বন্যায় বাংলাদেশ ভারত নেপালে ১২০০ জনের মৃত্যু

আপডেট: আগস্ট ২৮, ২০১৭, ১২:১৯ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


বাংলাদেশ, ভারত ও নেপালে এবারের চলমান ভয়াবহ বন্যায় ১ হাজার ২০০ জনের মৃত্যু হয়েছে। এসব দেশের বন্যাকবলিত ও বিপর্যস্ত অঞ্চলের মানুষের কাছে সহায়তা পৌঁছে দিতে এবং সেখানে উদ্ধার কার্যক্রম পরিচালনা করতে হিমশিম খাচ্ছে উদ্ধারকারীরা।
দক্ষিণ এশিয়ার এই তিন দেশে মৌসুমি বৃষ্টিপাতের কারণে প্রতিবছর কমবেশি বন্যা হয়ে থাকে। তবে আন্তর্জাতিক সহযোগিতামূলক সংস্থাগুলো বলছে, এবারের চিত্র বেশিই খারাপ। কয়েক হাজার গ্রাম যোগাযোগহীন হয়ে পড়েছে, লোকজনের মধ্যে প্রচ- খাদ্যাভাব দেখা দিয়েছে, পানীয় জলের তীব্র সংকট সৃষ্টি হয়েছে।
শনিবার ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বিমানে করে বিহারের বন্যা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করেছেন। এ রাজ্যের বন্যাকবলিতদের জন্য তিনি ৭৮ মিলিয়ন ডলার সহায়তা দেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন।
ভারতের পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্য বিহারের কর্মকর্তারা গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, গত কয়েক দিনের বন্যায় এ রাজ্যে ৩৭৯ জন মারা গেছে। প্লাবিত ঘরবাড়ি ছেড়ে হাজার হাজার মানুষ অস্থায়ী আশ্রয়শিবিরে উঠেছে।
ভারতের সবচেয়ে জনবহুল রাজ্য উত্তর প্রদেশে সাম্প্রতিক বন্যায় কমপক্ষে ৮৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। ২২ কোটি জনসংখ্যার এ রাজ্যের প্রায় অর্ধেক বন্যায় প্লাবিত হয়েছে।
উদ্ধারাভিযান ও ত্রাণকার্যক্রম পর্যবেক্ষণকারী ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা রাজন কুমার গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, গত মাসে বন্যাদুর্গত ছয় রাজ্যে ৮৫০ জনের মৃত্যু হয়েছে। তিনি বলেন, ‘দ্বিতীয় দফার বন্যায় আরো বেশি ক্ষয়ক্ষতি হবে। বন্যায় সরাসরি ক্ষতিগ্রস্ত লাখ লাখ মানুষের সাহায্যে দ্রুত পুনর্বাসন কার্যক্রম শুরু করতে হবে আমাদের।’
নেপালে সাম্প্রতিক বন্যায় ১৫০ জনের মৃত্যু হয়েছে। বসতবাড়ি ছাড়তে বাধ্য হয়েছে ৯০ হাজারের বেশি মানুষ। জাতিসংঘের মতে, নেপালে এক দশকের মধ্যে এটি সবচেয়ে ভয়াবহ বন্যা।
এবারের বন্যায় বাংলাদেশে প্রাণ হারিয়েছে কমপক্ষে ১৩৪ জন। প্রায় ৫৭ লাখ মানুষ বন্যাকবলিত হয়েছে।
তথ্যসূত্র : আলজাজিরা অনলাইন