সাহার আলীর ছেলে সাগর আলীসহ (২৬) ১০-১২ জন লাঠিসোঁটা ও দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে আমার উপরে হামলা চালায়। দৌঁড়ে পালাতে চাইলে এক্কাবরের দোকানের সামনে আমাকে আটকে দিয়ে বেদম মারপিট করে। পরে স্থানীরা উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

ভাই আরিফুল ইসলাম বলেন, আমার ভাইয়ের সাথে তাদের কারো সাথে কোন শত্রুতা নেই। নির্বাচনে তাদের পক্ষে কাজ না করায় আমার ভাইকে মারপিট করা হয়েছে।
হামলার বিষয়ে জানতে চাইলে সাদ্দাম হোসেনের বলেন, এই বিষয়ে আমি কিছুই জানি না। টাকা চুরি করতে গিয়ে ধরা পরে মার খেয়ে আমাদের উপর দোষ চাপাচ্ছে।

বড়াইগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. ডলি রানী বলেন, শরিফুল ইসলাম নামে একজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তাঁদের শরীরে আঘাতে চিহ্ন রয়েছে।
বড়াইগ্রাম থানার ওসি (তদন্ত) সরল মুরমু জানান, ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। বর্তমানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। এ ঘটনায় লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।