বদলা নিয়ে শীর্ষে রাজশাহী

আপডেট: জানুয়ারি ৩, ২০২০, ১:১১ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


ঢাকা পর্ব যেখানে শেষ হয়েছিল সিলেট পর্ব শুরু হল সেখান থেকেই। ঢাকায় শেষ ম্যাচে খেলেছিল রাজশাহী রয়্যালস ও রংপুর রেঞ্জার্স। সিলেট পর্ব শুরু হল এ দুই দলের লড়াই দিয়ে। ঢাকায় শেষ হাসি হেসেছিল রংপুর। সিলেটে রাজশাহী নিল বদলা। তাতে বিপিএলের পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে উঠে গেল দলটি।
৯ ম্যাচে ৬ জয় নিয়ে সবার উপরে রাজশাহী। সমান জয় চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সেরও। কিন্তু রান রেটে এগিয়ে থেকে রাজশাহী রয়েছে শীর্ষে। অন্যদিকে রংপুরের এটি ষষ্ঠ হার। প্লে’অফ প্রায় অনিশ্চিত হয়ে পড়ছে তাদের। শেষ তিন ম্যাচের তিনটিই তাদের জিততে হবে। পাশাপাশি তাকিয়ে থাকতে হবে অন্য দলগুলোর ম্যাচের দিকেও!
ঢাকার মতো সিলেটেও বিজয়ের পতাকা উড়ানোর সুযোগ ছিল রংপুরের। কিন্তু নিজেদের বাজে পারফরম্যান্সে সেই সুযোগটি হারিয়েছে তারা। টস হেরে আগে ব্যাট করতে নেমে রাজশাহী ৪ উইকেটে ১৭৯ রান তোলে। জবাবে রংপুরের ইনিংস থামে ৭ উইকেটে ১৪৯ রানে। ৩০ রানে হারে আরেকটি তিক্ত স্বাদ পেতে হল রংপুরকে।
বোলিংয়ে রংপুরের সবকিছুই ঠিকঠাক ছিল। ইনিংসের শেষ ওভারটিই গণ্ডগোল করে দেয়। ১৯ ওভার শেষে রাজশাহীর রান তখন ১৫৭। সেখানে শেষ ওভারে মুস্তাফিজ ব্যয় করে আসেন ২২ রান। এক লাফে রাজশাহীর রান ১৭৯। শেষ ওভারে গুরুত্বপূর্ণ ওই রানেই জয়ের স্বপ্ন বুনতে শুরু করে রাজশাহী।
ওই ওভারে ঝড় তুলে রবি বোপারা তোলেন ফিফটি। ২৯ বলে ডানহাতি ব্যাটসম্যান করেন ৫০ রান। এছাড়া দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৩৭ রান আসে শোয়েব মালিকের ব্যাট থেকে। ইনিংসের শুরুতে ৪.৫ ওভারে ৫১ রান পায় রাজশাহী। লিটনকে ১৯ রানে ফিরিয়ে মুস্তাফিজ প্রথম আক্রমণ করলেও আফিফ এগিয়ে যান আরেকপ্রান্তে। বাঁহাতি ওপেনার ১৭ বলে ২ চার ও ৩ ছক্কায় করেন ৩২ রান। এরপর মালিকের গুরুত্বপূর্ণ ইনিংস ও রবি বোপারার শেষ ঝড়ে বড় সংগ্রহ পায় রাজশাহী। প্রথমবারের মতো খেলতে নেমে নাওয়াজ ৯ বলে করেন ১৫ রান।
ব্যাটিংয়ে রংপুরের হয়ে গতকালও জ্বলে উঠতে ব্যর্থ শেন ওয়াটসন। দলকে ডুবিয়ে এ ওপেনার আউট হন ২ রানে। নাওয়াজের ঘূর্ণিতে স্ট্যাম্প হারান অসি তারকা। নাঈম গতকালও শুরুটা করেছিলেন দারুণভাবে। ২ চার ও ২ ছক্কায় মাঠ মাতিয়ে রাখেন। কিন্তু তাকে বেশিদূর যেতে দেননি মালিক। ডানহাতি অফস্পিনারের বলে বোপারার হাতে ক্যাচ দেন ২৭ রানে। মাঝে ডেলপোর্ট আউট হন ১৪ রানে।
চতুর্থ উইকেটে টম অ্যাবেল ও ফজলে রাব্বীর ৬৪ রানের জুটি আশা বাঁচিয়ে রাখে রংপুরের। কিন্তু নাওয়াজ ব্রেক থ্রু দিয়ে রাজশাহীকে আবার এগিয়ে নেন। ২৬ বলে ৩ চার ও ২ ছক্কায় ৩৪ রান করে রাব্বী আউট হন নওয়াজের বলে। অ্যাবেলের ব্যাট থেকে আসে ২৯ রান। শেষ দিকের ব্যাটসম্যানরা স্কোরবোর্ডে রান যোগ করে পরাজয়ের ব্যবধান কমিয়ে আনেন। বোলিংয়ে রাজশাহীর হয়ে ২টি করে উইকেট নেন নওয়াজ, মালিক ও কামরুল ইসলাম রাব্বী। ব্যাটিংয়ে দুর্দান্ত ইনিংস খেলায় ম্যাচ সেরার পুরস্কার জিতেছেন বোপারা।