বদলগাছীতে অস্বচ্ছল প্রতিবন্ধীদের ভাতায় ভাগ বসালেন ইউপি সদস্যরা

আপডেট: জুলাই ১০, ২০১৭, ১২:২১ পূর্বাহ্ণ

বদলগাছী প্রতিনিধি


নওগাঁর বদলগাছী উপজেলা বদলগাছী সদর ইউপির সদস্যদের বিরুদ্ধে অস্বচ্ছল প্রতিবন্ধীদের ভাতার টাকা কেটে রাখার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় গতকাল রোববার উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তার কাছে একটি লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে। উপজেলার সোহাসা গ্রামের আবু রায়হান নামে এক অভিভাবক এ অভিযোগটি করেছেন।
উপজেলা সমাজ সেবা কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, ২০১৬-১৭ অর্থবছরে অসচ্ছল প্রতিবন্ধী ভাতাভোগীর বর্ধিত কোঠায় বদলগাছী সদর ইউনিয়ন পরিষদের নয়টি ওয়ার্ডে মোট ৩০ জন প্রতিবন্ধীর চূড়ান্ত তালিকা অনুমোদন দেয়া হয়। গত বৃহস্পতিবার বদলগাছী সদর ইউপি কার্যালয় ও সমাজ সেবা কার্যালয় থেকে এক বছরের ভাতার টাকা বিতরণ করা হয়। বদলগাছী ইউপি কার্যালয়ে ২৬ জন আর সমাজ সেবা কার্যালয় থেকে চারজন ভাতাভোগীকে ভাতার টাকা বিতরণ করা হয়। সংশ্লিষ্ট ওর্য়াডের ইউপি সদস্যরা তাদের ওয়ার্ডের ভাতাভোগীদের হাতে ভাতার টাকা তুলে দেন।
ইউপি সদস্যরা ২৬ জন ভাতাভোগীকে সাত হাজার দুইশ টাকার পরির্বতে তিন হাজার ছয়শ টাকা করে দিয়েছেন। সমাজসেবা কার্যালয় থেকে দেয়া চারজন ভাতাভোগী সাত হাজার দুইশ টাকা করে পেয়েছেন। এরপর ২৬ জন ভাতাভোগীর টাকা কেটে রাখার ঘটনাটি জানাজানি হয়। ইউপি সদস্যরা ভাতার কার্ড নষ্ট হওয়ার অজুহাত দেখিয়ে কৌশলে ২৬ জন ভাতাভোগীর কাছ থেকে ভাতার কার্ড তাদের কাছে রাখেন।
বদলগাছী উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা তারিকুল ইসলাম গতকাল রোববার বলেন, ইউপি সদস্যদের ২৬ জন অস্বচ্ছল প্রতিবন্ধীর ভাতার টাকা কেটে রাখার সত্যতা পাওয়া গেছে। এ ঘটনার পর কয়েক জন ইউপি সদস্য কেটে রাখা টাকা ফেরতও দিয়েছেন। ভাতাভোগীরা সোনালী ব্যাংকের নিজ নিজ হিসাব নম্বর থেকে উত্তোলন করার কথা ছিল। কিন্ত ইউপি সদস্যরা প্রতিবন্ধীদের কাছ থেকে ভাতার কার্ড নিয়ে ব্যাংক থেকে টাকা উত্তোলন করেছেন। ইউপি সদস্যদের হাতে প্রতিবন্ধীদের ভাতার টাকা কীভাবে গেল তা জানতে সংশ্লিষ্ট ব্যাংকের ব্যবস্থাপককে চিঠি দেয়া হচ্ছে।
জানতে চাইলে বদলগাছী সোনালী ব্যাংকের ব্যবস্থাপক মিজানুর রহমান বলেন, প্রতিবন্ধী ভাতাভোগীরা অসুস্থ থাকার কথা বলে ইউপি সদস্যরা ব্যাংক থেকে টাকা নিয়ে গেছেন। তখন সংশ্লিষ্ট ভাতাভোগীর অনেকেই ইউপি সদস্যদের সঙ্গে ছিলেন। বদলগাছী ইউপির সদস্য কালিদাস বলেন, প্রতিবন্ধীদের ভাতার টাকা বিতরণ করতে ভুল হয়েছিল। পরে কেটে রাখা টাকা ফেরত দেয়া হয়েছে।
এ বিষয়ে বদলগাছী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুুস ছালাম মন্ডল জানান, বিষয়টি আমি জানতাম না। পরে জানার সঙ্গে সঙ্গে ওই দিনই টাকা ফেরত দিয়ে সমাধান করে দিয়েছি।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ