বরেন্দ্র এলাকায় সেচ সাশ্রয়ী ফসলে ঝুঁকছে কৃষক নওগাঁয় রেকর্ড পরিমান গমের আবাদ ।। বাম্পার ফলনের আশা

আপডেট: মার্চ ১১, ২০১৭, ১২:৩০ পূর্বাহ্ণ

এম আর রকি, নওগাঁ



নওগাঁর বরেন্দ্র এলাকা সাপাহার পোরশা ও নিয়ামাতপুরে সেচ কম লাগে এমন ফসলের দিকে ঝুঁকছে কৃষকরা। ভালো বাজার দর আর কম খরচের ফলে গমের চাষ অধিক লাভজনক হয়েছে। ফলে চলতি বছর বরেন্দ্র এলাকায় রেকর্ড পরিমান জমিতে গমের আবাদ করেছে চাষিরা। এবার অনুকূল আবহাওয়া আর ভালো বীজ সরবরাহে গমের বাম্পার ফলন আশা করছে এখানকার কৃষকরা। গমের অধিক ফলন ও ভালো বাজার নিশ্চিতে করতে কাজ করছে কৃষি বিভাগ।
সমতল থেকে উচু হওয়ায় নওগাঁর বরেন্দ্র এলাকায় সেচ সংকটে অনেক জমি ফেলে রাখতো কৃষকরা। কিন্ত গত ৩-৪ বছর থেকে এসব জমিতে সেচ কম লাগে এমন ফসল ফলানোর জন্য কৃষকদের উৎসাহ যোগায় কৃষি বিভাগ। কম খরচ ও অথিক লাভ পাবে এমন জাতের বীজ সরকরাহ করে কৃষি বিভাগ। এর ফলে এবার রেকর্ড পরিমান জমিতে গমের চাষ করে কৃষকরা। এবার অনুকূল আবহাওয়া আর কোনো বালাই না থাকায় ভালো ফলনের আশা করছে বরেন্দ্র এলাকার কৃষকরা।
স্থানীয় পিছল ডাঙ্গা গ্রামের কৃষক আরমান আলী, শুকুর শেখ ও জাফর আলী জানান, আগে এসব এলাকার জমি ফেলে রাখা হতো। কারণ সেচ সুবিধা ছিলো না। গত ৩ বছর থেকে এখানে বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ কুপখনন করে দিয়েছে। ফলে গম রোপণের সময় সেখান থেকে অল্প পানি দিয়ে চাষ করা যাচ্ছে। এতে প্রতিবছর গমের আবাদ বাড়ছে এসব এলাকায়।
বরেন্দ্র এলাকায় গমের চাষ বাড়াতে কৃষি বিভাগ ও বরেন্দ্র বহুমুখী সমন্বিত পদক্ষেপ গ্রহণ করে। কৃষকদের ভালো মানের বীজ সরবরাহ ও সেচ সুবিধা নিশ্চিত করায় এবার বিঘা প্রতি ১৪ থেকে ১৫ মণ গমের ফলন হবে বলে আশা করছে। এক সময় ফেলে রাখা এসব জমি গম জচাষের আওতায় আসায় বরেন্দ্র এলাকায় আর্থসামাজিক অবস্থার পরিবর্তন আশা করছে সংশ্লিষ্ট দফতর।
সাপাহার কৃষি কর্মকর্তা এএফএম গোলাম ফারুক জানান, সরকারিভাবে গম কেনায় গতবছর নায্যমূল্য পেয়েছে কৃষক। এবার আরো আগ্রহী হয়ে গম চাষে ঝুঁকেছে চাষিরা। তাদের আধুনিক কলাকৌশলসহ ভালো বীজ সরবরাহ করা হয়েছে। এবার গমের ভালো ফলন পাবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।
বিএমডিএ সাপাহার উপসহকারী প্রকৌশলী মো. রেজাউল ইসলাম জানান, ঠাঠা বরেন্দ্র এলাকায় কম সেচ লাগে এমন ফসলে কৃষকদের উৎসাহী করা হচ্ছে। সে লক্ষ্যে কৃষকদের নিয়ে সভা সেমিনার করা হচ্ছে। ধানের চাষ কমিয়ে গম চাষে আগ্রহী করায় গত কয়েক বছরে বরেন্দ্র এলাকায় বাড়ছে গম সহ অন্য অর্থকরি ফসলের চাষ। এ ক্ষেত্রে সেচ সুবিধা দিচ্ছে বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ ।
চলতি বছর নওগাঁয় ২৯ হাজার ৫শ হেক্টর জমিতে গমের চাষ হয়েছে। যার মধ্যে বরেন্দ্র এলাকায় ২০ হাজার হেক্টর। এবার প্রায় ১ লাখ মেট্রিক টন গমে কৃষকের ঘরে উঠবে বলে মনে করছে কৃষি বিভাগ।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ