বদলগাছীতে জলাবদ্ধতায় ৫শো বিঘা জমির চাষাবাদ ব্যাহত

আপডেট: জুলাই ১১, ২০২১, ৯:৩৬ অপরাহ্ণ

বদলগাছী (নওগা) প্রতিনিধি:


নওগাঁরব দলগাছীতে পানি নিস্কাশনের পথ বন্ধ হওয়ায় আকাশের বৃষ্টির পানি জমে প্রায় দেড়শো বিঘা জমির পাট, পটল ও মরিচ খেত নষ্ট। অসময়ে ক্ষতির মুখে পড়ে কৃষকরা হতাশ হয়ে পড়ে। জলাবদ্ধতার সমস্যাটি সৃষ্টি হয়েছে উপজেলার বিলাশবাড়ী ইউনিয়নের ভগবানপুর মাঠে। পানি নিষ্কাশনের পথ বের করা নিয়ে গ্রামের মধ্যে দুটি গ্রুপের সৃষ্টি হয়। যে কোন সময় সংঘাত সৃষ্টির আশংকায় উদ্বিগ্ন এলাকাবাসী।
নওগাাঁ জেলার পলি এলাকা ও সব্জি চাষের বিখ্যাত এলাকা হিসাবে পরিচিত বদলগাছী উপজেলা। এই উপজেলার ভগবানপুর, কাশিমালা, মহেশপুর এলাকার লোকজন অতিরিক্ত, পাট, পটল, বেগুন, মরিচ চাষ করেন। ভগবানপুর মাঠে ৫/৬ শত বিঘা জমির জলাবদ্ধতার কারণে চাষাবাদ ব্যাহত হয়ে পড়েছে। অতি বৃষ্টির কারণে প্রায় দেড়শত বিঘা জমির পাট, পটল ও মরিচ ক্ষেত শুকিয়ে যাচ্ছে। আবার অনেক কৃষক জমির চর্তুদিকে বাঁধ দিয়ে পানি সেচ দিয়ে পটল ক্ষেত রক্ষা করেছে। সরেজমিনে তথ্য সংগ্রহকালে দেখা যায়, ভগবানপুর গ্রামের আফজাল হোসেন অপ্রাপ্তবয়স্ক পাট কাটছে। জানতে চাইলে তিনি জানান, পানি জমে পাট শুকিয়ে উঠেছে, তাই আগাম কাটছি। ঐ গ্রামের রশিদুল, ময়েন ও হাকিম জানান, পাট মরে যাচ্ছে তাই তারাও পাট কেটে ফেলেছে পাটের ফলন ও আর্থিকভাবে তারা ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত। ফরহাদ জানায়, তার ১ বিঘা ৫ কাঠা জমির পটল ক্ষেত নষ্ট হয়েছে। এর মধ্যে সেচ দিয়ে ৮ কাঠা পটল রক্ষা করেছে। প্রায় দেড় শতাধিক বিঘা জমির পটল ও মরিচ ক্ষেতের অধিকাংশ জমির পটল ও মরিচের গাছ শুকিয়ে উঠেছে । ঘটনাস্থল উপজেলা চেয়ারম্যান সামসুল আলম খান ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আলপনা ইয়াসমিন পরিদর্শন করেছে বলে স্থানীয় লোকজন জানায়। স্থানীয়ভাবে পানি নিস্কাশনের পথ বের করা নিয়ে গ্রামে দুটি গ্রুপের সৃষ্টি হয়। গ্রামে মসজিদ পর্যন্ত ভিন্ন হয়ে যায়। গ্রামবাসী জানায়, গত পহেলা জুলাই কলিপাড়ার দিকে রাস্তা কেটে পাইপ দিয়ে সাময়িকভাবে পানি নিষ্কাশনের পথ বের করলে মাঠের পূর্ব দিকে পাট ও পটল ক্ষেত হুমকির মুখে পড়ে। এ নিয়ে অল্পের জন্য সংঘর্ষ থেকে রক্ষা পায় গ্রামবাসী। ভগবানপুর গ্রামের আমজাদ মাষ্টারসহ অর্ধশতাধিক গ্রামবাসী জানায়, মাঠের পানি কলিপাড়ার ভিতর ১ টি পুকুরের উপর দিয়ে নেমে যেত। ১৫ বছর পূর্বে সাবেক মেম্বার এবাদুল হক পুকুরের মুখ বন্ধ করে দিলে মাঠে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। জলাবদ্ধতার সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে ভগবানপুর গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা আহসানুল কবির ও মাসুদ হোসাইন শাহীন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর সম্প্রতি লিখিত অভিযোগ করলে তদন্তের দায়িত্ব পেয়ে উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা ইবনে সাব্বির আহম্মেদ রোববার সকালে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এ বিষয়ে যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা জানান, আমি জায়গাটি পরিদর্শন করেছি। আগে যে দিক দিয়ে পানি যেত সে পথ বন্ধ হয়ে গেছে। সেখানে পানি নিষ্কাশনের জন্য একটি পাকা ড্রেন প্রয়োজন এবং ড্রেনের উপর মাঝে মাঝে দু একটি কালভার্ট লাগবে তাহলে লোকজন ক্ষতিগ্রস্ত হবে না।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ